স্যাটেলাইট চিত্রে উত্তর কোরিয়ার গোপন ক্ষেপণাস্ত্র কেন্দ্র!

প্রকাশ : ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোকে উল্লেখযোগ্যভাবে বিস্তৃত ও উন্নত করছে উত্তর কোরিয়া। গোপনে এসব কার্যক্রম চলছে। স্যাটেলাইটে ধারণকৃত ছবি বিশ্লেষণ করে এমন দাবি করেছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

গত ১২ জুন সিঙ্গাপুরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উনের বৈঠকে উত্তর কোরিয়ার নেতা কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। তবে দেশটি পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের বিষয়ে কোনো সময়সীমার কথা জানায়নি। বৈঠকের পর ট্রাম্প অবশ্য দাবি করেন, উত্তর কোরিয়া এখন আর পরমাণু হুমকি নয়। এর কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই স্যাটেলাইট চিত্র বিশ্লেষণ করে বিশেষজ্ঞরা দাবি করেন, কোরীয় উপদ্বীপে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের কথা বললেও এখনো কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে উত্তর কোরিয়া। এবার সিএনএন-এ প্রকাশিত নতুন স্যাটেলাইট চিত্রে দেখা গেছে, উত্তর কোরিয়া ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা কেন্দ্র বিস্তৃত করছে।

স্যাটেলাইট চিত্রে দেখা গেছে, উত্তর কোরিয়ার ইয়ংজেও-ডং পরীক্ষা কেন্দ্রের উন্নয়নের কাজ করা হয়েছে। ছবিতে আরো একটি পরীক্ষা কেন্দ্রের অস্তিত্ব দেখা গেছে যেটির কথা পূর্বে জানা ছিল না। এ দুটি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা কেন্দ্রই উত্তর কোরিয়ার পার্বত্য এলাকায় অবস্থিত। সিএনএন’র হাতে আসা স্যাটেলাইট চিত্র পর্যালোচনা করে বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, এ পরীক্ষা কেন্দ্রগুলো সম্ভবত উত্তর কোরিয়ার নতুন উদ্ভাবিত দীর্ঘ পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রগুলো পরীক্ষার জন্য ব্যবহার করা হবে।

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা উত্তর কোরিয়ার ওপর নিবিড়ভাবে নজর রাখছি, তবে গোয়েন্দা তথ্য নিয়ে আমরা আলোচনা করতে পারব না।’

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে উত্তর কোরিয়া ‘নতুন উদ্ভাবিত অত্যাধুনিক অস্ত্র’ পরীক্ষা চালানোর ঘোষণা দিয়েছে। বিভিন্ন সংবাদ প্রতিবেদনেও প্রকাশ পেয়েছে, উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে। ১ ডিসেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, আগামী বছরের শুরুর দিকে তিনি উত্তর কোরীয় নেতা কিমের সঙ্গে আবারও বৈঠকে বসতে পারেন। মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন বলেছেন, উত্তর কোরিয়া পরিস্থিতির অগ্রগতিতে ঘাটতি থাকায় দ্বিতীয় একটি বৈঠক জরুরি হয়ে পড়েছে। জানুয়ারি কিংবা ফেব্রুয়ারিতে এ বৈঠক হতে পারে।

"