ব্রিগেড জনসভায় বিজেপিকে এক হাত নিলেন মমতা

প্রকাশ : ২২ জুলাই ২০১৯, ০০:০০

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা থেকে

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির কাছে ধাক্কা খাওয়ার পর ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে দলের শহীদ দিবসের অনুষ্ঠান একুশের মঞ্চ থেকে দলীয় কর্মীদের কী বার্তা দেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা ব্যানার্জি, সেদিকে নজর ছিল সবার। লড়াইয়ের ময়দানে দলকে ঘুরে দাঁড় করানোর লক্ষ্যে একুশের মঞ্চ থেকে বুথ স্তরের কর্মীদের কাজ সুনির্দিষ্ট করে দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী। এদিকে বুথ স্তরে সংগঠন মজবুত করতে কর্মীদের লক্ষ্য বেঁধে দেওয়ার সাংগঠনিক কৌশল আছে বিজেপিতেও। কলকাতার ব্রিগেড ময়দানের জনসভা থেকে এবারও তৃণমূল নেত্রী বিজেপি এবং সিপিএমকে কড়া সমালোচনা করেছেন। তবে কলকাতা বিজিপির তরফ থেকে মমতাকে উদ্দেশ্য করে বলা হয়েছে, জনসভায় লোক কম হয়েছে, এটাও কী বিজেপির দোষ?

এবার লোকসভা ভোটের আগে দফায় দফায় বাংলায় এসে বুথ স্তরের কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন অমিত শাহ। যার ফল ফলেছে লোকসভা ভোটের ফলে। তাই একুশে বাংলা জয়ের লক্ষ্যে কি এবার সেই পথে হাঁটছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জি। সচিত্র পরিচয়পত্রের মাধ্যমে ভোটের দাবিতে ১৯৯৩ সালে মমতা তদানীন্তন কংগ্রেস নেত্রী হিসেবে যে আন্দোলন শুরু করেছিলেন তার ২৬ বছর পূর্তিতে, গতকাল রোববার সমাবেশ থেকে ফের ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএমের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মমতা ব্যানার্জি। বলেছেন, ইভিএমে ভোট হলে বিজেপি জেতে। আর সেই জায়গাতেই যখন পুর ও পঞ্চায়েত নির্বাচনে ব্যালটে ভোট হয় তখন পরাজয় হয় বিজেপির। এই জায়গা থেকেই তৃণমূল নেত্রীর প্রশ্ন, লোকসভা নির্বাচনে কত আসন পাবে তা কী করে আগে থেকে বলে দিল বিজেপি?

পাশাপাশি, মমতা ব্যানার্জি বলেছেন, জেলায় জেলায় কালো টাকার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করা হবে। সব টাকা ফিরিয়ে দাও ফিরিয়ে দাও এটাই হবে তৃণমূলের আগামী দিনের স্লোগান।

তৃণমূল নেত্রী বলেছেন, রাজ্যের ২৯৪টি বিধানসভা কেন্দ্রে প্রতিটি বুথে বুথ কর্মীরা সেই কর্মসূচি করবেন। বুথ কর্মীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে জোরদার আন্দোলন করার নির্দেশ দিয়েছেন।

