মুক্তামণির রোগ শনাক্ত, অস্ত্রোপচার আগামী শনিবার

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০১৭, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন সাতক্ষীরার মুক্তামণির রোগ শনাক্ত হয়েছে। ‘হেমানজিওমা’য় আক্রান্ত ১২ বছরের এই শিশুটির হাতে আগামী শনিবার অস্ত্রোপচার করা হবে বলে গতকাল মঙ্গলবার জানেিয়ছেন বার্ন ইউনিটের সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন। এর আগে রোগ শনাক্ত করতে গত শনিবার মুক্তামণির হাতের টিস্যু সংগ্রহ করে বায়োপসির জন্য পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়।

সামন্ত লাল বলেন, প্রতিবেদন পেয়েছি, টিউমার ধরা পড়েছে। এই রোগটার নাম ‘হেমানজিওমা’। আগামী শনিবার সকাল ৮টায় মুক্তামনির হাতে অস্ত্রোপচার করার বিষয়ে মেডিক্যাল বোর্ড সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গত ১১ জুলাই থেকে ভর্তি ঢাকা মেডিক্যালে মুক্তার চিকিৎসার জন্য ডা. সামন্ত লাল সেনের নেতৃত্বে ১৪ সদস্যের একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে।

চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায়, হেমানজিওমা হলো শিশুদের রক্তনালির মধ্যে টিউমার যেগুলোতে ক্যানসার থাকে না। এই টিউমার শিশুদের মধ্যে প্রায়ই দেখা যায়। ত্বকের উপরিভাগে লাল গুটির মতো দেখতে এই টিউমার একটা সময়ের পর বিনা চিকিৎসায় মিশে যায়। বেশির ভাগ শিশুরই এতে কোনো সমস্যা হয় না। তবে ফেটে গিয়ে রক্ত বের হলে তা যন্ত্রণাদায়ক হয়। টিউমারের আকার ও অবস্থানের ওপর নির্ভর করে এটা বিকৃতও হয়ে যেতে পারে। উপরন্তু এগুলো স্নায়ুতন্ত্র বা মেরুদ-ের সমস্যাও তৈরি করতে পারে। ত্বক ছাড়াও যকৃত ও ফুসফুসের মতো অভ্যন্তরীণ অঙ্গেও হেমানজিওমা হতে পারে। এগুলোও সাধারণত সমস্যা করে না।

গত ১১ জুলাই থেকে ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন মুক্তার রোগটি ‘হাইপারকেরাটসিস’ বা স্কিন ক্যানসার হতে পারে বলে ধারণার কথা আগের জানিয়েছিলেন ডা. সামন্ত লাল ও সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. নাসিরউদ্দিন।

মুক্তামনির বাবা ইব্রাহিম হোসেন জানান, দেড় বছর বয়সে মুক্তার ডান হাতে একটি ছোট গোটা দেখা দেয়। পরে তা বাড়তে বাড়তে বছর চারেক আগে এমন পর্যায়ে যায় যে স্বাভাবিক চলাফেরা ব্যাহত হয়। সে সব সময় যন্ত্রণায় অস্থির থাকে। আক্রান্ত হাতটি ফুলে দেহের চেয়ে ভারী হয়ে ওঠে, সঙ্গে তার শরীর শুকিয়ে যেতে থাকে।

"