বাজারে নেই মূল্য তালিকা মনিটরিংও হচ্ছে না

প্রকাশ : ২০ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীসহ দেশের সব বাজারের প্রবেশপথে এবং প্রতিটি খুচরা দোকানের সামনে নিত্যপণ্যের মূল্য তালিকা টানানো বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এই আদেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এখনো রাজধানীর কোনো বাজার বা খুচরা দোকানেও এই আদেশ মানা হচ্ছে না। মূল্য তালিকা টানানো এবং তার চেয়ে বেশি দামে পণ্য বিক্রি না করার বিষয়টি নিশ্চিত করার দায়িত্ব বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের। তবে এ বছর এখন পর্যন্ত বাজার মনিটরিং টিম মাঠে নামেনি। সম্প্রতি সরেজমিনে রাজধানীর একাধিক বাজার ঘুরে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব আবদুর রহিম খান বলছেন, ‘মন্ত্রণালয়ের দুটি সংস্থা বিশেষ করে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর থেকে প্রতিনিয়তই বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বাজার মনিটরিং টিমগুলো আগামী সপ্তাহেই বাজারে অভিযান পরিচালনা শুরু করবে।’ ক্রেতারা বলছেন, বাজারে মূল্য তালিকা থাকলে ক্রেতারা প্রতারণার শিকার কম হবেন। এছাড়া ব্যবসায়ীরা চাইলেও অনৈতিক মুনাফা করতে পারবেন না।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ২৪ নভেম্বর প্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে রাজস্ব খাতে দ্রব্যমূল্য পর্যালোচনা ও পূর্বাভাস সেল গঠিত হয়। এই সেল নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের উৎপাদন, চাহিদা, আমদানির পরিমাণ, মজুদ ও সংগ্রহ পরিস্থিতি এবং বিতরণ ব্যবস্থাসহ বিবিধ তথ্যের পর্যালোচনা এবং অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বাজার দরের তুলনামূলক বিশ্লেষণ করে। এই কাজের অংশ হিসেবে এই সেল বিভিন্ন সংস্থা থেকে পণ্যের উৎপাদন, মজুদ, সংগ্রহ পরিস্থিতি ও বিতরণ ব্যবস্থা, পণ্যের স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারদর, বন্দরে পণ্য খালাসের পরিমাণ, পণ্যের এলসি খোলা ও নিষ্পত্তির তথ্য সংগ্রহ এবং বিশ্লেষণ করে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার স্থিতিশীল রাখতে সরকারের করণীয় নির্ধারণে সহায়ক হিসেবে কাজ করে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বাণিজ্য মন্ত্রণায়ের উপসচিব পদমর্যাদার ২৪ জন কর্মকর্তার নেতৃত্বে ২৪টি বাজার মনিটরিং কমিটি সারা বছর বাজার মনিটরিং করার কথা। সেজন্যই বছরে দুবার এই কমিটি গঠিত হয়। এছাড়াও প্রয়োজন অনুযায়ী কমিটি পুনর্গঠনও করা হয়। সারা বছর না হলেও অন্তত রোজা শুরুর আগে অর্থাৎ শবেবরাতের পর থেকেই মাঠে নামে বাজার মনিটরিং কমিটিগুলো। কমিটিতে ঢাকা জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেটসহ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি), বাংলাদেশ আনসার, র‌্যাপিট অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), স্বরাষ্ট্র, অর্থ, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, কৃষি ও খাদ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা থাকেন। রমজানে কমিটিগুলো সচল থাকে এবং অভিযান থেকে ফিরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদন অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করে সরকার তথা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। কিন্তু এ বছর এখনো পর্যন্ত বাজারে নামেনি এসব কমিটি, অথচ সবকিছু ঠিক থাকলে চাঁদ দেখাসাপেক্ষে আগামী ২৪ এপ্রিল থেকেই শুরু হচ্ছে রোজা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বাজার মনিটরিং কমিটিসহ ১২টি সরকারি সংস্থা বাজার মনিটরিংয়ের কাজ করছে। সংস্থাগুলো হচ্ছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর, শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই), খাদ্য মন্ত্রণালয়ের নিরাপদ খাদ্য অধিদফতর, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীন ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), সব জেলা প্রশাসন এবং সরকারের চারটি গোয়েন্দা সংস্থা। এসব সংস্থার আলাদা টিমের পক্ষ থেকে প্রতিদিনই বাজার পরিস্থিরির খোঁজ-খবর নেওয়ার কথা।

প্রতিদিন বাজারে যাওয়া এবং নিত্যপণ্যের বাজার পরিস্থিতি বিশেষ করে পণ্যের মজুদ, আমদানি সরবরাহ পরিস্থিতি দেখে বাণিজ্যমন্ত্রী ও সচিবের কাছে প্রতিবেদন দেওয়ার কথা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মনিটরিং টিমের। মন্ত্রণালয়ের অধীন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরেরর কাজ পণ্যের দাম বৃদ্ধি, মেয়াদ ও জাল-জালিয়াতি হয় কিনা, সেদিকে নজর রাখা। বিভিন্ন প্যাকেটজাত পণ্যের গায়ে দাম লেখা আছে কিনা, তার বেশি দাম নিচ্ছে কিনা, উৎপাদন ও ব্যবহারের মেয়াদ ঠিকমতো আছে কিনা, কেউ কোনো পণ্যে ভেজাল দিচ্ছে কিনা, তা দেখভাল করার কথা শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই)। আর বাজার স্থিতিশীল রাখতে মজুদ, সরবরাহ ঠিক রাখা ও ভেজাল প্রতিরোধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করার কথা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন র‌্যাব-পুলিশ এবং খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন নিরাপদ খাদ্য অধিদফতরের। এছাড়া সরকারের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর একাধিক টিমের পক্ষ থেকে বাজারে বিভিন্ন ধরনের নিত্যপণ্য আমদানি, সরবরাহ, ও মজুদ পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করার কথা। তবে ক্রেতাদের অভিযোগ, মূল্য পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসব সংস্থার টিমগুলোর বাজারে ঠিকমতো কাজ করে না।

 

"