মশা আর কুকুরে নাজেহাল লালু

প্রকাশ : ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মশা আর কুকুরের উৎপাতে নাজেহাল অবস্থা ভারতের বিহার রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদবের। চিকিৎসার জন্য প্যারোলে মুক্তি পাওয়ার পর লালুপ্রসাদ যাদব রাঁচির রাজেন্দ্র প্রসাদ ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সে চিকিৎসাধীন। তিনি যে ওয়ার্ডে আছেন তার চারপাশ অপরিচ্ছন্ন। রয়েছে মশার অত্যাচার। আর রাতভর কুকুরের চিৎকার। এ ধরনের পরিবেশে আরো অসুস্থ হয়ে পড়ছেন রাষ্ট্রীয় জনতা দলের (আরজেডি) প্রধান লালুপ্রসাদ যাদব। আরজেডির সাধারণ সম্পাদক ভোলা যাদব বিষয়টি তুলে ধরেছেন। এ ব্যাপারে এরই মধ্যে ওই হাসপাতালের পরিচালকের কাছে চিঠি দিয়েছেন তিনি।

চিঠিতে ভোলা যাদব লিখেছেন, লালুপ্রসাদ যে ওয়ার্ডে আছেন, তার পাশে শৌচালয়ের পাইপ। পাইপের মুখ বন্ধ থাকায় দিনভর সেখান থেকে দুর্গন্ধ ছড়ায়। ফলে আরজেডি প্রধানের স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটবে। জীবাণু সংক্রামণের আশঙ্কা রয়েছে। বেড়েছে মশার উপদ্রব। লালুপ্রসাদ যে ওয়ার্ডে থাকেন তার পাশে রয়েছে ময়নাতদন্তের ঘর। ফলে সেখানে প্রতিদিন দলে দলে বেওয়ারিশ কুকুরের আনাগোনা চলে। এরা সারাক্ষণ ধরে চিৎকার চেঁচামেচি করে। বিশেষ করে রাতে কুকুরের চিৎকারে ঘুমাতে পারেন না লালুপ্রসাদ যাদব।

চিঠিতে দাবি করা হয়েছে, রাজেন্দ্র প্রসাদ ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স হাসপাতালের একটি ১০০ বেডের পেয়িং ওয়ার্ডে বর্তমানে তিনজন রোগী রয়েছেন। সেখানেই ব্যবস্থা করে দেওয়া হোক লালুপ্রসাদ যাদবের। লালুর ওয়ার্ড পাল্টানোর আবেদনের কারণ হিসেবে আরো বলা হয়েছে, ডায়াবেটিস থাকায় লালুপ্রসাদের রোজ হাঁটা দরকার। কিন্তু লালু বর্তমানে হাসপাতালের যে ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন সেখানে পরিসর কম। হাঁটার জায়গাও নেই। হাসপাতালের পেয়িং ওয়ার্ডে লালুকে রাখা হলে তার খরচও বহন করা হবে বলে চিঠিতে জানানো হয়েছে।

এই চিঠির প্রাপ্তি স্বীকার করেছেন রাঁচির রাজেন্দ্রপ্রসাদ ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সের পরিচালক আর কে শ্রীবাস্তব। তিনি জানিয়েছেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে লালুপ্রসাদের ওই আবেদনের কথা জানানো হয়েছে। সেই সঙ্গে শ্রীবাস্তব অবিলম্বে স্থানীয় পুরসভাকে চিঠি লিখে লালুর বর্তমান ওয়ার্ডের সামনে থেকে বেওয়ারিশ কুকুর ধরে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন।

"