রংপুরে সুদখোরদের দাপট

ঋণের জিম্মাদারের বাড়িতে তালা বৃদ্ধ মা-বাবা ঘরছাড়া

প্রকাশ : ১৮ জুন ২০১৯, ০০:০০

রংপুর ব্যুরো

রংপুরের পীরগাছায় সুদের টাকা উত্তোলন করে দিতে না পারায় জিম্মাদারের বাড়িতে তালা দিয়েছেন এলাকার কয়েকজন দাদন ব্যসায়ী। তাদের হুমকিতে জিম্মাদার তার স্ত্রী সন্তান নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। জিম্মাদারের বৃদ্ধ মা ও বাবা এখন ঘরছাড়া। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কৈকুড়ী ইউনিয়নের চৌধুরানী বাজারের রামচন্দ্রপাড়া গ্রামে।

এলাকাবাসী ও আত্মগোপনে থাকা ভুক্তভোগীর পরিবার জানায়, উপজেলার চৌধুরানী বাজারে দীর্ঘদিন থেকে এলাকার চিহ্নিত দাদন ব্যবসায়ী আবদুর রাজ্জাকের ছেলে মাধু মিয়া, ছামছুল হকের ছেলে মন্টু মিয়া, আবদুল মান্নানের ছেলে আঙ্গুর ও মাসুদ মিয়ার ছেলে মিলন মিয়া বিভিন্ন চড়া সুদে দাদন ব্যবসা করে আসছেন। তাদের দাদন ব্যবসার টাকা বিতরণ ও উত্তোলন করার জন্য একই গ্রামের বদিয়ার রহমানের ছেলে চাতাল শ্রমিক উকিল মিয়াকে (বল্টু) দায়িত্ব দেওয়া হয়। এখন ধানের দাম না থাকায় অধিকাংশ ঋণ গ্রহীতা সময়মতো সুদের টাকা পরিশোধ করতে ব্যর্থ হলে দাদন ব্যবসায়ীরা সুদ-আসলে ঋণ আদায়কারী উকিল মিয়াকে চাপ প্রয়োগ করেন। এতে তিনি টাকা তুলে দিতে ব্যর্থ হলে বাড়ি দখলে নিয়ে গত শনিবার রাতে ওই দাদন ব্যবসায়ীরা উকিল মিয়া ও তার পরিবারকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে বসতঘরে তালা ঝুলিয়ে দেন। এ সময় উকিল মিয়া বাধা দিলে তারা তাকে ও তার বৃদ্ধ বাবা-মাকে নানা ভয়ভীতি দেখান। বর্তমানে দাদন ব্যবসায়ীদের ভয়ে উকিল মিয়া তার স্ত্রী-সন্তান নিয়ে আত্মগোপনে থাকলেও তার বৃদ্ধ বাবা-মা খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। দাদন ব্যবসায়ী মাধু মিয়া জানান, উকিল মিয়া তাদের ব্যবসার কিছু টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। এ টাকা আদায়ের জন্য তার বাড়িতে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে কৈকুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম লেবু মন্ডল প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, স্থানীয়দের কাছে শুনেছি, দাদন ব্যবসায়ীরা উকিল মিয়ার বৃদ্ধ বাবা-মাকে বাড়ি থেকে বেড় করে দিয়ে তালা ঝুলিয়েছেন। এলাকায় সুদের ওপর টাকা খাটিয়ে প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কিছু বলতে পারছেন না। প্রশাসনের কাছে আমি ওইসব দাদন ব্যবসায়ীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি।

রংপুর কোর্টের অ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম এ ব্যাপারে বলেন, সুদের টাকার জন্য জিম্মাদারের বাড়িতে তালা লাগানোর প্রশ্নই ওঠে না। কিন্তু চিহ্নিত দাদন ব্যসায়ীরা যে অপরাধ করেছেন তা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারে পুলিশ। তাছাড়া যাদের ঘর-বাড়িতে তালা দেওয়া হয়েছে তারা বাদী হয়ে দাদনখোরদের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন।

"