কাটা মাথার গুজব

দুই জেলায় তিনজনকে গণপিটুনি

প্রকাশ : ১২ জুলাই ২০১৯, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজে মানুষের মাথা লাগবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এমন গুজবে গলাকাটা কিংবা ছেলেধরা ভেবে বরিশাল, ভোলা ও চাঁদপুরে তিনজনকে পিটুনি দিয়েছে স্থানীয় লোকজন; একজনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার ও এর আগের দিন বরিশালের গৌরনদী, চাঁদপুর সদর ও ভোলার চরফ্যাশনে এ ঘটনা ঘটে। বরিশাল প্রতিনিধি জানান, গৌরনদী উপজেলায় ‘ছেলেধরা ও গলাকাটা’ সন্দেহে দুই যুবককে পিটুনি দিয়েছেন স্থানীয় লোকজন। গত বুধবার নলচিড়া ইউনিয়নের কান্ডপাশা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই দুজনকে উদ্ধার করেছে।

ঘটনার শিকার ওই দুই যুবকের নাম তরিকুল ইসলাম ও মিজানুর রহমান। তারা মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার বাসিন্দা। পুলিশ দুজনকে উদ্ধার করে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, টেকেরহাট চরপ্রসন্নদী জামেয়া আরাবিয়া মদিনাতুল উলুম মাদরাসা ও এতিমখানার সাহায্যের জন্য টাকা তুলতে তরিকুল ও মিজানুর বুধবার কান্ডপাশা গ্রামে যান। এরপর কয়েকটি বাড়ি থেকে টাকা তোলেন। এ সময় গ্রামের কান্ডপাশা নূরানি তালীমুল মাদরাসার সুপার মাহামুদুল ইসলাম গ্রামের যুবকদের ডেকে জানান, এলাকায় ছেলেধরা ও গলাকাটা ঢুকেছে। পরে যুবকরা ওই দুজনকে ধরে পিটুনি দেন।

তবে আহত তরিকুল ইসলাম ও মিজানুর রহমান বলেন, স্থানীয়দের আমরা পরিচয়পত্র দেখাই। চাঁদা সংগ্রহের জন্য মাদরাসা কর্তৃপক্ষের অনুমতিপত্রও দেখাই। তারপরও মারধর করেছে।

এ ব্যাপারে গৌরনদী মডেল থানার ওসি গোলাম সরোয়ার বলেন, জামেয়া আরাবিয়া মদিনাতুল উলুম মাদরাসা ও এতিমখানার কর্তৃপক্ষকে খবর দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সংশ্লিষ্ট থানায় তাদের সম্পর্কে খোঁজ নিতে বলা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট থানা ও মাদরাসা থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওই দুজনের বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চাঁদপুর প্রতিনিধি জানান, সদরের ইসলামপুর গাছতলা এলাকায় মারধরের শিকার মনু মিয়া লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার বাসাবাড়ী এলাকার বাসিন্দা। তার বাবার নাম দুলু মিয়া।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী কাউসার জানায়, চাঁদপুর সদরের বালিয়া ইউনিয়নের ইচলী কলোনি এলাকায় একজন ব্যক্তি ভিক্ষা করার জন্য প্রবেশ করে। পরে স্থানীয় কয়েকজন তাকে ছেলেধরা ভেবে মারধর করে। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে।

চাঁদপুর মডেল থানার উপপরিদর্শক দিলিপ কুমার জানান, সকালে গাছতলা এলাকা থেকে ৯৯৯-তে ফোন করে ছেলেধরা আটক করা হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান। পরে আমরা গিয়ে উত্তেজিত জনতার কাছ থেকে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি। তার বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভোলা প্রতিনিধি জানান, পদ্মা সেতুর জন্য মাথা কেটে নেওয়ার গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। আটক আবদুল শহীদ হাওলাদার চরফ্যাশনের মোহাম্মদপুর গ্রামের বাসিন্দা।

পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার গতকাল সংবাদ সম্মেলন করে জানান, আটক শহীদ দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন এলাকার মানুষকে ফোন করে এবং ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে শিশুদের মাথা কেটে নেওয়া হচ্ছে বলে গুজব ছড়িয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করছিলেন। পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে বুধবার চরমাদ্রাজ থেকে গুজব ছড়ানোর কাজে ব্যবহৃত স্মার্টফোনসহ আটক করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শহীদ দোষ স্বীকার করেছেন। এ কাজে তার সঙ্গে আরো দুজন রয়েছেন বলেও শহীদ জানিয়েছেন। আপাতত তাদের নাম প্রকাশে করা যাবে না।

 

 

"