গোপালগঞ্জে হাইশুর বৃদ্ধাশ্রম

জীবন সায়াহ্নের দিনগুলো

প্রকাশ : ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০

দুলাল বিশ্বাস, গোপালগঞ্জ

‘তৃষ্ণার্তকে জল দান, ক্ষুধার্তকে অন্ন; আশ্রয়হীনকে আশ্রয় দান, ইহাই মানব ধর্ম’Ñ এমন একটি সেøাগান নিয়ে ১৯৯৬ সালে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার রাহুথর ইউনিয়নের হাইশুর গ্রামে স্থাপিত হয় হাইশুর বৃদ্ধাশ্রম। সেই থেকে নানা টানাপড়নের মধ্যে চললেও বৃদ্ধাশ্রমটি এখন ওই এলাকার বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের শেষ বয়সের ঠিকানা ও আশ্রয় হয়ে উঠেছে। চরম অনিশ্চয়তা নিয়ে যারাই এ বৃদ্ধাশ্রমে আশ্রয় নিয়েছেন, তারাও খুঁজে পেয়েছেন তাদের শেষ বয়সের নিরাপদ ও নিশ্চিত আবাস। বৃদ্ধাশ্রমের রয়েছে ২৪০ জন খাদ্য প্রদানকারী সদস্য। তাদের দয়ায় বেঁচে রয়েছে বৃদ্ধাশ্রমটি। জীবন সায়াহ্নের বুড়া-বুড়িরা পাচ্ছেন সস্তি ও শান্তি।

মানব সেবাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বিশ্বমানব সেবা সংঘ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার উদ্যোগে এ বৃদ্ধাশ্রমটির কার্যক্রম শুরু হয়। পরে ১৯৯৯ সালে জেলার সমাজসেবা অধিদফতরের অধীনে এটি নিবন্ধিত হয়। বর্তমানে এখানে বৃদ্ধ-বৃদ্ধা রয়েছেন ২১ জন; যাদের ৮ জন মানসিক প্রতিবন্ধী, ২ জন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী এবং ৫ জন রয়েছেন স্রোকের রোগী। এদের মধ্যে রয়েছেন অসহায়, নিঃসন্তান, বিধবা ও স্বামী-পরিত্যক্তা। তাদের থাকা-খাওয়া, সেবা-শুশ্রƒষাম চিকিৎসাসহ যাবতীয় প্রয়োজন মেটাতে প্রতিনিয়ত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বৃদ্ধাশ্রমের সেবক আশুতোষ বিশ্বাস (আশু)। বৃদ্ধাশ্রমের বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের খাবার জোগাতে তিনি বাদ্যযন্ত্র নিয়ে পথে পথে গান-বাজনা করেও ভিক্ষা করেন। প্রতিদিন সকালে বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের ঘুম ভাঙানো থেকে বাজার-ঘাট, খাওয়া-দাওয়াসহ রাতে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত প্রায় সব কাজেই তাকে সহযোগিতা করেন তার সহধর্মিণী মনিকা রানী বোস। তিনি একটি প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক। তিনিও তার মাসিক বেতনের বড় একটি অংশ তুলে দেন স্বামীর হাতে, ওই বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের প্রয়োজন মেটাতে।

