‘আইড্রপের বিষে’ স্বামী হত্যায় অভিযুক্ত মার্কিনি

প্রকাশ : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ ক্যারোলাইনার এক নারীর বিরুদ্ধে স্বামীকে বিষ প্রয়োগে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। লানা ক্লেইটন নামের ওই নারী স্বামীর অজান্তে তার খাবার পানিতে টানা কয়েকদিন ধরে চোখের ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা আইড্রপ মিশিয়েছিলেন বলে অভিযোগ তদন্ত কর্মকর্তাদের।

নিজের বাড়িতে ৬৪ বছর বয়সী স্টিফেন ক্লেইটনের মৃতদেহ উদ্ধারের কয়েক সপ্তাহ পর তার ৫২ বছর বয়সী স্ত্রীকে গ্রেফতার করা হয় বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। স্টিফেনের মৃতদেহে রাসায়নিক টেট্রাহাইড্রোজলিনের অস্তিত্ব পাওয়ার পরই লানাকে আটক করা হয়। চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই ওষুধের দোকান থেকে যেসব আইড্রপ ও নাকের স্প্রে কেনা যায়, সেগুলোতে এ রাসায়নিকটি পাওয়া যায়।

ইয়র্ক কাউন্টি পুলিশ শুক্রবার লানার বিরুদ্ধে ১৯ থেকে ২১ জুলাই সময়ের মধ্যে খাদ্যদ্রব্য বেআইনি উপায়ে দূষিত করারও অভিযোগ এনেছে। ওই সময়ের মধ্যেই স্টিফেনকে হত্যা করা হয়েছিল। স্বামীর অজান্তেই এ কান্ড করার কথা লানা স্বীকার করেছেন বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে পুলিশ। ৫২ বছর বয়সী এ নারীকে শুক্রবারই গ্রেফতার করা হয়। কী কারণে তিনি স্বামীকে হত্যা করেছেন, সে বিষয়ে কোনো ধারণা দেয়নি পুলিশ।

জুলাইয়ের তৃতীয় সপ্তাহে নর্থ ক্যারোলাইনার শার্লট থেকে ২০ মাইল দূরে ক্লোভারের নিজ বাড়ির হলঘরের সিঁড়ি থেকে পড়ে যাওয়ার পর ফিজিওথেরাপি সংশ্লিষ্ট একটি কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা স্টিফেনকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

তদন্ত কর্মকর্তারা মৃত্যুর কারণ বের করার আগে আগস্টের শুরুর দিকে বাড়ির পেছন দিকের উঠানে তার শেষকৃত্য হয় বলেও বন্ধু ও প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন।

স্থানীয় গণমাধ্যম হেরাল্ড বলছে, লানার নামে আগে কোনো ধরনের অপরাধের রেকর্ড ছিল না, আগে কখনোই গ্রেফতার হননি তিনি। লানার বিরুদ্ধে ২০১৬ সালে ঘুমন্ত অবস্থায় স্বামীর মাথায় ক্রসবো দিয়ে আঘাতের ঘটনা নথিভুক্ত থাকলেও, সেটি ‘দুর্ঘটনাবশত ছিল’ বলেই সে সময় ধারণা করেছিল পুলিশ। ওই ঘটনার পর লানা বাড়িতে ‘কেঁদেছিলেন ও বিচলিত’ হয়ে পড়েছিলেন বলেও তদন্ত কর্মকর্তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল। স্বামীকে বিষ প্রয়োগে হত্যার অভিযোগ ওঠায় কৌঁসুলিরা এখন ওই ঘটনাও পর্যালোচনা করে দেখছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি। ক্রসবো কান্ডের সময় লানা বলেছিলেন, তার স্বামী তাকে মানসিকভাবে অপমান করত; স্টিফেনের ‘মেজাজ বদলে’ যাওয়ার অভ্যাস থাকলেও কখনোই স্ত্রীকে শারীরিকভাবে আঘাত করেননি বলেও জানিয়েছিলেন লানা।

রাসায়নিক টেট্রাহাইড্রোজলিনের ফলে মৃগীরোগ, হঠাৎ শ্বাস-প্রশ্বাস বন্ধ ও গভীর অচৈতন্য দেখা দিতে পারে; চোখের লালচে ভাব কমানোয় ব্যবহৃত এ ওষুধটির কয়েক ফোঁটাও ‘গুরুতর পরিস্থিতির’ কারণ হয়ে উঠতে পারে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিন।

স্টিফেন ও লানা দম্পতি আট বছর ধরে একসঙ্গে বসবাস করে আসছিলেন বলে তাদের বন্ধুবান্ধবরা জানিয়েছেন। এলাকার একটি বাইবেল স্টাডি গ্রুপেও লানার যাতায়াত ছিল বলে অন্যরা জানতেন।লানা শার্লটের ভেটেরান অ্যাফেয়ার্স বিভাগে কাজ করতেন বলে তার ফেসবুক পেজ থেকে জানা গেছে। ক্লেইটন পরিবারের সদস্যরা বলছেন, স্টিফেনের মৃত্যুর কারণ শুনে তারা ‘স্তম্ভিত ও হতভম্ভ’ হয়ে পড়েছেন।

পরিবারের সদস্য ও বন্ধুবান্ধবরা জানত, সে তার স্ত্রী লানাকে কী পরিমাণ ভালোবাসত, স্ত্রীর কী পরিমাণ অনুরক্ত ছিল সে। আমরা এখনো প্রক্রিয়াটি বোঝার চেষ্টা করছি, বিবৃতিতে বলেছেন তারা।

ইয়র্ক কাউন্টি প্রবেট আদালতের তথ্যানুযায়ী, স্টিফেনের মৃত্যুর পর তার সম্পদের দেখভালের দায়িত্বও স্ত্রীকেই দেওয়া ছিল। তাদের বাড়িটির মূল্যমানও প্রায় ৮ লাখ ডলারের কাছাকাছি বলে জানিয়েছে বিবিসি। এটি যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট জর্জ ওয়াশিংটনের মাউন্ট ভার্নন এস্টেটে বানানো বাড়িটির আদলে নির্মিত হয়েছিল।

"