বুলগেরিয়ায় দুর্নীতিবিরোধী টকশোর সঞ্চালক খুন

প্রকাশ : ০৯ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

শীর্ষ রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীদের দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে টেলিভিশনে টকশো প্রচারের কয়েক দিনের মধ্যেই সন্ধান মিলেছে সঞ্চালকের মরদেহের। ভিক্টোরিয়া মারিনোভা নামের ওই সাংবাদিককে ধর্ষণের পর খুন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বুলগেরিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এদিকে ওই টকশোতে অংশ নেওয়ার পরপরই দুই অতিথি সাংবাদিককে আটক করা হয়েছে। ইউরোপীয় দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় শহর রুসের একটি পার্ক থেকে ৩০ বছর বয়সী ভিক্টোরিয়ার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় তদন্ত শুরু হয়েছে। সে দেশের পুলিশ ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছে, এখনো এই খুনের সঙ্গে মারিনোভার পেশাগত কাজের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি।

বুলগেরিয়ার টেলিভিশন সাংবাদিক ভিক্টোরিয়া মারিনোভা রুসের স্থানীয় ব্যক্তিমালীকানাধীন ছোট স্টেশন টিভিএন টেলিভিশনের প্রশাসনিক পরিচালক ছিলেন মারিনোভা। সম্প্রতি তিনি চলমান ঘটনা নিয়ে ‘ডিটেক্টর’ নামে একটি টকশো শুরু করেছিলেন। গত ৩০ সেপ্টেম্বর টকশোটির সর্বশেষ পর্ব প্রচারিত হয়। সেই পর্বে বুলগেরিয়ার বিভোল ডট অর্গ ওয়েবসাইটের অনুসন্ধানী সাংবাদিক দিমিতার স্টোয়ানিয়ভ এবং রোমানিয়ার রাইজ প্রজেক্টের আটালিয়া বাইরোর সাক্ষাৎকার প্রচারিত হয়। সেই অনুষ্ঠানে ইউরোপীয় ইউনিয়নের তহবিলে দেশটির শীর্ষ রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীদের জালিয়াতির অভিযোগ অনুসন্ধান নিয়ে সাক্ষাৎকার প্রচারিত হয়েছিল। ওই অনুষ্ঠান প্রচারের পরপরই দুই অতিথিকে আটক করা হয়।

শনিবার রুসের একটি পার্কে মরদেহ পাওয়ার পর আনুষঙ্গিক সামগ্রীর মাধ্যমে ভিক্টোরিয়া মারিনোভাকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়। রুশের আঞ্চলিক প্রসিকিউটর জর্জি জিওর্জিভ জানান, এখনো তার মোবাইল ফোন, গাড়ির চাবি, চশমা এবং পোশাকের একটি অংশ খুঁজে পাওয়া যায়নি। তিনি জানান, মাথায় আঘাত ও শ্বাসরোধের কারণে মারা গেছেন ভিক্টোরিয়া মারিনোভা। পরে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ম্লাদের মারিনভ নিশ্চিত করেন হত্যার আগে ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন এই সাংবাদিক। প্রধানমন্ত্রী বয়কো বসিরভ আশা প্রকাশ করেছেন, যথাযথ পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে এই হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু তদন্ত সম্ভব হবে। তিনি বলেছেন, যে পরিমাণ ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে তাতে অপরাধীদের ধরা সময়ের ব্যাপার মাত্র। রুসের আঞ্চলিক প্রসিকিউটর জর্জি জিওর্জিভ বলেছেন ব্যক্তিগত ও পেশাগত সূত্র ধরে তদন্ত অব্যাহত রেখেছেন তারা।

ইউরোপের নিরাপত্তা ও সহযোগিতা বিষয়ক সংস্থা ওএসসিই’র সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা বিষয়ক দূত হারলেম ডেজির মারিনোভার হত্যাকান্ড নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘বুলগেরিয়ায় অনুসন্ধানী সাংবাদিক ভিক্টোরিয়া মারিনোভার নৃশংস হত্যাকান্ডের খবরে স্তম্ভিত। জরুরিভাবে পূর্ণাঙ্গ ও বিস্তারিত তদন্তের আহ্বান জানাচ্ছি। যারা এ ঘটনায় দায়ী তাদের অবশ্যই বিচারের মুখোমুখি হতে হবে।’

ডিটেক্টর নামের ওই অনুষ্ঠান প্রচারের পরই দুই অতিথিকে আটক করা হলে তার নিন্দা জানায় সাংবাদিক সুরক্ষায় কাজ করা বৈশ্বিক সংস্থা রিপোর্টাস উইদাউট বর্ডারস (আরএসএফ)। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টিভিএন টেলিভিশনের এক সাংবাদিক এএফপিকে বলেছেন, আমরা স্তম্ভিত। তাকে তা টেলিভিশনকে টার্গেট করে আমার কখনোই কোনোভাবে বা কোনো ধরনের হুমকি পাইনি। বিভোল ডট অর্গের ফেসবুক পাতায় দেওয়া এক বিবৃতিতে মারিনোভার সহকর্মীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি করা হয়েছে।

সোমবার সন্ধ্যায় বুলগেরিয়ার রাজধানী সোফিয়ায় মোমবাতি জ্বালিয়ে মারিনোভাকে স্মরণের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

"