ডাচ্-বাংলা ছাড়াও ৩ ব্যাংকের টাকা হাতিয়েছে হ্যাকাররা!

প্রকাশ : ১২ জুন ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ৯টি এটিএম বুথ থেকে হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে টাকা লুটের ঘটনায় ৬ বিদেশি গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে গ্রেফতারের পর চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসছে। তদন্তসংশ্লিষ্ট গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, ডাচ্-বাংলা ব্যাংক ছাড়াও বেসরকারি আরো তিন ব্যাংক থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে হ্যাকার চক্রটি। ব্যাংক তিনটি হলোÑ প্রাইম ব্যাংক, এনসিসি ও ব্র্যাক ব্যাংক।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের বুথ থেকে টাকা তুলতে গিয়ে ইউক্রেনের ৭ হ্যাকারের ৬ জন ডিবির কাছে ধরা পড়লেও বাংলাদেশে এখনো হ্যাকারদের ২০-২৫ জনের একটি গ্রুপ অবস্থান করছে। তাদের গ্রেফতারে গোয়েন্দাদের একাধিক টিম মাঠে সক্রিয়। তবে ৬ হ্যাকার ধরা পড়ার আগেই নতুন তিনটি ব্যাংকের বুথ থেকে টাকা উত্তোলন করে নেয় তারা। কিন্তু ওইসব টাকা কোথায়, কীভাবে আছে, নাকি বিদেশি মুদ্রায় রূপান্তরিত হয়ে পাচার হয়েছে; তা নিশ্চিত করতে পারেননি গোয়েন্দারা। এদিকে নতুন করে তিন ব্যাংকের টাকা খোয়া যাওয়ার ব্যাপারে ব্যাংকগুলোর পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট কেউ অভিযোগ করেননি। এমনকি টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছেÑ এ রকমটা জানিয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোর সহযোগিতা চাওয়া হলেও কেউ এগিয়ে আসছেন না। গোয়েন্দাদের ধারণা, সুনাম নষ্ট ও গ্রাহকদের মধ্যে ভীতি সঞ্চার হতে পারে ভেবে হয়তো ব্যাংকগুলো এগিয়ে আসছে না। তবে দেশের বৃহৎ স্বার্থে সবাইকে এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করছেন তদন্ত কর্মকর্তারা।

অন্যদিকে ব্যাংকিং খাতকে সাইবার হামলা থেকে ঝুঁকিমুক্ত করতে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে গত সোমবার দিনভর রুদ্ধদ্বার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি), আইটি এক্সপার্ট, সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোর আইটি এক্সপার্ট, ডিবি, সিআইডি, সাইবার ইউনিটসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন এমন একজন আইটি বিশেষজ্ঞ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বৈঠকে ব্যাংকগুলোর আইটি বিভাগকে আরো বেশি শক্তিশালী করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এ ছাড়া সম্ভাব্য সাইবার ঝুঁকি মোকাবিলায় আইটি বিশেষজ্ঞদের দিয়ে কাজ করানোর পাশাপাশি নতুন নতুন সফটওয়্যার ব্যবহারের ওপর গুরুত্ব বাড়াতে বলা হয়েছে।

গত ৩০ মে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে ইউক্রেনের সাত হ্যাকার ঢাকায় আসে। ঢাকায় ঢুকেই তারা এটিএম বুথগুলোতে হানা দিয়ে ১৫ থেকে ১৬ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। পরে গত ১ জুন রাত ৮টায় খিলগাঁও তালতলা এলাকায় ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে টাকা তুলতে গিয়ে ধরা পড়ে চক্রের একজন। আরেকজন পালিয়ে গেলেও ওই রাতেই পান্থপথের অলিও হোটেল থেকে অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ। ইউক্রেনের ছয় নাগরিককে আদালত রিমান্ডে দিলেও দোভাষী না থাকায় জিজ্ঞাসাবাদে সমস্যা দেখা দেয়। তবে গতকাল মঙ্গলবার তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়েছে।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার শাহিদুর রহমান বলেন, ‘ইউক্রেনের হ্যাকার চক্রটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পর ব্যাংকিং খাতে ভয়াবহ অশনিসংকেতের আশঙ্কা করা হচ্ছে। যদিও হ্যাকাররা শুরুতেই গ্রেফতার হওয়ায় বিষয়টা নিয়ে ভয় একটু কমেছে। তবে করণীয় ঠিক করতে সম্ভাব্য সব পদক্ষেপ নিচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্টরা।

 

"