যুক্তরাষ্ট্রে বিচারে দোষী মাদক সম্রাট গুজমান

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ama ami

মেক্সিকোর কুখ্যাত মাদক সম্রাট হোয়াকিন ‘এল চ্যাপো’ গুজমানকে মাদক পাচারের ১০টি অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করেছে নিউইয়র্কের ফেডারেল আদালত। ওই ১০ অভিযোগে তার সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদন্ড হতে পারে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে রয়টার্স।

এ মামলায় বিশ্বের সবচেয়ে সংগঠিত মাদক পাচার ও অপরাধ চক্র সিনালোয়ার নেতৃত্ব দেওয়া এবং সীমান্ত দিয়ে হাজার হাজার টন মাদক পাচারের অভিযোগ আনা হয়েছিল গুজমানের বিরুদ্ধে। কৌঁসুলিরা বলছেন, সিনালোয়াই যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বড় মাদক সরবরাহ চক্র।

গুজমান মেক্সিকোর সুরক্ষিত কারাগার আল্টিপ্লানো থেকে দ্বিতীয়বারের মতো পালানোর পর তাকে ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে ফের আটক করে পুলিশ। ওই বছরই গুজমানকে বিচারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হয় এবং ২০১৭ সালে তাকে যুক্তরাষ্ট্রে হস্তান্তর করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ১১ সপ্তাহ ধরে গুজমানের বিচার চলার পর নিউইয়র্কে ব্রুকলিনের আদালতের জুরিরা মঙ্গলবার তাকে দোষী সাব্যস্ত করার ওই রায় শুনিয়েছে। তার বিরুদ্ধে মাদক পাচার, অস্ত্র ও অর্থ পাচার, খুন, অপহরণ, নির্যাতনসহ ১০টি অভিযোগ আনা হয়েছিল।

কে এই গুজমান?

৬১ বছর বয়সী গুজমান ‘এল চাপো’ বা ‘পিচ্চি’ নামেও পরিচিত। পুরো নাম হোয়াকিন গুজমান লোয়েরা পেরেজ। মেক্সিকোয় সিনালোয়ার বাডিরাগুয়াতোয় লা তুনা গ্রামে এক গরিব পরিবারে তার জন্ম। ছোটবেলায় গাঁজাও বিক্রি করেছেন তিনি।

এক পর্যায়ে গুজমান হয়ে ওঠেন কুখ্যাত। গত কয়েক দশকে তিনি বিশ্বের সবচেয়ে সুগঠিত ও শক্তিশালী অপরাধ চক্রের ‘বস’ হয়ে ওঠেন। এমনকি ফোর্বস সাময়িকীতে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় কোটিপতিদের তালিকায় তার নাম উঠে আসে।

মেক্সিকো ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রে মাদক চোরাচালানের কয়েকটি অভিযোগ ছিল গুজমানের বিরুদ্ধে। যুক্তরাষ্ট্রের ড্রাগ এনফোর্সমেন্ট অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ তালিকায় উঠেছিল তার নাম।

১৯৮০’র দশকে তিনি মাদকচক্রের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তি হয়ে ওঠেন। সিনালোয়া মাদক চোরাচালান চক্রের প্রধান হওয়ার পরই বিশ্বের মোস্ট ওয়ান্টেড মাদক পাচারকারীর তালিকায় তার নাম ওঠে। এ চক্র যুক্তরাষ্ট্রে বিপুল পরিমাণে কোকেইন, মারিজুয়ানাসহ মেথাফেটাফিন চোরাচালান করে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র বিভাগ একবার তাকে ধরিয়ে দেয়ার জন্য ৫০ লাখ ডলার পুরস্কারও ঘোষণা করেছিল।

আদালতের শুনানিতে গুজমানের জীবন কাহিনী : গুজমানের বিচার চলাকালে আদালতের শুনানিতে উঠে এসেছে তার জীবনের ভয়ঙ্কর সব অপরাধের ঘটনা। ১৩ বছরের মেয়েদের মাদক খাইয়ে ধর্ষণ করার মতো ঘটনাও এর মধ্যে রয়েছে।

"