ভারতকে ন্যাটো জোটে চায় যুক্তরাষ্ট্র : কংগ্রেসে বিল

প্রকাশ : ১৩ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

চীনের সামরিক কর্মকা- যতটা উদ্বেগ বাড়িয়েছে আমেরিকার, ততটাই ভারতের দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে পাকিস্তান। এই দুই উদ্বেগ কমাতে ভারতের সঙ্গে সামরিক সম্পর্ককে এবার আরো ঘনিষ্ঠ করতে তোড়জোড় শুরু হয়েছে মার্কিন কংগ্রেসে। ভারতকে ন্যাটো (নর্থ আটলান্টিক ট্রিটি অর্গানাইজেশন) জোটে আনতে ফের একটি বিল এনেছেন হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের ছয় প্রভাবশালী সদস্য। পর্যাপ্ত ভোটের অভাবে আগের বিলটি পাস হয়নি। এই বিলটির ভবিষ্যৎ কী তা এখনই বলা যাচ্ছে না। তবে বিশ্লেষকরা বলেছেন, এশিয়ায় চীনের ক্রমাগত প্রভাব বৃদ্ধিতে যুক্তরাষ্ট্র যারপর নাই চিন্তিত। চীনের এই প্রভাব বৃদ্ধিকে ভীতির কারণ হিসেবে দেখচ্ছে এশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ মিত্র জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, ভিয়েতনাম ও ভারত। যুক্তরাষ্ট্র এরই মধ্যে এর নৌশক্তির ৬০ শতাংশ এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরে একত্রিত করেছে। এই সামরিক শক্তি একত্রিত করার কারণও চীন। এছাড়া জঙ্গি সন্ত্রাস মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র, বিশেষ করে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন পাকিস্তানকে আর বিশ্বাস করতে পারছে না। তাছাড়া আফগানিস্তানে মার্কিন মিত্র বর্তমান প্রশাসনকে টিকিয়ে রাখাও যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের জন্য সমান প্রয়োজন। এসব কারণে আগামীতে ভারত-যুক্তরাষ্ট্র রণকৌশলগত মিত্রতা আরো বাড়বে। খবর সিএনএন ও আল জাজিরার।

বিলটি কংগ্রেসের দুই কক্ষে পাস হওয়ার পর আইনে পরিণত হলে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভারতকে ন্যাটো জোটের শরিক বলে ঘোষণা করতে পারবে। এতে বাড়তি নিরাপত্তার আশ্বাসের বিনিময়ে যেমন আমেরিকার সামনে পছন্দমতো অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রটি আরো প্রসারিত হবে তেমনি জোটের শরিক দেশগুলো অন্য কোনো দেশে তাদের অস্ত্র বিক্রি করতে চাইলে তার ওপরও নজর রাখা সম্ভব হবে ওয়াশিংটনের।

ভারতকে ন্যাটো জোটে আনলে আমেরিকার বাড়তি সুবিধা হলো এর মধ্য দিয়ে চীন ও পাকিস্তানকেও বার্তা দেওয়া যাবে।

চলতি সপ্তাহেই ‘এইচআর-২১২৩’ নামের বিলটি কংগ্রেসে এনেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রবিষয়ক কমিটির প্রভাবশালী সদস্য জো উইলসন। এর আগেও একবার এই বিল আনা হয়েছিল হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে। তবে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটের অভাবে সেটি পাস হয়নি। সেই বিলটি এনেছিলেন অ্যামি বেরা। ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিনদের মধ্যে অ্যামিই সবচেয়ে বেশি দিন ধরে সদস্য রয়েছেন কংগ্রেসের। ওই সময় অ্যামির সঙ্গী হয়েছিলেন হাউসের ইন্ডিয়া ককাস কমিটির চার কো-চেয়ার সদস্য জর্জ হোল্ডিং, ব্র্যাড শেরম্যান, তুলসি গাবার্ড ও টেড ইয়ো।

 

"