সিরাজগঞ্জে বিজয় র‌্যালিতে বিএনপির হামলায় আহত ৩০

প্রকাশ : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজ চত্বরে গতকাল রোববার দুপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আবক্ষ ম্যুরাল নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে শিক্ষার্থী ও মুক্তিযোদ্ধাদের এক বিশাল বিজয় র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি সাড়া শহর প্রদক্ষিণের লক্ষ্যে এবি রোডে নবদ্বীপ পুলে পৌঁছালে ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দলসহ বিএনপির সন্ত্রাসীরা এই র‌্যালিতে অতর্কিত ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও হামলা চালায়। তাদের এই হামলায় ৩০ জন আহত হন। আহতদের ঢাকাসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা যায়। এই আক্রমণ প্রতিহত করতে পুলিশ টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছুড়ে। সহকারী পুলিশ সুপার ইফসুফ খান জানান, ঘটনায় পাঁচজন পুলিশ আহত হয়েছে। এই ন্যক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদে কলেজ চত্বরে এক সাংবাদিক সম্মেলন হয়। সম্মেলনে কলেজ অধ্যক্ষ টি এম সোহেল বলেন, এটা কোনো রাজনৈতিক দলের অনুষ্ঠান নয়। বিজয়ের মাসে মুক্তিযোদ্ধা ও শিক্ষার্থীদের এই র‌্যালিতে আক্রমণ শুধু শিক্ষার্থী ও মুক্তিযোদ্ধার ওপর নয়, এ আক্রমণ স্বাধীনতাবিরোধী এবং রাজাকার ও আলবদরদের উত্তরসূরিদের আক্রমণ। এ ঘটনার জড়িতদের গ্রেফতার ও দ্রুত আইনে বিচারে ও দাবি জানান তিনি।

সাংবাদিক সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধা ও শিক্ষার্থীদের এই শান্তি র‌্যালিতে আক্রমণের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন ও দোষিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ বিশ্বাস। স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না বলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর নির্দেশে ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল এই আক্রমণ করেছে। প্রয়োজন বোধে আমরা নামও বলে দিতে পারি। এই আক্রমণ ছিল ৭১ এর পরাজিত শক্তি ও তাদের দোসরদের আক্রমণের মতো। অতিসত্বর হামলাকারীদের গ্রেফতার, ও আইনের আওতায় এনে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানায় তিনি। বিজয়ের মাসে এ জাতীয় ঘটনায় সিরাজগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, শিক্ষার্থী, অভিভবাকসহ সচেতন মহলের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়েছে। পুলিশ গতকাল বিকালে জানায়, এ ঘটনায় মামলা করার প্রক্রিয়া চলছে।

 

 

"