অন্যদিকে, ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে বিজেপিকে আক্রমণের পাশাপাশি কংগ্রেস-সিপিএমকেও সতর্ক করেছেন মমতা ব্যানার্জি। সিপিএম-কংগ্রেসের উদ্দেশ্য তৃণমূল নেত্রী বলেছেন, ওরা বিজেপির বিরুদ্ধে লড়ছে না, আপনাদের সমর্থন চাই না। কিন্তু যে ডালে বসে রয়েছেন, তা কাটবেন না। এবার লোকসভা নির্বাচনে সিপিএম সমর্থকদের একটি অংশ ভোট দিয়েছে বিজেপিকে, সেদিকেই ইঙ্গিত করেছেন মমতা। এখন রাজ্যে বিজেপিকে ঠেকাতে মমতার সিপিএম-কংগ্রেসের সমর্থন নেওয়া উচিত বলেও কোনো কোনো মহল মনে করছে। এমন এক অবস্থায় বিজেপির বিরুদ্ধে দুই দলকেই হুশিয়ারি দিলেন মমতা ব্যানার্জি। বিজেপিতে সিপিএম-কংগ্রেস সমর্থকদের যোগ দেওয়া প্রসঙ্গে মমতা বলেছেন, সিপিএমের হারমাদরাই, এখন বিজেপির জল্লাদ, ওরা আসলে নতুন বোতলে পুরোনো মদ। তৃণমূল নেত্রী বলেছেন, যখন ক্ষমতায় এসেছিলেন তখন সিপিএমের একজনের বিরুদ্ধে কোনো প্রতিশোধ নেওয়া হয়নি। কিন্তু বিজেপি রাজ্যে কয়েকটি আসন পাওয়ার পরই রাজ্যে অশান্তি করছে।

অন্যদিকে মমতার ধর্মতলার সভার পরই মুখ খুলেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বলেছেন, ২৬ বছরের ইতিহাসে শহীদ দিবসে সবচেয়ে কম লোক এসেছিল এবারে তৃণমূলের শহীদ দিবসে। তৃণমূলের হাড়পাজরা বেরিয়ে গেছে, ফ্লপশো। দিলীপ ঘোষ দাবি করেছেন, শহীদ দিবসের জমায়েত ফ্লপ হবে, তা আগে থেকে জানতে পেরেই, তার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে, তৃণমূল কংগ্রেসের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যকে দিয়ে। সরাসরি তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জিকে আক্রমণ করে বলেছেন, সিপিএমের সহযোগিতায় ব্রিগেড ভরাতে পারেননি। একইসঙ্গে তৃণমূল নেত্রীর করা লোক জোগাবার জবাবে, বিজেপির রাজ্য সভাপতি বলেছেন, পুলিশ দিয়ে তৃণমূল নেত্রী দলের নেতাদের আটকে রেখেছেন। ডিম ভাত খাইয়ে আর সভায় লোক টানা যাবে না বলেও কটাক্ষ করেছেন দিলীপ ঘোষ। লোকসভা নির্বাচনে বিপুল সাফল্যের পরিপ্রেক্ষিতে এরপরই বিজেপির নতুন স্লোগান, ২০১৯ তৃণমূল হাফ, ২০-২১ তৃণমূল সাফ। বিজেপির রাজ্য সভাপতি আরো বলেছেন, তৃণমূলের ব্যর্থতার দায় বিজেপির কাঁধে চাপানো হচ্ছে। তিনি বলেছেন, মমতার জনসভায় লোক আসেনি, এই দোষ কি বিজেপির?

এদিকে, ইভিএম কারচুপি করেই লোকসভা নির্বাচনে জিতেছে বিজেপি, মমতা ব্যানার্জির এই দাবিকে পালটা প্রশ্নে বিঁধেছেন সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী। তার প্রশ্ন, ইভিএম কারচুপি হলে ২০১১ ও ২০১৬-র নির্বাচনে কী করে তৃণমূল কংগ্রেস বিপুল জয় পেল? তার জবাব আগে মমতা ব্যানার্জিকে দিতে হবে। সুজন বলেছেন, ইভিএমের গ্রহণযোগ্যতা প্রশ্নাতীত করতে বরাবর দাবি জানিয়ে এসেছে বামেরা। কিন্তু ইভিএম বাতিলের দাবি কখনো তোলেনি তৃণমূল কংগ্রেস। বামেদের দাবি মেনেই, ইভিএমের সঙ্গে ভিভিপ্যাট যোগ হয়েছে। যার ফলে আরো বেড়েছে, স্বচ্ছতা। কিন্তু ইভিএম বাতিলের দাবি কখনো জানায়নি বামপন্থীরা।

 

 

"