আশুলিয়ায় অভিযান

চার জঙ্গির পরিচয় জানা গেছে

প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৭, ০০:০০

আশুলিয়া প্রতিনিধি

শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ার পাথালিয়া ইউনিয়নের চৌরাবাড়ি এলাকার জঙ্গি আস্তানায় আটক চার জঙ্গির বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেছে র‌্যাব। এ ছাড়া এই চারজনের পরিচয়ও জানা গেছে। বাড়িটি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে কিছু জিহাদি বই। এ ছাড়া আত্মসমর্পণকারী এই চার জঙ্গিকে চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন ঢাকার আদালত।

গতকাল সোমবার দুপুরে র‌্যাব কর্মকর্তা ডিএডি শরিফুল ইসলাম খান বাদী হয়ে এই চার জঙ্গির বিরুদ্ধে অস্ত্র ও বিস্ফোরকদ্রব্য ও সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা দুটি (নং-৪১ ও ৪২) দায়ের করেন। র‌্যাব-৪-এর নবীনগর ক্যাম্পের অধিনায়ক মেজর আবদুুল হাকিম মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। আশুলিয়া থানায় চার জঙ্গির বিরুদ্ধে করা দুই মামলায়

আজ মঙ্গলবার তাদের আদালতে পাঠানো হবে। এদিকে আটক জঙ্গিরা হলো ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল থানার সাংকিভাদা গ্রামের আবদুল মান্নান মিয়ার ছেলে মোজাম্মেল হক মাসুদ (১৮), চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানার কদলপুর মেয়াজি গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে ইফরানুল ইসলাম ওরফে সুফিয়ান খান (২০), গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি থানার উদাখালী গ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে রাশেদুল নবী রাশেদ (২২) ও সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার হোগলি কৃষ্ণনগর গ্রামের আবদুল হান্নান আলীর ছেলে মো. আলমগীর হোসেন (২১)।

র‌্যাব জানায়, প্রথমে বাড়িটির ভেতরে এক ব্যক্তি চটের জিনিসপত্র তৈরি করলেও এক মাস আগে আজাদ নামের এক ব্যক্তি নিজেকে পোশাকশ্রমিক পরিচয় দিয়ে বাড়িটি ভাড়া নেন। এরপর অজপাড়াগাঁও এবং নিরিবিলি পরিবেশে সেখানে আস্তানা গাড়ে জঙ্গিরা। দেশের বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সফল অভিযানে কোণঠাসা জঙ্গিরা এখান থেকেই বড় ধরনের নাশকতার ছক আঁকতে শুরু করে। তবে বিভিন্ন স্থানে র‌্যাবের অভিযানে আটক জঙ্গিদের জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে আশুলিয়ার জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পায় র‌্যাব। এরপর শনিবার দিবাগত রাত ১টা থেকে ওই আস্তানাটি ঘিরে ফেলা হয়। প্রায় ১২ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে নাশকতার কাজে ব্যবহার করার জন্য মজুদ করা অস্ত্র, গোলাবারুদসহ চার জঙ্গিকে আটক করতে সক্ষম হয় র‌্যাব।

সাভারের নবীনগর র‌্যাব-৪-এর কোম্পানি কমান্ডার মেজার আবদুুল হাকিম বলেন, আটক জঙ্গিদের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় দুটি মামলা দায়ের ও এলাকাবাসীর নিরাপত্তার স্বার্থে জঙ্গি আস্তানার সামনে পাহারা বসানোর কথাও জানান তিনি।

এদিকে, গতকাল সোমবার তাদের ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে সাভার থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফাইরুস তাসনিন প্রত্যেকের বিরুদ্ধে চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আত্মসমর্পণ করানো হয় বলেও জানান মুফতি মাহমুদ খান।

উল্লেখ্য, গত রোববার দুপুরে জঙ্গি আশুলিয়ার চৌরাবড়ি এলাকার জঙ্গি আস্তানায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাব। দৈর্ঘ্য প্রায় ১২ ঘণ্টার অভিযান শেষে চার জঙ্গি র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পণ করে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয় তিনটি বোমা, দুটি বিদেশি পিস্তল, ৮টি গুলির খোশা, একটি ভাঙা ল্যাপটপ, ৬টি মোবাইল ফোন, বেশ কিছু ছুড়ি, ৮টি জিহাদি বই ও ১০টি জিহাদি সিডি।

"