খাশোগি ‘হত্যাকান্ড’ তদন্তে তুরস্কে সৌদি প্রতিনিধি দল

প্রকাশ : ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সাংবাদিক জামাল খাশোগি নিখোঁজ রহস্য যৌথভাবে তদন্তে সৌদি আরবের একটি প্রতিনিধি দল তুরস্ক পৌঁছেছে। এদিকে, সৌদি কনস্যুলেটের অডিওতে খাশোগি হত্যার প্রমাণ পাওয়ার দাবি করেছে তুরস্ক। প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সৌদি রাজ পরিবারের জ্যেষ্ঠ সদস্য প্রিন্স খালিদ আল-ফয়সালও আছেন বলে জানা যায়। বৃহস্পতিবার দলটি তুরস্ক পৌঁছায়। শুক্রবার তুর্কি কর্মকর্তারা সৌদি প্রতিনিধি দলের পৌঁছানোর খবর জানান। গত ২ অক্টোবর সৌদি সাংবাদিক খাশোগি তার তুর্কি বাগদত্তা হাতিস চেঙ্গিসকে বাইরে দাঁড় করিয়ে রেখে ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশ করেন। সেখানে তিনি তার আগের বিয়ের তালাকের কাগজপত্র সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন।খাশোগি কনস্যুলেট থেকে আর বের হননি বলে জানান হাতিস চেঙ্গিস। তুরস্কের দাবি, তাকে কনস্যুলেট ভবনের ভেতরে হত্যা করার পর লাশ সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

রিয়াদ ওই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেছে, কিছুক্ষণ পরই খাশোগি কনস্যুলেট থেকে বেরিয়ে যান।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ান সৌদি আরব সরকারকে তাদের দাবির পক্ষে প্রমাণ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

এদিকে, তুরস্কের দাবিকে ‘মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন অভিযোগ’ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন সৌদি আরবের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স আবদুলআজিজ বিন সৌদ বিন নাইফ বিন আবদুলআজিজ।

খাশোগি নিখোঁজ হওয়ার ১১ দিন পর সৌদি আরব থেকে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য এল বলে জানায় বিবিসি।

শনিবার সৌদি প্রেস এজেন্সিকে আবদুলআজিজ বলেন, সৌদি আরব সরকারও খাশোগিকে নিয়ে ‘পুরো সত্য উদঘাটন করতে আগ্রহী’। সৌদি সরকার এ হত্যাকান্ডের নির্দেশ দিয়েছে বলে যে অভিযোগ করা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। খাশোগি নিখোঁজ এবং হত্যার খবর নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র এবং জাতিসংঘ উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেন, আন্তর্জাতিক সমাজ স্পষ্ট করেই এ রকম ঘটনা ঘটতে না দেওয়া পক্ষে এবং এটা নিশ্চিত করা অত্যন্ত জরুরি। খাশোগির সঙ্গে ঠিক কি ঘটেছে সেটা খুঁজে বের করাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন তিনি।

এর আগে খাশোগির ‘নিখোঁজ’ রহস্য নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শেষ দেখার কথা জানিয়েছেন। এজন্য তিনি সৌদি আরবের ওপর চাপ বাড়াচ্ছেন বলেও ধারণা করা হচ্ছে।

খাশোগি নিখোঁজ কান্ডে যুক্তরাষ্ট্র সৌদি রাজ পরিবারকে দায়ী ভাবছে কিনা, গত বুধবার টেলিফোনে ফক্স নিউজ চ্যানেলের করা এমন প্রশ্নের জবাবেও মার্কিন প্রেসিডেন্টের কণ্ঠে ছিল উদ্বেগের সুর। তিনি বলেন, তেমনটাই মনে হচ্ছে বলে আপনারা বলতে পারেন, আমরা এটি দেখছি।

তবে এখনো তিনি এ বিষয়ে সৌদি আরবের বাদশাহ সালমানের সঙ্গে কথা বলেননি বলে জানান ট্রাম্প। তবে তিনি ‘শিগগিরই’ এ বিষয়ে কথা বলবেন।

তুরস্কের দাবি, সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর খাশোগিকে নির্যাতন এবং হত্যার প্রমাণ তাদের হাতে আছে।

তারা কনস্যুলেটের ভেতরের অডিও পেয়েছেন। ওই অডিওতে খাশোগি এবং আরো কয়েক ব্যক্তিকে আরবিতে কথা বলতে শোনা যায়।

ওয়াশিংটন পোস্টে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদনে তুরস্কের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তার বরাত ?দিয়ে বলা হয়, ওই অডিওতে খাশোগিকে মারধর করতে শোনা যায় এবং পরে তাকে হত্যা করার বিষয়টিও বোঝা যায়।

তুরস্কের কয়েকটি সংবাদ মাধ্যমে খাশোগির হাতে থাকা ‘স্মার্ট ওয়াচ’র দ্বারা রেকর্ড হওয়া শব্দ নিয়ে তুর্কি কর্মকর্তারা তদন্ত করছেন বলে দাবি করা হয়েছে। তবে বিবিসি এ বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারেনি।

 

"