গৃহবধূর ওপর বর্বরতা

* কেটে দেওয়া হয়েছে চুল * গলায় জুতার মালা

প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০

রংপুর ব্যুরো

রংপুরে এক গৃহবধূকে গাছে বেঁধে গরম খুন্তির ছ্যাকা, চুল কর্তন ও গলায় জুতার মালা পরিয়ে দিয়ে গ্রাম ঘুড়িয়েছেন অভিযুক্তরা। গতকাল শুক্রবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করে রংপুরের গঙ্গাচড়া থানার ওসি (তদন্ত) সুশান্ত কুমার সরকার বলেন, এ ঘটনার অভিযুক্ত দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়াও অপর আসামিদেরও গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন আবদুল মোত্তালেব ও আবদুল মতিন। তারা উপজেলার বেতগাড়ী ইউপির পুঁটিমারী গ্রামের বাসিন্দা।

স্থানীয়রা জানান, বিয়ে ভেঙে দেওয়ার মিথ্যা অপবাদে ওই গৃহবধূর মাথার চুল কেটে দেন অভিুক্তরা। তারপর গরম খুন্তি দিয়ে শরীরে ছ্যাকা ও গলায় জুতার মালা পরিয়ে দিয়ে গ্রাম ঘুরানোর পর গাছে বেঁধে রাখা হয়। এ ঘটনার পরদিন বৃস্পতিবার সন্ধ্যায় মামলা করেন নির্যাতিতার মেয়ের জামাই মোকলেছ মিয়া। মামলার বর্ণনায় প্রকাশ, ৪০ দিন আগে মনিকা বেগমের দেবর আবদুল মতিনের মেয়ে মৌসুমীর বিয়ে হয় রংপুর সদর উপজেলার পাগলাপীর এলাকায়। বিয়ের পর তার স্বামী বিভিন্ন সূত্রে জানতে পারে মৌসুমীর সঙ্গে অনেকের অবৈধ সম্পর্ক ছিল। এ অপবাদে মৌসুমীকে ২১ জুলাই তালাক দেয়। এ কারণেই সন্দেহ করা হয় মনিকাকে। ঘটনার লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ও বেতগাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান লিপটন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নির্যাতিতা বধূ গঙ্গাচড়া উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন আছেন।

 

 

"