লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ / ‘চুরি করা’ নথিও গ্রাহ্য কোর্টে

রাফালে ধাক্কা খেল মোদি সরকার

প্রকাশ : ১২ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

লোকসভা ভোট শুরুর ঠিক আগের দিনেই রাফাল বিতর্ক নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা খেল নরেন্দ্র মোদি সরকার। প্রকাশ্যে আসা রাফাল চুক্তি সংক্রান্ত নতুন তথ্যকে মোদি সরকার ‘চুরি করা নথি’ আখ্যা দিলেও সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিল, সেই নথি আদালতে গৃহীত হবে। মোদি সরকার এতে ঘোর আপত্তি তুলে বলেছিল, সরকারি আইন মতে এসব গোপন নথি। বেআইনিভাবে তা প্রকাশ্যে আনা হয়েছে। কাজেই আদালতে তা প্রামাণ্য হিসেবে গ্রাহ্য হতে পারে না। কিন্তু আজ প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের বেঞ্চ মোদি সরকারের সেই দাবি খারিজ করে জানিয়েছে, সব তথ্যের ভিত্তিতেই সুপ্রিম কোর্ট রাফাল চুক্তিতে সিবিআই তদন্তের আর্জি পুনর্বিবেচনা করবে।

রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার জন্য ফ্রান্সের সঙ্গে দর কষাকষির সময়ে প্রধানমন্ত্রীর দফতর তাতে নাক গলাচ্ছে, এই অভিযোগে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক আপত্তি তোলে। তৎকালীন প্রতিরক্ষামন্ত্রী, প্রয়াত মনোহর পরিকর সেই আপত্তি খারিজ করে দেন। সেই গোপন ফাইলের নথিই প্রকাশ্যে আসে। গত বুধবারের রায়ে প্রধান বিচারপতির বেঞ্চের প্রশ্ন, যদি ধরেও নেওয়া যায় এই নথি যথাযথ নিয়ম মেনে জোগাড় করা হয়নি, তাই বলে এটি আদালতের বিবেচনার বাইরে থাকবে কেন? নরেন্দ্র মোদি রাফাল নিয়ে রাহুল গান্ধীর অভিযোগ ঝেরে ফেলার চেষ্টা করলেও সুপ্রিম কোর্টের রায় কংগ্রেস সভাপতির হাতে নতুন অস্ত্র তুলে দিয়েছে। বিশেষত প্রথম দফার ভোটের ঠিক আগে সুপ্রিম কোর্টের এই রায়ে উল্লসিত কংগ্রেস শিবির। প্রধানমন্ত্রী গতকাল বৃস্পতিবারই দাবি করেছিলেন, রাফাল প্রশ্নে সুপ্রিম কোর্ট সরকারকে নির্দোষ বলে রায় দিয়েছে। রাহুলের পাশে কেউ নেই। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের নতুন রায়কে হাতিয়ার করে আজ কংগ্রেস তো বটেই, মায়াবতী থেকে সিপিএম সবাই মোদি সরকারকে নিশানা করেছে।

প্রধানমন্ত্রী গত সপ্তাহেই এবিপি নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দাবি করেছিলেন, সুপ্রিম কোর্ট রাফাল চুক্তি নিয়ে সরকারকে ‘ক্লিনচিট’ দিয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার শীর্ষ আদালতের রায়ের পরে রাহুল অমেঠিতে বলেন, মোদি সাজানো সাক্ষাৎকারে বলেছেন, সুপ্রিম কোর্ট তাকে ক্লিনচিট দিয়েছে, ইত্যাদি। কিন্তু আজ (বৃহস্পতিবার) আদালত স্পষ্ট করে দিয়েছে যে, চৌকিদার চুরি করেছেন। আগে থেকেই বলেছি, দুজনের বিরুদ্ধে তদন্ত হোক— এক নরেন্দ্র মোদি এবং দুই অনিল অম্বানী।

কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামন অবশ্য একে সরকারের জন্য ধাক্কা হিসেবে মানতে রাজি নন। তার যুক্তি, সুপ্রিম কোর্ট গত ডিসেম্বরেই রাফাল যুদ্ধবিমানের দাম, কেনার প্রক্রিয়া এবং ভারতীয় সংস্থার বরাত পাওয়ার বিষয় খতিয়ে দেখে সিবিআই তদন্তের আর্জি নাকচ করে দিয়েছে। আজও সুপ্রিম কোর্ট তাদের রায়ে স্পষ্টই বলেছে, পুনর্বিবেচনার আর্জি তার যৌক্তিকতার ভিত্তিতেই খতিয়ে দেখা হবে। রাহুল আদালত অবমাননা করেছেন বলেও অভিযোগ করেন সীতারামন।

 

"