গাদ্দাফির শহরটি এখন ভুতুড়ে নগরী

প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সির্তে শহরটি এখন ভুতুড়ে নগরী। সির্তে শহর থেকে কথিত আইএস জঙ্গি বিতাড়িত হয়েছে দুই বছর আগেই। এ শহরটি সাবেক লিবীয় নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফির নিজের শহর।

সির্তে একসময় ছিল সাজানো গোছানো ছবির মতো একটি শহর। আর এখন শহরের যেদিকেই চোখ যায় শুধু যত্রতত্র ধ্বংসস্তূপ চোখে পড়ে। প্রায় প্রতিটি বাড়িই হয় পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে, না হয় আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রাস্তাঘাট থেকে শুরু করে সব স্থাপনার প্রায় একই অবস্থা। এক সময়ের রমরমা এই শহরটিতে এখনো শুধুই সংকট আর ধ্বংসের চিহ্ন।

যুদ্ধের ডামাডোল শেষে এখন শহরের অধিবাসীরা যার যার বাড়িতে ফিরতে শুরু করেছেন। যদিও শহরটি পুনর্গঠনে সরকার ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের তৎপরতা খুব কম বলে মনে করছেন তারা। অথচ দুই বছর আগেই এ শহর থেকে উৎখাত হয়েছে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস, তারপরও শহরটি এখনো একটি ভুতুড়ে শহর হয়েই আছে। সেখানকার একজন অধিবাসী বলছিলেন, শহরটিকে এ অবস্থায় দেখার জন্য আমরা ফিরে আসিনি। অনেকে ফিরে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। নিজের বাড়ির অবস্থা দেখে আমার এক আত্মীয় হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন। অধিবাসীরা বলছেন, শহরটির পুনর্গঠনের কোনো উদ্যোগই তাদের চোখে পড়ছে না।

তাদের অনেকের ক্ষোভ পশ্চিমাদের বিরুদ্ধেই। কারণ তারা মনে করে পশ্চিমারা যুদ্ধের সময় শহরটিকে ধ্বংস করেছে কিন্তু এখন অধিবাসীদের কোনো সহায়তাই করছে না। আরেকজন অধিবাসী বলছিলেন, সাহায্য দেয়ার নাম করে তারা আমাদের উপহাস করছে। সারা দিন ধরে লাইনে দাঁড় করিয়ে রাখে। আমরা সাহায্য চাই না। তারা আমাদের প্রতিবেশীদের ঘরবাড়ি ঠিক করে দিক, না হলে আমরা ইউরোপের দিকেই চলে যাব। ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে সাত মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের সময় শহরটি প্রায় সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে যায়।

শহরটি ২০১১ সালের মুয়াম্মার গাদ্দাফিবিরোধী আন্দোলনের ধাক্কা সামলানোর চেষ্টা করছিল। কিন্তু রাজনৈতিক অস্থিরতা আর যুদ্ধে দেশটির অর্থনীতি করুণ হয়ে ওঠে। লিবিয়ায় আইএস হুমকির অবসান হলেও সির্তের দক্ষিণাঞ্চলীয় এলাকায় এখনো কিছু জঙ্গি তৎপর আছে। সির্তে শহরে এই জঙ্গিরা যেন আবার ফিরে আসতে না পারে সেজন্য সবখানে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। যুদ্ধ শেষ, ফিরে আসতে শুরু করেছে অধিবাসীরা।

"