ফ্লোরিডার পথে ‘দানবিক’ হারিকেন মাইকেল

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ঘণ্টায় প্রায় ২০০ কিলোমিটার বেগের বাতাস নিয়ে, শক্তি সঞ্চয় করে তিন মাত্রার হারিকেনে পরিণত হওয়া মাইকেল ফ্লোরিডা উপকূলের দিকে ধেয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার (এনএইচএস)। স্থানীয় সময় বুধবার দুপুরের দিকে হারিকেনটি ফ্লোরিডা উপকূলে আঘাত হানবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর কারণে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলের বিপুলসংখ্যক বাসিন্দাকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ফ্লোরিডার গভর্নর রিক স্কট ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোর বাসিন্দাদের সতর্ক করে দ্রুত নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে বলেছেন, জানিয়েছে বিবিসি। মধ্য আমেরিকায় তা-ব চালিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দিকে এগিয়ে আসা মাইকেলের কারণে এরই মধ্যে ফ্লোরিডা, আলাবামা ও জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। ফ্লোরিডার ৩ লাখ ৭০ হাজারেরও বেশি লোককে ঘরবাড়ি ছেড়ে উঁচু স্থানে সরে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্কুল ও অঙ্গরাজ্যের বিভিন্ন কার্যালয়ও বন্ধ রাখা হয়েছে। চলতি সপ্তাহে মধ্য আমেরিকায় আঘাত হানা এ ঝড়টিতে হন্ডুরাস, নিকারাগুয়া, এল সালভাদর ও কোস্টারিকায় অন্তত ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম।

‘এটা জীবন ও মৃত্যুর মধ্যে পার্থক্য হয়ে দাঁড়াতে পারে,’ উপকূলীয় এলাকার বাসিন্দার সতর্ক করে বলেছেন ফ্লোরিডার গভর্নর স্কট; ওই এলাকাগুলোর বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যাওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

হারিকেনটির প্রভাবে যুক্তরাষ্ট্রের কিছু কিছু এলাকায় ১২ ইঞ্চি বৃষ্টি হতে পারে, ১২ ফুট পর্যন্ত উঁচু ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে বলেও আবহাওয়া পূর্বাভাসে ধারণা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ও বুধবারের মধ্যেই ঝড়টি আরো শক্তিশালী হতে পারে। ফ্লোরিডার প্যানহ্যান্ডেল কিংবা বিগ বেন্ড এলাকায় যখন মাইকেল আঘাত হানবে; তখন সেটি চার মাত্রার কাছাকাছি শক্তির হবে বলে পূর্বাভাসে সতর্ক করা হচ্ছে। ভূমিতে আঘাত হানার পর এটি দুর্বল হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ওপর দিয়ে অগ্রসর হতে পারে, সর্বশেষ আবহাওয়া বুলেটিনে এমনটাই জানায় এনএইচএস।

মাইকেলকে ‘দানবিক ঝড়’ আখ্যা দিয়ে কর্মকর্তাদের নির্দেশ শুনতে উপকূলীয় বাসিন্দাদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন গভর্নর স্কট। ‘ভয়াবহ এ ঝড় রাজ্যের একাংশকে একেবারেই তচনছ করে দিতে পারে, বিশেষ করে প্যানহ্যান্ডেল এলাকাটিকে। এটি ফ্লোরিডার প্যানহ্যান্ডেলে কয়েক দশকের মধ্যে আঘাত হানতে যাওয়া সবচেয়ে ভয়াবহ ঝড় হতে পারে বলেও ধারণা করা হচ্ছে। পানির যে প্রাচীর আসছে তাতে কেউই বাঁচতে পারবেন না,’ সংবাদ সম্মেলনে সবাইকে সতর্ক করে বলেন স্কট।

ঝড় মোকাবেলায় ন্যাশনাল গার্ডের আড়াই হাজার সদস্যকে মোতায়েন করার কথা আগের দিনই জানিয়েছিলেন ফ্লোরিডার গভর্নর।

মাইকেলের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের উপকূল রেখা বরাবর ৩০০ মাইলের বেশি এলাকা ঝুঁকির মুখে আছে বলে জানিয়েছে দেশটির আবহাওয়া অধিদফতর।

ফ্লোরিডা ও আলাবামায় তীব্র বাতাস, তাৎক্ষণিক বন্যা ও একের পর এক ঢেউ আঘাত হানতে পারে বলেও বাসিন্দাদের সতর্ক করেছে তারা।

আলাবামায় টর্নেডোও আঘাত হানতে পারে বলে ধারণা কর্মকর্তাদের। গত মাসে হারিকেন ফ্লোরেন্সে ভেসে যাওয়া ক্যারোলাইনাতেও মাইকেল তুমুল বৃষ্টি নিয়ে আসতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে।

‘আমি জানি লোকজন এখনো ফ্লোরেন্সের অবসন্নতাই কাটাতে পারেনি। কিন্তু এই ঝড়টি যেন বিনা প্রস্তুতিতে আপনাকে ধরে ফেলতে না পারে,’ বাসিন্দাদের উদ্দেশে এমনটাই বলেছেন নর্থ ক্যারোলাইনার গভর্নর রয় কুপার।

ঝড়ে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রস্তুতির ব্যাপারে আশ্বস্ত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মঙ্গলবার সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেছেন, ‘আসন্ন হারিকেনের ব্যাপারে আমরা বেশ ভালোভাবেই প্রস্তুত।’

 

"