আবহাওয়ার পূর্বাভাসে লাভবান হবেন কৃষক

এলজিআরডিমন্ত্রী

প্রকাশ : ১০ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, অঞ্চলভিত্তিক আবহাওয়ার পূর্বাভাস প্রাপ্তি আমাদের অর্থনৈতিক কর্মকা-কে বেগবান করবে। বিশেষ করে কৃষি ক্ষেত্রে আবহাওয়ার পূর্বাভাস কাজে লাগিয়ে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হতে পারেন কৃষক ও সেই সঙ্গে গ্রামীণ অর্থনীতি। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এবং স্থানীয় সরকার বিভাগের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে মন্ত্রী প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর কর্তৃক বিশ^ব্যাংকের অর্থায়নে ‘আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্যসেবা এবং প্রারম্ভিক সতর্কতা ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণ (কম্পোনেন্ট-এ)’ শীর্ষক প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। সেই প্রকল্পের আওতায় সারা দেশে ২০০টি উপজেলায় কৃষিভিত্তিক স্বয়ংক্রিয় আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার স্থাপনে উপজেলা পরিষদের ভূমি ব্যবহারের বিষয়ে ওই সমঝোতা স্মারক সই করা হয়।

এ সময় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব এস এম গোলাম ফারুক এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আখতার হোসেন ভূইয়া একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

উল্লেখ্য, উপজেলা পরিষদের ভূমি ব্যবহার করে এ স্টেশনগুলো স্থাপন করা হবে। এজন্য প্রয়োজন হবে খোলামেলা স্থানে মাত্র ২২০ বর্গফুট জায়গা এবং তা স্থানীয়ভাবে উপজেলা পরিষদ কর্তৃক রক্ষণাবেক্ষণ করা হবে। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে আবহাওয়া পূর্বাভাস পদ্ধতি ও মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদারকরণ, তথা ট্রপিক্যাল সাইক্লোন মডেলিং, স্টর্ম সার্জ (জলোচ্ছ্বাস) মডেলিং, মেটিওরোলজিক্যাল সিস্টেম ইন্টিগ্রেটর, ডেটা শেয়ারিং পলিসি উন্নয়ন, জলবায়ু সেবা উন্নয়নে কনসালটেন্সি গ্রহণ, ডব্লিউআরএফ মডেল স্থাপন, কনফিগারেশন ও প্রশিক্ষণ, এনডব্লিউপি প্রোডাক্ট নির্ণয় এবং স্থান ও সমিয়ভিত্তিক পূর্বাভাস সহজ হবে। প্রকল্পটি জুন ২০২১ সালের মধ্যে বাস্তবায়িত হওয়ার কথা রয়েছে।

 

"