যুক্তরাষ্ট্রের নতুন বিচারপতির বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ

প্রকাশ : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি হিসেবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মনোনীত ব্রেট কাভানার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করা নারী প্রকাশ্যে এসেছেন। তার নাম ক্রিস্টিন ব্ল্যাসি ফোর্ড। তিনি প্যালো অ্যাল্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক।

ফোর্ড অভিযোগ করেন, ১৯৮২ সালে একদিন কাভানা তাকে জোর করে বিছানায় ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন এবং তার পোশাক খোলার চেষ্টা করেন। সে সময় দুজনই কিশোর বয়সী ছিলেন। তবে কাভানা তার বিরুদ্ধে করা যৌন হয়রানির অভিযোগ নাকচ করেছেন। এ ব্যাপারে মার্কিন সিনেটের জুডিশিয়ারি কমিটি এখনো কথা বলেনি। তবে রিপাবলিকান সিনেটর জুডিশিয়ারি কমিটির চেয়ারম্যান চাক গ্র্যাসলির মুখপাত্র বলেন, রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেটিক দলের পক্ষ থেকে কাভানা ও ফোর্ডকে একসঙ্গে বসানোর জন্য কাজ চলছে।

সিনেট জুডিশিয়ারি কমিটির শুনানির সময় ৫৩ বছর বয়সী কাভানাকে গত সপ্তাহে চার দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। আগামী বৃহস্পতিবার তাকে মনোনয়ন দেওয়ার ব্যাপারে ভোটাভুটি হবে। এরপর সিনেটে পূর্ণাঙ্গ ভোট হবে। সাইকোলজির অধ্যাপক ব্র্যাসলি ফোর্ড বলেন, তিনি জনসমক্ষে এসেছেন, কারণ তার গোপনীয় ধীরে ধীরে প্রকাশ হয়ে পড়ছে। তিনি বলেন, যৌন হয়রানির ঘটনাটি সম্ভবত ১৯৮২ সালে ঘটেছে। সে সময় ফোর্ডের বয়স ছিল ১৫ ও কাভানা ছিলেন ১৭ বছর বয়সী।

কাভানা পড়তেন মেরিল্যান্ডের বেথেস্ডার এলাকার জর্জটাউন প্রিপারেটরি স্কুলে এবং ফোর্ড পার্শ্ববর্তী স্কুলের শিক্ষার্থী ছিলেন। ওয়াশিংটন পোস্টকে ব্র্যাসলি ফোর্ড বলেন, তারা বন্ধুদের একটি অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। সেখানে কাভানা ও তার এক বন্ধু তাকে জোর করে ধরে একটি শোয়ার ঘরে নিয়ে যায়। কাভানা ও তার বন্ধু মদ্যপ অবস্থায় ছিল। ব্র্যাসলি ফোর্ড বলেন, তার বন্ধু দেখছিল, কাভানা তাকে বিছানায় ফেলে দেয় এবং তার পোশাকে হাত লাগায়। একপর্যায়ে পোশাক খোলার চেষ্টা করে। ফোর্ড বলেন, তিনি চিৎকার করার চেষ্টা করছিলেন।

"