যেখানে মা ছাড়াই বড় হচ্ছে শিশুরা...

প্রকাশ : ১৪ মে ২০১৯, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

ইন্দোনেশিয়ায় একটি গ্রাম রয়েছে, যে গ্রামকে ‘মা ছাড়া গ্রাম’ বলে ডাকে দেশটির মানুষ। কারণ সেই গ্রামে মা ছাড়াই বড় হচ্ছে প্রায় সব শিশু। কারণ সেখানকার অল্প বয়েসি মায়েদের প্রায় সবাই কাজের খোঁজে দেশের বাইরে পাড়ি জমিয়েছেন। এলি সুশিয়াতির মা যখন তার দাদির কাছে তাকে রেখে যান সে সময় তার বয়স ছিল ১১। তার বাবা-মায়ের মাত্রই বিচ্ছেদ হয়েছে তখন, পরিবারের সবার মুখে দুটো খাবার তুলে দেওয়ার চিন্তায় গৃহকর্মীর কাজ নিয়ে সৌদি আরবে চলে যান এলির মা। এলি এখন দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়ে।

সে চায় না তার মা আর বিদেশে থাকুক। দেশে এসে তাকে ও তার ভাইবোনদের যতœ নিক। দেশটির পূর্ব লম্বকের গ্রাম ওয়ানাসাবাতে থাকে এলি। সন্তানদের উন্নত জীবনের আসায় এ গ্রামের অল্প বয়েসি মায়েরা পরিবার ছেড়ে বিদেশে কাজ করতে গেছেন।

এখানকার পুরুষেরা কৃষিকাজ করে কিংবা কারখানায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। পরিবারের নারীদের আয়ের তুলনায় এদের আয় একেবারেই নগণ্য। গ্রামটির প্রতিটি বাড়ি একটির গায়ে আরেকটি লাগোয়া, পুরো গ্রামে সারি সারি বাড়ি। মাঝের গলিও একেবারে সরু, কোনো মতে দুটি মোটরসাইকেল পাশাপাশি চলতে পারে। বাড়ির পেছনে বিশাল ধানখেত। যখন মায়েরা ছোট বাচ্চা রেখে বিদেশে যান, তখন পরিবারের পুরুষ ও বয়স্ক সদস্যরা সন্তান পালনের দায়িত্ব নেন। এই গ্রামের প্রতি পরিবারেই যেহেতু মা প্রবাসী, দেখা গেছে সব পরিবারই সবার বাচ্চা দেখে শুনে রাখতে সাহায্য করে। উল্লেখ্য, ১৯৮০ দশক থেকে ইন্দোনেশিয়ার এ অঞ্চল থেকে নারীরা গৃহকর্মী ও আয়া হিসেবে কাজ করতে বিদেশে যাওয়া শুরু করেন।

 

"