২০০১-এর শুরুতে চান্দার বিলের পাড়ে ফুলমতি নামে এক বৃদ্ধাকে পড়ে থাকতে দেখে দুই পথচারী তাকে নিয়ে আসেন হাইশুর গ্রামে এই বিশ্ব মানবসেবা সংঘের অফিসে। সেখানে চিকিৎসা পেয়ে তিনি সুস্থ হন ঠিকই; কিন্তু আপনজনদের কাছে আর ফিরে যেতে রাজি হননি। সেই থেকেই তিনি এ বৃদ্ধাশ্রমে রয়েছেন এবং তিনিই হলেন এ বৃদ্ধাশ্রমের প্রথম সদস্য। এরপর বিভিন্ন সময় সমাজের অবহেলিত, সহায়-সম্বলহীন অসহায় বহু বৃদ্ধ-বৃদ্ধা এসেছেন এই বৃদ্ধাশ্রমে। এ পর্যন্ত হিন্দু-মুসলিমসহ মোট ৪১ জন বৃদ্ধ-বৃদ্ধা এ বৃদ্ধাশ্রমে এসেছেন; যাদের ১৯ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। আশুতোষ সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে আশপাশের বিভিন্ন শ্মশানে তাদের সৎকার করেছেন। যারা এখনো আছেন, তারা এ বৃদ্ধাশ্রমটিকে মনে করেন এটাই তাদের শেষ বয়সের নিরাপদ ঠিকানা। কিন্তু শুধু খাদ্য-প্রদানকারী সদস্যদের সহযোগিতা দিয়ে তাদের আহার, পরিধেয় বস্ত্রাদি ও চিকিৎসাসহ দৈনন্দিন প্রয়োজন মেটানো ভেলায় করে সাগর পাড়ি দেওয়ার মতোই কঠিন হয়ে পড়েছে।

এ বৃদ্ধাশ্রমে প্রায় শুরু থেকেই রয়েছেন ৯৭ বছরের রত্তনা বসু। তারও তিন কুলে কেউ নেই। দিনের অধিকাংশ সময় তিনি হুইলচেয়ারেই কাটান। ভাঙা কণ্ঠে তিনি বলেন, তিনি এখন আর হাঁটতে পারেন না। তার দৈনন্দিন ক্রিয়াকর্মে আশু ছাড়াও আশ্রমের অন্যরা তাকে অনেক সহযোগিতা করেন। এখন তার আর ভালো লাগে না। চলে যাওয়ার অপেক্ষায় দিন গুনছেন।

বৃদ্ধাশ্রমে রয়েছেন গোপালগঞ্জের একসময়ের কৃতী ফুটবলার বাবু বিশ্বাস (৫৮)। খুব ছোট করে দু-একটি কথা বলতে পারেন। স্রোকের কারণে তার ডানপাশ অনেকটাই অবশ। ৯ মাস ধরে তিনি সেখানে আছেন। বিগত ৭ মাস ধরে আছেন গোপালগঞ্জ শহরের বটতলা এলাকার ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান ইসমাইল সিকদার (৫৫)। সাংবাদিক দেখে তিনি হাউমাউ করে কেঁদে বলেন, আমার পরিবারের লোকজন আমাকে সবকিছু থেকে বঞ্চিত করেছে। ঠিকমতো খেতেও দিত না। আশু আমার কেউ না; কিন্তু ও আমাকে রাস্তা থেকে এনে এখানে আশ্রয় দিয়েছেন। এখানে আমি ভালো আছি। এখানে দেড় বছর ধরে আছেন বাগেরহাটের চালনা এলাকার স্বজনহীন কৃষ্ণপদ ম-ল (৭০)। ৪ বছর ধরে আছেন হরিদাসী (৬৮), চপলা বিশ্বাস (৬৫) ও মঙ্গল কীর্ত্তণীয়াসহ (৭৮) আরো কয়েকজন। তাদের প্রত্যেকেরই জীবনে কিছু হৃদয়-বিদারক ঘটনা রয়েছে। একসময় অসহায় সহায়-সম্বলহীনভাবেই তারা এ বৃদ্ধাশ্রমে এসে আশ্রয় নিয়েছেন।

