স্টকহোমে প্রধানমন্ত্রীকে লালগালিচা সংবর্ধনা

প্রকাশ : ১৬ জুন ২০১৭, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

তিন দিনের দ্বিপক্ষীয় সফরে সুইডেন পৌঁছালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লালগালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। স্ক্যান্ডিনেভিয়ান এয়ারলাইনসের একটি উড়োজাহাজ প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে স্থানীয় সময় বুধবার রাত ৯টা ৪০ মিনিটে সুইডেনের রাজধানীর আরলান্ডা বিমানবন্দরে অবতরণ করে। সুইডিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিফ অব প্রটোকল অ্যাম্বাসাডর ককাস মোলিন, স্টকহোমে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম সারোয়ার এবং ঢাকায় নিযুক্ত সুইডিশ রাষ্ট্রদূত জোহান ফ্রিসেল বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানান। পরে সুইডিশ সশস্ত্র বাহিনী প্রধানমন্ত্রীকে গার্ড অব অনার দেয়। বাংলাদেশের কোনো সরকার অথবা রাষ্ট্রপ্রধানের এটিই প্রথম দ্বিপক্ষীয় সুইডেন সফর। সুইডেন সফরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট মেয়ে শেখ রেহানা প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে রয়েছেন। ঢাকা থেকে স্টকহোম যাওয়ার পথে শেখ হাসিনা লন্ডনে প্রায় ২৪ ঘণ্টা যাত্রাবিরতি করেন। স্টকহোমের আরলান্ডা বিমানবন্দর থেকে প্রধানমন্ত্রীকে মোটর শোভাযাত্রা সহকারে গ্র্যান্ড হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়। সুইডেন সফরকালে তিনি সেখানেই অবস্থান করবেন। শেখ হাসিনা হোটেলে পৌঁছালে সেখানে অল-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ নেতারা তাকে স্বাগত জানান। শেখ হাসিনা ৪৭ সদস্যের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলসহ উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিন দিনের সুইডেন সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল শনিবার লন্ডন হয়ে দেশে ফিরবেন।

প্রবাসীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাজ্যে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হয় এমন কিছু না করার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘একসময় বাংলাদেশ ভিক্ষুকের দেশ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও অন্যদের খারাপ নামে পরিচিত ছিল। আমরা এসব পরিস্থিতি মোকাবিলা করে উন্নয়নে রোল মডেলে পরিণত করেছি। কাজেই আপনারা এমন কিছু করবেন না যাতে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হয়।’ সুইডেন যাওয়ার পথে লন্ডনে যাত্রাবিরতির পর বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতারা লন্ডনে স্ট্রোক পার্কে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি লন্ডনে তাদের উদ্দেশে ভাষণকালে এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের উন্নয়ন অনেক বিদেশি নেতাদের কাছে জাদুর মতো। কিন্তু এটা আমাদের জন্য জাদু নয়, দেশের জনগণের সেবার আন্তরিকতা।’ তিনি বলেন, দেশ-বিদেশের প্রতিটি আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর দায়িত্ব দেশের উন্নয়ন, দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তব রূপ দেওয়ার জন্য আত্মনিবেদিত হয়ে কাজ করা।

প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে ভারী বর্ষণের ফলে সৃষ্ট ধারাবাহিক ভূমিধসে জীবন ও সম্পদহানি এবং লন্ডনে ভয়াবহ আগুনে গভীর মর্মাহত ও দুঃখ প্রকাশ করেন। শেখ হাসিনা যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত চ্যাম্পিয়ন কাপ ক্রিকেট ট্রফিতে সেমিফাইলে উন্নীত হওয়ায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সব সদস্য ও অন্যদের ধন্যবাদ জানান। প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্যে পার্লামেন্ট নির্বাচনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তিন কন্যাকে নির্বাচনে জয়ী হতে সর্বাত্মক সহযোগিতা দেওয়ায় যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ কমিউনিটি জনগণকে ধন্যবাদ জানান। এর আগে নবনির্বাচিত লেবার পার্টি কমন্স সভার সদস্য টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক ও রুশনারা আলী প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার হোটেলকক্ষে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। প্রধানমন্ত্রী তাদের সঙ্গে পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

"