বাবা-মায়ের খোঁজে জার্মান থেকে বাংলাদেশে

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০

মহানগর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

১৯৭৬ সালের কথা। জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে রাস্তার কুড়িয়ে পাওয়া পাঁচ দিন বয়সি এক মেয়ে শিশুকে এতিমখানায় নিয়ে যাচ্ছিলেন কয়েকজন গ্রামবাসী। সেই সময় শিশুদের অধিকার নিয়ে কাজ করা এক কানাডিয়ান দম্পতি যাচ্ছিলেন সেই পথ ধরে। শিশুটিকে ওই অবস্থায় দেখে তাকে দত্তক নেন তারা। শিশুটিকে নিয়ে চলে যান কানাডায়। পরে স্থায়ীভাবে জার্মানিতে বসবাস শুরু করেন ওই দম্পতি। এরপর চলে গেছে ৪১ বছর। সেই শিশুটি এখন স্যালিনা ম্যাকডোনাল্ড। এক ছেলে আর এক মেয়ের জননী। পালক বাবার কাছে ঠিকানা নিয়ে স্যালিনা বাংলাদেশে এসেছেন, শেকড়ের খোঁজে। গত বুধবার রাতে ময়মনসিংহ প্রেস ক্লাবে এসে এমন তথ্য জানান স্যালিনা। স্যালিনা ম্যাকডোনাল্ড বলেন, ‘গত ৪ অক্টোবর গিয়েছিলাম জামালপুরের সরিষাবাড়ী। গিয়েছিলাম গাইতাপাড়া গ্রামেও। কিন্তু তার বাবা-মার দেখা আর পাননি।’

স্যালিনা জানান, কিছুটা বড় হওয়ার পরই পালক বাবা তাকে জানায়, তার বাড়ি বাংলাদেশের জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে। স্যালিনার এখন ২২ বছর বয়সি এক মেয়ে ও ১৫ বছর বয়সি এক মেয়ে আছে। কিছুদিন আগে গুগলে সার্চ দিয়ে জামালপুরের সরিষাবাড়ীর অবস্থান নির্ণয় করেন। এরপর স্যালিনা তার জার্মান বন্ধু মার্ক শিয়েরারকে নিয়ে বাংলাদেশে আসেন দুই সপ্তাহ আগে। বাংলাদেশে এসে পরিচয় হয় ময়মনসিংহের দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে।

দেলোয়ার হোসেনই তাদের জামালপুরের সরিষাবাড়ী নিয়ে যান। সেখানে গিয়ে গাইতাপাড়া গ্রাম খুঁজে পেলেও নিজের বাবা, মা’র সন্ধান পাননি স্যালিনা। তিনি জানান, আরো দুই সপ্তাহ বাংলাদেশ থাকবেন, খুঁজবেন বাবা-মাকে। তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ আমার খুব ভালো লেগেছে। এখানকার মানুষজন অনেক আন্তরিক।’

 

"