দেশের প্রথম হাইব্রিড ইভি গাড়ি

প্রকাশ : ১১ মে ২০১৯, ০০:০০

রাজশাহী ব্যুরো

দেশে প্রথমবারের মতো হাইব্রিড ইলেকট্রিক ভেহিকল (ইভি) গাড়ি উদ্ভাবন করেছে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) একদল গবেষক। উদ্ভাবিত গাড়ির সুবিধাগুলো হলো এতে একইসঙ্গে ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিন ও সোলার চার্জিং সিস্টেম রয়েছে। যে কারণে জ্বালানি শেষ হলেও এ চলবে গাড়ি। গবেষক দলের প্রধান রুয়েটের যন্ত্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. এমদাদুল হক সাংবাদিকদের এসব তথ্য দেন।

তিনি জানান, সোলার সিস্টেম থাকায় জ্যামে আটকে থাকলেও ব্যাটারি চার্জ হবে। তাই শক্তি বা জ্বালানির অপচয় হওয়ার সুযোগ নেই। আছে প্লাগ চার্জিং সিস্টেমও। যদি মন চায় বিদ্যুতের সাহায্য নিয়ে চার্জ দেওয়া যাবে।

অধ্যাপক ড. এমদাদুল হক আরো জানান, আগামী ১০ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে জাপানসহ ইউরোপীয় দেশে পেট্রল ও ডিজেল ইঞ্জিন তুলে দিয়ে ইভি চলবে। এসব গাড়ির বিশেষ বৈশিষ্ট হলো জ্বালানি কম খরচ হবে এবং পরিবেশ দূষণ হবে না। এজন্যই উন্নত দেশগুলো জ্বালানি ছাড়া এ গাড়ি চালানোর দিকে নজর দিচ্ছে।

একাধিক গবেষণা বলছে, ২০৫০ সাল নাগাদ বিশ্বের পেট্রল শেষ হয়ে যেতে পারে। এ কারণে বিভিন্ন দেশ পেট্রলের বিকল্প জ্বালানি তৈরির চেষ্টা করছে। এতে বাংলাদেশ পিছিয়ে থাকবে, এমনটি হতে পারে না।

সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে ঠিক দুই বছর আগে গবেষণা শুরু করেছিলেন রুয়েটের এ গবেষক দল। মাত্র দুই বছরের প্রচেষ্টায় একইসঙ্গে তিনটি সুবিধা সম্পন্ন দেশে প্রথমবারের মতো হাইব্রিড ইভি গাড়ি উদ্ভাবন করেছেন তারা।

এ বিষয়ে শিক্ষার্থীরা বলেন, মূলত একটি পরিত্যক্ত গাড়ি ব্যবহার করে হাইব্রিড গাড়িটি তৈরি করা হয়েছে। রাজশাহীর একটি গ্যারেজ থেকে গাড়িটি সংগ্রহ করা হয়। পোর্টেবল ডিভাইসের মতো এই প্রযুক্তিটি এখন যেকোনো গাড়ির সঙ্গে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা যাবে। ব্যাটারি ব্যবহার করেও ঘণ্টায় ৮০ থেকে ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত গতি পাওয়া সম্ভব হবে। তাছাড়া, একবার চার্জ হলে জ্বালানি ব্যবহার ছাড়াও একটানা ২৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত চলা সম্ভব বলেও জানান তারা। শিক্ষার্থীরা আরো বলে, একটি পরিত্যক্ত গাড়ি থেকে হাইব্রিড গাড়ি রূপান্তর করে ব্যবহার উপযোগী করতে খরচ পড়বে মাত্র ২ থেকে আড়াই লাখ টাকা।

"