শিখ পুণ্যার্থীদের জন্য করিডর খুলে দেবে পাকিস্তান

প্রকাশ : ১৩ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা থেকে

৮ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজে উদ্বোধন করবেন করতারপুর করিডর, জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হরসিমরত কউর বাদল। প্রথমে ঠিক হয়েছিল ১১ নভেম্বর করতারপুর করিডরের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হবে। ৩১ আগস্টের মধ্যেই নির্মাণকাজ যেটুকু বাকি ছিল, তা সম্পূর্ণ হয়ে গেছে। সূত্রের খবর, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, অর্থমন্ত্রী আবদুল হাফিজ শাইখসহ পাকিস্তানের উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তারা উদ্বোধনের দিন করতারপুরে উপস্থিত থাকবেন। এর আগে পাকিস্তান সরকারিভাবে ঘোষণা করেছিল, গুরু নানকের ৫৫০তম জন্মদিন উপলক্ষে শিখ পুণ্যার্থীদের কথা ভেবে তারা করতারপুর করিডর খুলে দিতে তৈরি। পাঞ্জাবের মন্ত্রী সুখজিন্দর সিং রানধাওয়া জানিয়েছেন, তিব্বতি ধর্মগুরু দলাই লামাকেও করতারপুর করিডর উদ্বোধনে আমন্ত্রণ জানানো হবে। তিনি জানিয়েছেন, ভ্যাটিকানের পোপ এবং দিল্লির শাহি ইমাম ছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার জন্যে আমন্ত্রণ জানানো হবে আরো দেশ-বিদেশের ধর্মীয় নেতাদের। তবে আগেই ভারতের পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং জানিয়েছিলেন যে তিনি করতারপুর করিডরের উদ্বোধনে হাজির থাকবেন না।

এদিকে গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটেছে শ্রীনগরের লালচকে। শ্রীনগরের হরি সিং হাইস্ট্রিটে ওই হামলা চালানো হয়। এ ঘটনায় পাঁচ স্থানীয় বাসিন্দা গুরুতর আহত হয়েছেন বলে পুলিশ সূত্রে খবর। গ্রেনেড হামলার পর হরিসিং হাইস্ট্রিটে নিরাপত্তা আরো বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। হামলাকারীদের খোঁজ চালাচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী। প্রসঙ্গত, চলতি মাসেই অনন্তনাগে ডেপুটি পুলিশ কমিশনারের অফিসের সামনেও গ্রেনেড হামলা করা হয়েছিল। তবে হামলায় হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। এদিকে কাশ্মীরে সব স্বাভাবিক বলে কেন্দ্রের তরফে যাই দাবি করা হোক না কেন যতই যত দিন যাচ্ছে উত্তপ্ত হচ্ছে উপত্যকা। সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত কেন্দ্রীয় সরকারের এক নোট অনুযায়ী, ৩৭০ ধারা বিলোপের পর থেকে উপত্যকায় ৮৯ জন জন আধাসামরিক বাহিনীর জওয়ানসহ শতাধিক নিরাপত্তারক্ষী আহত হয়েছেন। ঘটেছে তিনশ’র বেশি পাথর ছোঁড়ার ঘটনা।

 

 

"