বৃদ্ধাশ্রমের সেবক আশুতোষ বিশ্বাস জানিয়েছেন, দিনে দিনে বৃদ্ধাশ্রমে বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের সংখ্যা বাড়ছে। বসবাসের ঘর-বারান্দা থেকে শুরু করে কোনো কিছুই পর্যাপ্ত নয়। অর্থাভাবে বৃদ্ধাশ্রমের অনেক প্রয়োজনই মেটানো সম্ভব হচ্ছে না। এখানে ছোট্ট একটি মন্দির রয়েছে; যেখানে হিন্দু সম্প্রদায়ের বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা সকাল-সন্ধ্যায় প্রার্থনা করতে পারছেন; কিন্তু এখনো একটি নামাজ-কক্ষ তৈরি করা সম্ভব হয়নি; যেখানে মুসলিম বৃদ্ধরা নামাজ পড়তে পারেন। বৃদ্ধাশ্রমের বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের সহযোগিতার জন্য তিনি জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও ইউনিয়ন পরিষদে বহুবার ধর্না দিয়েছেন, আকুতি জানিয়েছেন, আবেদন জানিয়েছেন। কিন্তু সরকারি বা বেসরকারি কোনো সাহায্য-সহযোগিতা এখনো তিনি পাননি। সমাজসেবা অধিদফতরের নিবন্ধন করা হলেও বৃদ্ধাশ্রম খাতে তাদের কাছে কোনো ফান্ড নেই। বছরে এক দিনের খাদ্য প্রদানকারী যে ২৪০ জন সদস্য রয়েছেন, তাদের কেউ কেউ বছরে একাধিক দিনের খাদ্যের ব্যবস্থা করেন। তাদের দান করা বস্ত্রাদি দিয়েই বৃদ্ধাশ্রমের বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের পরিধেয় বস্ত্রের ব্যবস্থা করা হয়। তারপরও বছরে বেশ কিছু দিন তাকে ভিক্ষা করতে বের হতে হয়। মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে এবং পথে-ঘাটে গান-বাজনা করে তিনি যা পান তাই দিয়ে বছরের বাকি দিনগুলো কোনো রকমে চালিয়ে নিচ্ছেন। তবে, গত রোজার ঈদের সময় কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এস এম মাঈনউদ্দিন ভিখারিদের জন্য খাদ্য প্রকল্প থেকে কিছু চাল, ডাল, লবণ, টোস্ট-বিস্কুটের ৫০টি প্যাকেট দান করেছিলেন বলেও তিনি জানান।

তিনি আরো জানান, কাশিয়ানীর ঝাটিগ্রামের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. মানব রঞ্জন ঘোষ, যিনি বেশির ভাগ সময় রাশিয়াতে অবস্থান করেন, তিনি যখন দেশে থাকেন, তখন প্রতি মাসেই একবার অন্তত এই বৃদ্ধাশ্রমে আসেন এবং বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দেন। এ ছাড়া গোপালগঞ্জের সিভিল-সার্জন ডা. তরুণ ম-ল মাঝেমধ্যে আসেন এবং সম্ভবমতো চিকিৎসাসেবা দিয়ে যান। এ ছাড়া বৃদ্ধাশ্রমের প্রতিবেশী রয়েছেন গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তপন মজুমদার। তিনিও সেখানে মাঝেমধ্যে যান। বৃদ্ধাশ্রমের অসুস্থ বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের ওষুধপত্রের জোগান দেন ডা. নির্মল কান্তি বিশ্বাস। তিনি মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভদের কাছ থেকে যেসব স্যাম্পল পান, তা থেকেই তিনি এ ওষুধের ব্যবস্থা করেন। এসব সাহায্য-সহযোগিতা দিয়েই বর্তমানে চলছে হাইশুর বৃদ্ধাশ্রম। প্রতি বছর শীতের সময় এ বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের প্রচুর শীতবস্ত্র দরকার হয়। কিন্তু বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্টে আবেদন করে কোনো সাহায্য মিলেনি। তারপরও তিনি এ বৃদ্ধাশ্রমটিকে বাঁচিয়ে রাখতে সব চেষ্টা করে যাচ্ছেন। আমি চাই, এ বৃদ্ধাশ্রমটি অটুট থাকুক। এখানে আশ্রিত বৃদ্ধ-বৃদ্ধারাও শেষ বয়সে বেঁচে থাকুক পরম নির্ভরতায়। আনন্দে কাটুক সারাক্ষণ। আমরা তাদের পাশে থাকতে চাই। তাদের সেবা দিতে চাই।

 

"