লাকসামে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

কৃষি উন্নয়ন মানেই দেশের উন্নয়ন

প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০

মনোহরগঞ্জ (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে কৃষির গুরুত্ব অপরিসীম। অযথা ও অপ্রয়োজনীয় কীটনাশক ব্যবহারের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। কৃষি উন্নয়ন মানেই সমগ্র দেশের উন্নয়ন। কৃষি খাতে সরকারের উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে কৃষকদের এগিয়ে আসতে হবে।

গতকাল শুক্রবার কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের নোয়াপাড়া-ছনগাঁও গ্রামে যৌথ কৃষি খামার কমিউনিটি এন্টারপ্রাইজের মাধ্যমে খন্ড খন্ড জমিকে একত্র করে সমকালীন চাষাবাদ ও কৃষি যান্ত্রিকীকরণের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা বলেন। মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ডিজিটাল পদ্ধতিতে চাষাবাদ করলে কৃষক লাভবান হবেন। কৃষিকাজের মাধ্যমে কৃষক যাতে অধিক পরিমাণে লাভবান হতে পারেন, সেজন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কৃষিকে যান্ত্রিকীকরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ছোট ছোট কৃষিজমি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ করলে অধিক পরিমাণে ভেজাল ও বিষমুক্ত ফসল উৎপাদন সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, যান্ত্রিকীকরণের চ্যালেঞ্জসমূহ মোকাবিলা করে আধুনিক চাষব্যবস্থা প্রবর্তনের মডেল উদ্ভাবনের লক্ষ্যে এ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। এই পদ্ধতিতে খন্ড খন্ড জমিকে ডিজিটাল ভূমি জরিপের মাধ্যমে আইল তোলে দিয়ে বৃহদাকার জমিতে একই/বিভিন্ন জাতের ফসলের চাষাবাদ ও শস্য উৎপাদন করা হচ্ছে। আধুনিক এ পদ্ধতিতে কৃষকদের নিয়ে গঠিত একটি ‘সমাজভিত্তিক এন্টারপ্রাইজ’-এর মাধ্যমে চাষাবাদ পরিচালনা করা হচ্ছে। পরে মন্ত্রী ফিতা কেটে উক্ত প্রকল্পের উদ্বোধন করেন।

বার্ড, কুমিল্লা বাস্তবায়নাধীন এ প্রকল্পের আওতায় ডিজিটাল ভূমি জরিপের মাধ্যমে লাকসাম উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের নোয়াপাড়া ও ছনগাঁও গ্রামের যৌথ খামার প্রতিষ্ঠায় আগ্রহী ৭৫ জন কৃষকের ৪০ একর কৃষিজমির সীমানা নির্ধারণ করা হয়েছে। নির্বাচিত ৪০ একর কৃষিজমির ১৪১টি প্লটের আইল উঠিয়ে দিয়ে একত্র করে চলমান বোরো মৌসুমে ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে ধান রোপণ করা হচ্ছে। গত ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে বার্ড, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয়, লাকসাম এবং নোয়াপাড়া-ছনগাঁও যৌথ কৃষি খামার কমিউনিটি এন্টারপ্রাইজের মধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়নে একটি বহুপক্ষীয়

চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তির আওতায় বাস্তবায়নকারী কর্তৃপক্ষ বার্ড কৃষকদের উচ্চফলনশীল ধানবীজ, কৃষিযন্ত্র সহায়তা এবং যৌথ খামার ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও কারিগরি সহায়তা করছে। যৌথ খামারের জমির মালিকরা কমিউনিটি এন্টারপ্রাইজ ব্যবস্থার মাধ্যমে কৃষিকাজ পরিচালনা করছেন এবং প্রকল্প বাস্তবায়নে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা কৃষি অফিস সার্বিক সহযোগিতা করছে।

স্থানীয় চেয়ারম্যান ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব মো. রেজাউল আহসান, কুমিল্লা বার্ডের মহাপরিচালক মো. শাহজাহান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কুমিল্লা উপপরিচালক কৃষিবিদ সুরজিত চন্দ্র দত্ত, লাকসাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. ইউনুস ভূঁইয়া, লাকসাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ কে এম সাইফুল আলম, মনোহরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল রানা, লাকসাম পৌর মেয়র অধ্যাপক মো. আবুল খায়ের, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী প্রমুখ।

 

"