অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারকে স্বাগত জানালেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ : ১৩ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সাড়া জাগানো বিকল্প ধারার সংবাদমাধ্যম উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারকে স্বাগত জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। তিনি বলেন, এই ঘটনায় এটাই প্রমাণিত হয় যে কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

২০১২ সালের জুন থেকে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। ৪ এপ্রিল উইকিলিকসের টুইটে বলা হয়, ইকুয়েডর সরকারের উচ্চ পর্যায়ের দুটি সূত্র থেকে তারা নিশ্চিত হয়েছে যে কয়েক ঘণ্টা থেকে কয়েক দিনের মধ্যে অ্যাসাঞ্জকে দূতাবাস থেকে তাড়ানো হতে পারে। সেই ধারাবাহিকতায় রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করে গত বৃহস্পতিবার তাকে ব্রিটিশ পুলিশের হাতে তুলে দেয় ইকুয়েডর। গ্রেফতারের পর অ্যাসাঞ্জকে লন্ডনের ওয়েস্ট মিনিস্টার ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। পার্লামেন্টে থেরেসা মে নিশ্চিত করেন যে অ্যাসাঞ্জকে জামিনের শর্ত ভঙ্গের দায়েই গ্রেফতার করা হয়েছে, ছিল যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণের অনুরোধও। এই ঘটনায় ইকুয়েডর সরকারের সহযোগিতার প্রশংসা করেন তিনি।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সাড়া জাগানো বিকল্প ধারার সংবাদমাধ্যম উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারকে স্বাগত জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। তিনি বলেন, এই ঘটনায় এটাই প্রমাণিত হয় যে কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

২০১২ সালের জুন থেকে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। ৪ এপ্রিল উইকিলিকসের টুইটে বলা হয়, ইকুয়েডর সরকারের উচ্চ পর্যায়ের দুটি সূত্র থেকে তারা নিশ্চিত হয়েছে যে কয়েক ঘণ্টা থেকে কয়েক দিনের মধ্যে অ্যাসাঞ্জকে দূতাবাস থেকে তাড়ানো হতে পারে। সেই ধারাবাহিকতায় রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করে গত বৃহস্পতিবার তাকে ব্রিটিশ পুলিশের হাতে তুলে দেয় ইকুয়েডর। গ্রেফতারের পর অ্যাসাঞ্জকে লন্ডনের ওয়েস্ট মিনিস্টার ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। পার্লামেন্টে থেরেসা মে নিশ্চিত করেন যে অ্যাসাঞ্জকে জামিনের শর্ত ভঙ্গের দায়েই গ্রেফতার করা হয়েছে, ছিল যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণের অনুরোধও। এই ঘটনায় ইকুয়েডর সরকারের সহযোগিতার প্রশংসা করেন তিনি।

 

"