সাংবাদিক সুরক্ষায় সরব কমনওয়েলথ

প্রকাশ : ১৮ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

৫ বছরে ৫৭ জন খুন! জাতিসংঘের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৩ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে কমনওয়েলথ দেশগুলোতে ৫৭ জন সাংবাদিক খুন হয়েছেন। এই প্রবণতা বাড়ছেই। ভারতীয় সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ খুন থেকে মাল্টায় নিহত ড্যাফনে কারুয়ানা গালিজিয়া, অসংখ্য অপহরণ মামলা, সাংবাদিক নিগ্রহের ঘটনা উঠে এসেছে কমনওয়েলথ সংগঠনগুলোর কার্যনির্বাহী দলগুলোর তৈরি করা রিপোর্টে। গতকাল সেই রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে আনুষ্ঠানিকভাবে। আগামী সপ্তাহে চোগামে (কমনওয়েলথ হেডস অব গভর্নমেন্ট মিটিং) রাষ্ট্র প্রধানদের হাতে তুলে দেওয়া হবে রিপোর্টটি।

একের পর এক সাংবাদিক নিগ্রহ, হত্যার ঘটনায় দীর্ঘদিন ধরেই সমালোচিত হচ্ছে কমনওয়েলথ দেশগুলো। কমনওয়েলথ লিগ্যাল এডুকেশন অ্যাসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট পিটার স্লিনের কথায়, বিশিষ্টজনরা মনে করেন কমনওয়েলথে মিনিস্টেরিয়াল অ্যাকশন গ্রুপ রয়েছে, যারা সংগঠনের রাজনৈতিক মূল্যবোধের খেয়াল রাখেন। কিন্তু আসলে দলটি সম্পূর্ণ নিষ্ক্রিয়। তার কথায়, ওদের ইনঅ্যাকশন গ্রুপ বলাই ভালো।

সাংবাদিকদের সুরক্ষার জন্য একগুচ্ছ দাবি তোলা হয়েছে রিপোর্টে। আগামী সপ্তাহে লন্ডনে বৈঠকে বসবেন রাষ্ট্র প্রধানরা। সেখানে তাদের সামনে পেশ করা হবে সেই দাবি সনদ। নাম রাখা হয়েছে, কমনওয়েলথ প্রিন্সিপলস অন দ্য রোল অব দ্য মিডিয়া ইন গুড গভর্ন্যান্স। তাতে ১২টি বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। সাংবাদিকদের সঙ্গে সরকারের তিনটি শাখা, এক্সিকিউটিভ স্তর, পার্লামেন্ট ও বিচার বিভাগের সম্পর্ক পর্যবেক্ষণে রাখা। সাংবাদিকদের শারীরিক ও আইনি নিরাপত্তা দেওয়া। ভোটের খবর করতে গিয়ে তাদের যাতে নিগৃহীত হতে না হয় তা-ও নজরে রাখার কথা বলা হয়েছে।

সাংবাদিক খুন বা নিগ্রহ সম্পর্কিত মামলায় স্বচ্ছতা বজায় রাখার দাবিও তোলা হয়েছে ওই রিপোর্টে।

"