বিআরটিএ বগুড়ায় উপচে পড়া ভিড়

প্রকাশ : ০৮ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০

বগুড়া প্রতিনিধি

নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর করার পর বৈধ কাগজপত্র পেতে উপচেপড়া ভিড় এখন বিআরটিএ বগুড়া অফিসে। সেখানে শত শত মানুষ ভীড় করছে ড্রাইভিং লাইসেন্স আর রেজিস্ট্রেশনের জন্য। অফিসের পাশেই ব্যাংকে লাইন ধরে মানুষ টাকা জমা দিচ্ছে। প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষ আসছে বৈধ কাগজপত্রের জন্য। এতে ব্যস্ততা বেড়েছে প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। জানা গেছে, গত শুক্রবার থেকে কার্যকর হয়েছে বহুল আলোচিত সড়ক পরিবহন আইন। এই আইনে সড়কে নিয়ম ভঙ্গে জরিমানা বেড়েছে হাজার গুণ পর্যন্ত। ড্রাইভিং লাইসেন্স কিংবা ফিটনেস সনদ না থাকলে সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান রয়েছে নতুন আইনে। হতে পারে ছয় মাস পর্যন্ত কারাদন্ড। আগে এ অপরাধের জরিমানা ছিল ৫০০ টাকা। গাড়ির রেজিস্ট্রেশন না থাকলে জরিমানা দিতে হবে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত। গাড়ির ট্যাক্স টোকেন হালনাগাদ না থাকলে জরিমানা ১০ হাজার টাকা।

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) বগুড়ার সহকারী পরিচালক সৈয়দ মেজবাহ উদ্দিন জানান, নতুন সড়ক পরিবহন আইনে জরিমানা বেড়ে যাওয়ায় ড্রাইভিং লাইসেন্স ও রেজিস্ট্রেশন পেতে মানুষের ভিড় বেড়েছে। ব্যাংকে লাইন ধরে সবাই টাকা জমা দিচ্ছে।

বিআরটিএ বগুড়া অফিসের কর্মকর্তা সেলিম হোসেন জানান, অফিসে এসে হাতে ফরম পূরণ করে অথবা ঘরে বসেও অনলাইনে আবেদন করা যাচ্ছে। বগুড়া অফিসে আবেদনের মধ্যে প্রায় ৪০ ভাগ আবেদন পড়েছে অনলাইনে। সারিয়াকান্দির মথুরপাড়া থেকে এসেছেন স্কুলশিক্ষক লাফিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ১ বছর আগে মোটরসাইকেল নিয়েছি। কিন্তু অলসতার কারণে এত দিন লাইসেন্স করা হয়নি। জরিমানার হাত থেকে বাঁচতে লাইসেন্স করা এখন জরুরি।

এদিকে নতুন আইন হওয়ায় লাইসেন্স ও কাগজপত্র হালনাগাদের পাশাপাশি হেলমেট ক্রয় করতে দেখা গেছে চালকদের। প্রাইভেট কারগুলোতে চালকরা সিটবেল্ট লাগিয়ে চলাচল করছে।

ট্রাফিক ইন্সপেক্টর রেজাউল করিম খান রেজা জানান, নতুন আইন হওয়ায় চালকরা বৈধ কাগজপত্র সংগ্রহ করছে। রাস্তায় মোটরসাইকেল অনেক কমে গেছে।

"