ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে আরো ২৩ হাজার ভবন নির্মাণের ঘোষণা ইসরায়েলের

প্রকাশ : ১৩ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

দখলকৃত ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে আরো ২৩ হাজার ভবন নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছে ইসরায়েল। গত সোমবার ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এ ঘোষণা দেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় দেওয়া এক পোস্টে তিনি বলেন, আগামী পাঁচ বছরে দখলকৃত পূর্ব জেরুজালেমে ২৩ হাজার ভবন নির্মাণ সংক্রান্ত একটি চুক্তিতে উপনীত হয়েছে সরকার। এতে ব্যয় হবে ২৭৬ মিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশে মুদ্রায় এর পরিমাণ দাঁড়ায় ২ হাজার ৩১৯ কোটি ১৩ লাখ ১৪ হাজার টাকা।

‘জায়নবাদ’ নামের মতবাদের মধ্য দিয়ে ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ইসরায়েল রাষ্ট্র। জায়নবাদ ইহুদি ধর্মের দর্শন নয়, এটি একটি রাজনৈতিক মতবাদ; অলীক রূপকথায় যে মতবাদের শরীর গড়ে ওঠেছে। জায়নবাদের ভাষ্য, জেরুজালেমসহ ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড নিয়ে গঠিত পবিত্র নগরীতে স্রষ্টা তাদের অধিকার ফিরিয়ে নিতে বলেছিল! ইতিহাসে নজর ফেরালে দেখা যায়, ১৮ শতক থেকে জায়নবাদ নামের আন্দোলনের মধ্য দিয়ে ইউরোপসহ বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে থাকা ইহুদিরা তাদের বর্ণবাদী ধারণার বিস্তার ঘটিয়ে দখল হওয়া ফিলিস্তিনি ভূমিতে ইসরায়েল রাষ্ট্রের জন্ম দেন। ২০১৮ সালের জুলাইয়ে জায়নবাদী মতাদর্শকে আইনগত ভিত্তি দিতে নেসেটে পাস হওয়া ‘জাতিরাষ্ট্রবিষয়ক আইন’ অনুযায়ী দখলিকৃত ফিলিস্তিনি ভূমিতে প্রতিষ্ঠিত ইসরায়েল রাষ্ট্রকে ঐতিহাসিকভাবেই ইহুদিদের জন্মভূমি আখ্যা দেওয়া হয়। বলা হয়, সঙ্গত কারণেই এখানকার মাটিকে নিজেদের দাবি করার অধিকার রয়েছে তাদের। আইনে বলা হয় ইসরায়েল শুধু ইহুদি নাগরিকদের রাষ্ট্র।

নেতানিয়াহুর দাবি, জেরুজালেম শুধু ইহুদিদের একটি আবাসিক এলাকাই নয়; বরং এটি হচ্ছে ইসরায়েলের রাজধানী।

আল জাজিরা’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দখলকৃত পূর্ব জেরুজালেমে ইসরায়েলের ২৩ হাজার ভবন নির্মাণ প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত থাকবে দেশটির একাধিক মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে নেতানিয়াহুর উপস্থিতিতে তারা এ সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। চুক্তিতে স্বাক্ষর করা মন্ত্রণালয়গুলো হচ্ছে অর্থ, ভূমি ব্যবস্থাপনা ও জেরুজালেম পৌর এলাকা সংক্রান্ত মন্ত্রণালয়।

চুক্তিতে জেরুজালেম সংলগ্ন এলাকাগুলোরও উন্নয়ন সাধনের কথা বলা হয়েছে। এছাড়া বিশাল জায়গা নিয়ে অফিস ও বিনিয়োগবিষয়ক অবকাঠামো তৈরিরও উল্লেখ রয়েছে চুক্তিতে।

 

"