সুস্থ হয়ে ওঠা প্রবাসী বাংলাদেশি চিকিৎসকের অভিজ্ঞতা

প্রকাশ : ১৪ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০

বিবিসি

বাংলাদেশের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে পাস করা ড. সুনীল রায় ৪৫ বছর ধরে ইংল্যান্ডের জাতীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় (এনএইচএস) একজন গ্যাস্ট্রো-এনট্রোলজিস্ট বা পরিপাকতন্ত্রের বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করছেন। লন্ডনের কাছে কেন্ট কাউন্টিতে বয়স্কদের জন্য একটি নার্সিং হোম ছাড়াও ক্লিনিক রয়েছে তার।

সেগুলোর কোনো একটিতে চিকিৎসা করতে গিয়ে সম্প্রতি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন ৭২ বছর বয়স্ক এই চিকিৎসক। তারপর হাসপাতালের আইসিইউতে যেভাবে মৃত্যুর সঙ্গে তাকে লড়তে হয়েছে, বিবিসি বাংলার কাছে সেই অভিজ্ঞতার কথা বলেছেন তিনি। বলেছেন, কত বিপজ্জনক নতুন এই ভাইরাস এবং কতটা হুমকিতে রয়েছেন চিকিৎসকরা।

তিনি বলেছেন, ১২ মার্চ নার্সিং হোমে রোগী দেখা শেষ করার পর কয়েকজন নার্স এসে আমাকে জানান, রোগীকে আমি কিছুক্ষণ আগে দেখেছি, তাকে সম্প্রতি হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছিল এবং হাসপাতালে তার পাশের বেডের রোগী করোনাভাইরাস টেস্টে পজিটিভ হয়েছেন। কিছুটা দুশ্চিন্তা নিয়ে বাড়িফেরার পর সেই রাতেই আমার গলাব্যথা এবং কাশি শুরু হলো। পর দিন আমার স্ত্রীও কাশতে থাকলেন। জ্বর শুরু হলো। বুঝতে পারছিলাম কোভিড নাইনটিনের লক্ষণ। দুই দিনের মাথায় আমার ডাক্তার মেয়ে আমাদের দুজনকে নিয়ে গেল হাসপাতালে। নমুনা নেওয়ার পর আমাকে হাসপাতালে রেখে দেওয়া হলো, আমার স্ত্রী বাড়ি ফিরে গেলেন।

১৫ মার্চ আমাকে জানালো হলো আমি করোনা পজিটিভ। আমার পরিস্থিতি দ্রুত খারাপের দিকে গড়াতে থাকে। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা দ্রুত পড়তে থাকে। আমি নিজে ডাক্তার বলে ওয়ার্ডের ডাক্তাররা আমাকে সব খুলে বলছিলেন। এক পর্যায়ে আইসিইউর একজন কনসালটেন্ট এসে বললেন, তোমার যে অবস্থা তাতে তোমাকে আইসিইউতে নিতে হবে। তোমাকে অতিরিক্ত অক্সিজেন দিতে হবে। তাতে কাজ না হলে ভেন্টিলেটরে নিতে হবে। আমি বেশ সাহসী একজন মানুষ। কিন্তু আইসিইউতে নেওয়ার কথা শুনে বেশ ভয় পেয়ে গেলাম। কারণ ডাক্তার হিসেবে আমি জানি সেখান থেকে বেঁচে ফেরার সম্ভাবনা ফিফটি-ফিফটি। আর ভেন্টিলেশনে নিলে সম্ভাবনা আরো কম। ডাক্তারদের বললাম, আইসিইউতে যাওয়ার আগে আমি আমার স্ত্রী এবং ছেলে মেয়ের সঙ্গে কথা বলতে চাই। তখন আমাকে জানালো হলো আমার স্ত্রীও হাসপাতালে পাশের ওয়ার্ডে। তাতে আরো ভয় পেয়ে গেলাম।

হাসপাতালের আইসিইউ : আমার এক ডাক্তার মেয়ে ১০ বছর আগে গাড়ি দুর্ঘটনায় মারা গেছে। আমি ভাবছিলাম এখন যদি আমাদের স্বামী-স্ত্রী দুজনেরই কিছু হয়ে যায় আমার বাকি দুই ছেলেমেয়ে তো অসহায় হয়ে পড়বে! ওদের কী হবে!

ওই সময়টায় আমার মনের অবস্থা আমি বোঝাতে পারব না। আমি তো জানি এই রোগের তো কোনো চিকিৎসা নেই। শুধু শরীরের ইমিউন শক্তির ওপর ভরসা করতে হবে।

আমি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলাম। ভারতীয় রেডক্রসে যোগ দিয়ে ত্রিপুরায় কাজ করেছি। হাসপাতালে শুয়ে আমার সেদিন মনে হচ্ছিল আমি যেন আরেক যুদ্ধের মুখোমুখি হলাম।

আইসিইউতে থাকার অভিজ্ঞতা

মনে আছে সেদিন মঙ্গলবার। আমাকে আইসিইউ ওয়ার্ডে নেওয়া হলো। ভীতিকর দৃশ্য। আমার চোখের সামনে কেউ ভেন্টিলেশনে। কেউ প্রচ- শ্বাসকষ্টে ভুগছে, তাদের অক্সিজেন দেওয়া হচ্ছে।

আমার সামনের বেডের রোগীর কার্ডিয়াক মনিটরিং স্ক্রিনের দিকে চোখ চলে গেলে দেখলাম তার পরিস্থিতি এমন যে যেকোনো সময় তার হার্ট বন্ধ হয়ে যাবে। দ্রুত নার্সরা এসে পর্দা দিয়ে ঘিরে তাকে ইলেকট্রিক শক দিল। আমাকে অতিমাত্রায় অক্সিজেন দিয়ে রাখা হচ্ছিল। ২৪ ঘণ্টা পর ডাক্তার বলল তোমার অগ্রগতি ভালো হচ্ছে। সৌভাগ্য যে ভেন্টিলেটরে যেতে হলো না। পর দিন বৃহস্পতিবার আমাকে ওয়ার্ডে নেওয়া হলো। আইসিইউ থেকে বের করে আনার সময় নার্স-ডাক্তাররা আমাকে বলছিল দেখ এই ওয়ার্ডে যারা আসে তাদের সবাই জীবিত বের হয়ে যেতে পারে না। তুমি যে যেতে পারছ তাতে আমরা খুবই খুশি। তোমাকে যেন আর এখানে না আসতে হয়। ১৪/১৫ দিন পর বাড়িতে এসে এখন সবাই সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং মেনটেইন করে রয়েছি।

 

"