করোনা নিয়ে কূটতর্ক-সংঘাত যুবক নিহত

প্রকাশ | ২২ মার্চ ২০২০, ০০:০০

রাজবাড়ী প্রতিনিধি

রাজবাড়ীর বরাট ইউনিয়নের ভবদিয়া এতিমখানা এলাকায় করোনাভাইরাস নিয়ে তর্ক-বিতর্কের জের ধরে লাবলু (৪০) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আহত হয়েছেন পাঁচজন। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার সকাল ৭টায় এ ঘটনা ঘটে। আটক করা হলো গাফার ফকির (৫০), মঞ্জু ফকির (৬০), খালেক ফকির (৫৫), সালেক ফকির ও গাফারের স্ত্রী। নিহত লাবলু মোল্লা পূর্ব ভবদিয়া গ্রামের মৃত সেকেন মোল্লার ছেলে। আহত পাঁচজনের মধ্যে বাবলু মোল্লা ও খালেক ফকিরসহ পাঁচজন রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার ভবদিয়া গ্রামের গাফার ফকির ও আবদুল মান্নান মোল্লাসহ কয়েকজন একটি দোকানে আড্ডা দিচ্ছিল। ওই সময়ে করোনাভাইরাস নিয়ে তারা কূটতর্কে জড়িয়ে পরে। বিষয়টি নিয়ে গত শুক্রবার রাতেই আপসের জন্য রাজি হয়। কিন্তু গতকাল শনিবার বিচারের আগেই সকাল ৭টায় মান্নানের ভাই লাভলু কাজের জন্য মাঠে যাচ্ছিল এমন সময়ে গাফার ফকির ও তার লোকজন লাভলুকে পিটিয়ে হত্যা করে। এ সময় লাভলুর আরো এক ভাই বাবলু এগিয়ে আসলে তাকেও পিটিয়ে আহত করে।

বরাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক আরজাদ হোসেন আরজু জানান, করোনাভাইরাস নিয়ে বিতর্কের জের ধরে সকালে দুই পক্ষ খালেক ও মান্নান মোল্লার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় লাবলুর মাথায় লাঠির আঘাত লাগে। মারাত্মক আহত অবস্থায় লাবলু মোল্লাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক লাবলু মোল্লাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. নাহিদা সুলতানা বলেন, লাবুল মোল্লার মাথায় গুরুতর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। হাসপাতালে আনার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় অন্তত পাঁচ থেকে সাতজন চিকিৎসা নিয়েছেন। রাজবাড়ী সদর থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ছয়জনকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 

"