টিটিকাকা লেকের নিচে জাদুঘর!

প্রকাশ : ০৮ জুলাই ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

পানির পরিমাণ এবং আয়তনের দিক দিয়ে দক্ষিণ আমেরিকার সবচেয়ে বড় লেক টিটিকাকা। পেরু ও বলিভিয়ার মধ্যে অবস্থিত এই লেকটি স্থানীয়দের কাছে বেশ পবিত্র। এই লেকের নিচেই চলছে জাদুঘর বানানোর পরিকল্পনা। লেকের নিচে কী আছে! উত্তর জানতে অনেকবার ডুবুরি অভিযানে নেমেছেন বিভিন্ন দেশের অনুসন্ধিৎসু প্রতœপ্রেমীরা। লেকের তলদেশ থেকে আবিষ্কার হয়েছে হাজার হাজার অমূল্য প্রতœসামগ্রী। এরই পরিপ্রেক্ষিতে এবার লেকের নিচেই জাদুঘর বানাতে চায় বলিভিয়া সরকার। দেশটির সংস্কৃতিমন্ত্রী উইলমা আলানোকা জানিয়েছেন, এটি একই সঙ্গে একটি পর্যটন কমপ্লেক্স এবং প্রতœতাত্ত্বিক, ভূতাত্ত্বিক এবং জীববিজ্ঞান বিষয়ক গবেষণার কেন্দ্রও হবে। বিশ্বে এটিই হবে এ ধরনের প্রথম জাদুঘর। এই জাদুঘর তৈরিতে খরচ হবে ৮ দশমিক ৬ মিলিয়ন ইউরো। আর এই কাজে সহায়তা করবে বেলজিয়ামের উন্নয়ন সংস্থা এনাবেল। আলানোকা জানিয়েছেন, বেলজিয়াম সরকার এবং ইউনেস্কো এই প্রকল্পে ১ দশমিক ৭ ইউরো অর্থ সহায়তা করবে। লোকগল্পে আছে, সূর্য দেবতার ছেলে মানকো কাপাক এবং তার স্ত্রী মামা ওকলো টিটিকাকা লেকের পানি থেকে উঠে এসেছিলেন। এ কারণে স্থানীয়দের কাছে এর গুরুত্বও অনেক। ইনকা মিথোলজির বেশ বড় অংশজুড়ে আছেন মানকো কাপাক। বিশ্বাস আছে, ত্রয়োদশ শতক থেকে ষোড়শ শতক পর্যন্ত যে ইনকা সভ্যতা ছিল, তার রাজধানী, বর্তমানে পেরুর শহর কুসকোর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন এই কাপাক। প্রায় ৮৫০০ বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে টিটিকাকা লেকের অবস্থান। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চতা ৩৮০০ মিটার। স্প্যানিশ উপনিবেশ হওয়ার আগ পর্যন্ত বেশ কিছু প্রাচীন সভ্যতার জন্ম দিয়েছে এই লেক। সাম্প্রতিক নানা অভিযানে হাড়, সিরামিক, ধাতুর তৈরি প্রায় ১০ হাজারের মতো প্রতœসামগ্রী, রান্নার সরঞ্জাম এবং মানুষ ও প্রাণীর দেহাবশেষ পাওয়া গেছে। এর বেশিরভাগই তিওয়ানাকু-পূর্ব সভ্যতা (৩০০ খ্রিস্টাব্দ), তিওয়ানাকু সভ্যতা (৩০০-১১০০ খ্রিস্টাব্দ) এবং ইনকা সভ্যতার (১১০০-১৫৭০ খ্রিস্টাব্দ) সময়কালের।

জাদুঘরটির অবস্থান হবে রাজধানী লা পাজ থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরে।

"