পঞ্চম ধাপে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন সম্পন্ন

প্রকাশ : ১৯ জুন ২০১৯, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

পঞ্চম ধাপে গতকাল মঙ্গলবার বিচ্ছিন্ন কয়েকটি ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণভাবে ২০টি উপজেলার ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। রাত ৮টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আট উপজেলার ফলাফলে দুটিতে আওয়ামী লীগ এবং চারটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়লাভ করেছেন। প্রতিনিধিদের পাঠানো রিপোর্টÑ

গাজীপুর : গাজীপুর সদরে উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রাথী রীনা পারভীন বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন। নৌকা প্রতীকে তার প্রাপ্ত ভোট ২৩ হাজার ৮৬৫ ভোট। নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আবু নাসার উদ্দিন এ ফলাফল ঘোষণা করেন।

এ নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী ইজাদুর রহমান মিলন ঘোড়া প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ৮০৭ ভোট। অবশ্য তিনি নির্বাচন চলাকালে মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে তার নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন এবং পুনরায় নির্বাচনের দাবি করেন।

বিজয়নগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে বেসরকারিভাবে প্রাপ্ত ফলাফলে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাছিমা লুৎফর রহমান (ঘোড়া) ৩৩ হাজার ৪৭৩ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর ভূঁইয়া পান (নৌকা) ২৫ হাজার ৭৯৩ ভোট।

এদিকে নাছিমা লুৎফর রহমানের শহরের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করেছে একদল দুর্বৃত্ত। মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে জেলা শহরের হালদারপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। নাছিমা লুৎফর রহমানের অভিযোগ, নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তানভীর ভূঁইয়া প্রতিহিংসায় সমর্থকদের দিয়ে আমার শহরের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে। নৌকার প্রতীকের প্রার্থী তানভীর ভূঁইয়া এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

আমতলী (বরগুনা) : বরগুনার আমতলীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. রেজবি-উল কবির জোমাদ্দার বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ২৮ হাজার ৫১৪ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী মো. মনিরুজ্জামান মিন্টু পেয়েছেন ১০ হাজার ৬৯৬ ভোট। জয় পেয়ে মো. রেজবি-উল কবির জোমাদ্দার প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, তিনি যদি আমাকে মনোনয়ন না দিতেন আমি চেয়ারম্যান হতে পারতাম না।

সিরাজগঞ্জ : রাত ৮টার পর্যন্ত ভোট গণনা শেষে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার আবুল হোসেন জানান, উপজেলায় মোট ৪৯টি ভোট কেন্দ্রের ৪৮টি কেন্দ্রের ফলাফলে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া মার্কা প্রতীক নিয়ে শহিদুল্লাহ সবুজ ২৪ হাজার ৯৩৯ ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতিকের প্রার্থী মতিন চৌধুরী পেয়েছেন ১৩ হাজার ৪৩৯ ভোট।

অপরদিকে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে চশমা প্রতীক নিয়ে সেলিম রেজা ১৮ হাজার ৩৮৩ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী টিউবওয়লে প্রতীকের জয়নাল আবেদিন পেয়েছেন ১৪ হাজার ৯৬৮ ভোট।

মাদারীপুর : মাদারীপুর সদরে ১১৫টি কেন্দ্রের ফলাফলে স্বতন্ত্র প্রার্থী ওবায়দুর রহমান কালু খান ৬১ হাজার ৮৭৩ ভোট পেয়ে জয় পেয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের প্রার্থী কাজল কৃষ্ণ দে পেয়েছেন ৪৮ হাজার ১৫২ ভোট। উৎসবমুখর পরিবেশ ও শান্তিপূর্ণভাবে মাদারীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলে। সকালের দিকে ভোটারদের উপস্থিতি ভালো ছিল। নারী, পুরুষ, যুবক-যুবতীসহ সব বয়সের মানুষই ভোটকেন্দ্রে আসেন ভোট দিতে। শহরের তুলনায় গ্রাম পর্যায়ের কিছু কিছু ভোটকেন্দ্রে নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। আবার কোনো কোনো কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি ছিল খুবই কম। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতাও ছিল চোখে পড়ার মতো।

২ লাখ ৬৬ হাজার ৫১৫ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৩৫ হাজার ৩৩৫ জন ও নারী ভোটারের সংখ্যা ১ লাখ ৩১ হাজার ১৬০ জন।

রাজবাড়ী : তাফসিল ঘোষণার পর থেকেই নৌকার পক্ষের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা মামলা ও নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্রে এজেন্টদের ঢুকতে না দেওয়া, সন্ধ্যা থেকে গভীর রাতে ভোটারদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন, ককটেল বিস্ফোরণ করে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট করার অভিযোগ এনে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন স্থগিত চেয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী কাজী সাফুল ইসলাম। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি ভোট স্থগিত করার দাবি জানান।

কালুখালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত কাজী সাইফুল ইসলামের নৌকা প্রতীকের বিপরীতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরে আলম সিদ্দিকী হক মোটরসাইকেল প্রতীক ও সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) : কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে তৃতীয় ধাপের স্থগিতকৃত নির্বাচন মঙ্গলবার ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোনো রকম অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। তবে ভোটার উপস্থিতি ছিল খুবই নগণ্য। ভোটারদের উপস্থিতি নগন্য হওয়ায় নির্বাচনী আমেজও ছিল অনেকটা মøান। ভোট কেন্দ্রের কাছাকাছি যেসব ভোটারদের বাসাবাড়ি তারা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করলেও কেন্দ্র থেকে একটু দূরের লোকজন অনেকেই ভোট কেন্দ্রে যাননি।

 

"