পাকিস্তানের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে অর্থসহায়তা দেবে চীন

প্রকাশ : ০৫ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

পাকিস্তানের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে অর্থসহায়তা দেবে চীন, তবে সে জন্য আলোচনা অব্যাহত থাকবে। গতকাল শনিবার চীনের প্রধানমন্ত্রী কী কেকিয়াংয়ের সঙ্গে এ নিয়ে বৈঠক করেন সফররত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। বৈঠক শেষে এক চীনা কূটনীতিক রয়টার্সকে এ নিয়ে অব্যাহত আলোচনার কথা জানান। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী পাঁচ দিনের সফরে চীন পৌঁছান। শুক্রবার চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ইমরান খান। সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানিয়েছে, সফরে চীনের কাছে অর্থ সহযোগিতার আবেদন করেন ইমরান খান। চীনের রাজধানী বেইজিংয়ের গ্রেট হলে শুক্রবার প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা অর্থনৈতিক দিক দিয়ে কঠিন পরিস্থিতি পার করছি।’ ‘দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের দেশ এই মুহূর্তে দুটি সংকট মোকাবিলা করছে। এক হচ্ছে, রাজস্ব ঘাটতি, আরেকটি হচ্ছে রিজার্ভ সংকট।

এ বছরের আগস্টে পাকিস্তানের ক্ষমতায় আসার পর প্রথম চীন সফরে ইমরান খান চীন বিষয়ে বিস্তারিত জানার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তিনি চীনকে শুধু কৌশলগত মিত্রই নয়, পাকিস্তানের সবচেয়ে বড় বিদেশি বিনিয়োগকারী এবং অর্থ সহায়তাকারী হিসেবেও দেখতে চান। শি জিনপিং বলেন, ‘দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে অটুট বন্ধনের মধ্য দিয়ে নতুন যুগের সূচনা করতে চায় বেইজিং।’ ‘আন্তর্জাতিক এবং আঞ্চলিক রাজনীতিতে পরিবর্তন এলেও দুই দেশের সম্পর্কের উন্নতি অব্যহত থাকবে’ বলেন চীনা প্রেসিডেন্ট। তবে চীন পাকিস্তানের নতুন মিত্রশক্তি হিসেবে বিবেচিত হলেও ইমরান খানের সরকার চীনের সঙ্গে ৬০ বিলিয়ন ডলারের চায়না-পাকিস্তান ইকোনোমিক করিডোর (সিপিইসি) প্রকল্পটির পুনর্বিবেচনা করছে।

তবে এই সিপিইসিকে চীন তাদের বিশাল ?‘বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ’ প্রকল্পের অবকাঠামো উন্নয়ন হিসেবেই দেখছে চীন।

অন্যদিকে শুধু অবকাঠামো উন্নয়নের জায়গাগুলোতে পরিবর্তন এনে সামাজিক উন্নয়নের দিকগুলোতে জোর দিয়ে সিপিইসিতে সংশোধন চায় পাকিস্তান। তবে চীন সিপিইসির খুব বেশি প্রকল্পে পরিবর্তন আনছে না বলে জানিয়েছে। রয়টার্সের তাদের প্রতিবেদনে এমনটি বলেছে।

বেইজিং সফর শেষে ইমরান খান সাংহাইতে চীনের একটি আমদানিবিষয়ক প্রদর্শনীতে প্রধান বক্তা হিসেবে ভাষণ দেবেন। বিদেশি কোম্পানিগুলোকে তাদের পণ্য প্রদর্শনীর জন্য চীন সরকারের সবচেয়ে বড় আয়োজন সাংহাইয়ের এই প্রদর্শনীটি।

চীনের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন সিসিটিভির খবরে বলা হয়েছে, চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং কমিউনিস্ট পার্টির প্রভাবশালী পলিট ব্যুরো সদস্য ইয়াং জিয়েচি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়াং ইয়িকে সঙ্গে নিয়ে ইমরান খানের সঙ্গে বৈঠকে বসেন। অপর পক্ষে পাক প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি, অর্থমন্ত্রী আসাদ উমার, ব্যবসা-বাণিজ্যবিষয়ক উপদেষ্টা আবদুল রাজ্জাক দাউদ ও রেলমন্ত্রী শেখ রিসাদ উপস্থিত ছিলেন।

 

"