স্মার্টটিভিতে তথ্য পাচারের ঝুঁকি

প্রকাশ : ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

সাইবার নিরাপত্তা প্রশ্নে স্মার্টটিভি মালিকদের সতর্ক করা শুরু করেছে এফবিআই। সতর্কবার্তায় মার্কিন ফেডারেল সংস্থাটি বলছে, আড়িপাতা এবং ঘরের অন্যান্য স্মার্ট প্রযুক্তি পণ্যের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার কাজে ব্যবহার করা হতে পারে স্মার্টটিভিকে। আদতে স্মার্টটিভিও কিন্তু ইন্টারনেট চালিত একটি প্রযুক্তি পণ্য। অন্যান্য ইন্টারনেট চালিত ডিভাইসের মতো এটিরও রয়েছে নানা সীমাবদ্ধতা। এফবিআইয়ের তথ্য অনুযায়ী, ওই সীমাবদ্ধতার সুযোগ নিতে পারে স্মার্টটিভি নির্মাতা, অ্যাপ ডেভেলপার বা কোনো হ্যাকার। সম্প্রতি এফবিআইয়ের পোর্টল্যান্ড ফিল্ড অফিস থেকে জারি করা হয়েছে সতর্কবার্তাটি, এ সম্পর্কিত এক নোটিশও ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে তাদের ওয়েবসাইটে। খবর প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট টেকক্রাঞ্চের।

স্মার্টটিভির মাধ্যমে যে শুধু স্ট্রিম করা যায়, তা নয়। অনেক স্মার্টটিভিতে রয়েছে ক্যামেরা এবং মাইক্রোফোন সুবিধা। এফবিআই বলছে, খুব সহজেই নিয়ন্ত্রণ নেওয়া সম্ভব সেগুলোর। এ প্রসঙ্গে লেখা সতর্কতা নোটিশে এফবিআই বলছে, ‘টিভি নির্মাতা বা অ্যাপ ডেভেলপাররা আড়িপাতার কাজে আপনার স্মার্টটিভিকে ব্যবহার করতে পারে। এ ঝুঁকি বাদেও আশঙ্কা রয়েছে গেটওয়ে হিসেবে আপনার স্মার্টটিভিটি ব্যবহার করার। ওভাবে হ্যাকাররা খুব সহজেই আপনার কম্পিউটারে প্রবেশাধিকার পেতে পারে। আপনার অনিরাপদ টিভিটি হ্যাকারকে রাউটারে প্রবেশাধিকার দিয়ে দিতে পারে।’

স্মার্টটিভিতে হ্যাকারদের হামলার খবর খুব একটা শোনা না গেলেও এ রকম ঘটনা যে একেবারেই ঘটেনি তা নয়। টেকক্রাঞ্চ উল্লেখ করেছে, এ বছরের শুরুতেই হ্যাকাররা দেখিয়ে দিয়েছে গুগলের ক্রোমকাস্ট স্ট্রিমিং স্টিক হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে হাজারো ব্যক্তিকে যেকোনো ভিডিও দেখানো সম্ভব।

আর বিগত কয়েক বছরে স্মার্টটিভিতে হামলা চালানোর জন্য যে উপায়গুলো তৈরি করা হয়েছে, সেগুলোর সঙ্গে সরাসরি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ জড়িত। অন্তত সেরকম তথ্যই জানাচ্ছে উইকিলিকসের মাধ্যমে ফাঁস হওয়া একাধিক নথি।

স্মার্টটিভির মাধ্যমে আড়িপাতার দৌড়ে পিছিয়ে নেই নির্মাতারাও। বিজ্ঞাপনের স্বার্থে গোপনে টিভি মালিকদের ডেটা ট্র্যাক করার মতো ঘটনারও রেকর্ড রয়েছে। এ বছরের শুরুর দিকে ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছিল, বিজ্ঞাপন ও সেবার মানের স্বার্থে নিজেদের স্মার্টটিভির দর্শক ডেটা ট্র্যাক করছে দক্ষিণ কোরিয়ান ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট স্যামসাং ও দক্ষিণ কোরিয়ান বহুজাগতিক প্রতিষ্ঠান এলজি। এভাবে ডেটা ট্র্যাক করার জন্য আবার জরিমানাও দিয়েছে এক নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। কয়েক বছর আগে ২ কোটি ২০ লাখ ডলার জরিমানা দিতে হয়েছিল স্মার্টটিভি নির্মাতা ভিজিও’কে।

সতর্কবার্তার পাশাপাশি স্মার্টটিভির সুরক্ষা নিশ্চিত করতে কিছু উপায়ও বাতলেছে এফবিআই। সেসব পরামর্শের মধ্যে রয়েছে, অব্যবহৃত স্মার্টটিভির ক্যামেরা কালো টেপ দিয়ে বন্ধ রাখা, স্মার্টটিভির ক্ষমতা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হতে গোপনতা নীতি পড়া এবং সর্বশেষ প্যাঁচ ও ফিক্সের মাধ্যমে টিভিকে আপ-টু-ডেট রাখা। তবে টেকক্রাঞ্চ বলছে ভিন্ন কথা। প্রযুক্তিবিষয়ক সাইটটি ওই মন্তব্য করেছে, ‘সবচেয়ে নিরাপদ স্মার্টটিভি হয়তো সেটিই, যেটিকে কখনো ইন্টারনেটের সঙ্গে সংযুক্ত করা হয়নি।’

"