অধম্য ইচ্ছাশক্তির বিউটি

প্রকাশ : ০৯ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০

কে এম বেলাল, দুপচাঁচিয়া (বগুড়া)

বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার জাহানারা কামরুজ্জামান ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে বিউটি আক্তার নামে এক প্রতিবন্ধী ছাত্রী পা দিয়ে লিখে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন। কলেজ কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে, ৯ নম্বর কক্ষে সাধারণ ছাত্রীদের সঙ্গে সিট ব্রেঞ্চে ওপর উত্তরপত্র রেখে ডান পায়ের আঙুলের ফাঁকে কলম আটকিয়ে ইংরেজি প্রথমপত্র পরীক্ষায় উত্তরপত্র লিখে পরীক্ষা দিচ্ছেন এই ছাত্রী।

জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল উপজেলার শিবপুর গ্রামের বায়েজিদ হোসেন ও রহিমা বেগমের সংসারে প্রতিবন্ধী হয়ে জন্ম নেয় বিউটি আক্তার। এ নিয়ে বাবা-মার দুশ্চিন্তার শেষ ছিল না। কিন্তু ইচ্ছাশক্তি ও পরিশ্রম মেয়েটিকে দমাতে পারেনি। অদম্য বিউটি আক্তার প্রাথমিক সমাপনী, জুনিয়র সার্টিফিকেট এবং সব শেষ এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়। উচ্চশিক্ষার আশায় সে দুপচাঁচিয়া মহিলা ডিগ্রি কলেজে ভর্তি হয়। এ বছর ওই কলেজ থেকেই এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন তিনি। দুপচাঁচিয়া জাহানারা কামরুজ্জামান কলেজে তার পরীক্ষার কেন্দ্র। পরীক্ষা কেন্দ্রের সচিব অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ জানান, প্রতিবন্ধী বিউটি আক্তারকে বিশেষ সুবিধা প্রদানের আশ্বাস দিলেও তিনি যথাযথ নিয়মেই সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গেই পরীক্ষায় অংশগ্রহণের দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি বাংলা প্রথমপত্র ও দ্বিতীয়পত্রের মতো ইংরেজি প্রথমপত্র পরীক্ষাও সাবলীল গতিতে উত্তরপত্র লিখেছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জাকির হোসেন জানান, প্রতিবন্ধী বিউটি আক্তার নারীদের এগিয়ে যাওয়ার একটি উদাহরণ। তিনি প্রতিবন্ধী হয়েও সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গেই পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। তার অদম্য ইচ্ছার কারণেই তিনি লেখাপড়ায় ভালো করছেন। এ মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ শামসুল হক আকন্দ জানান, বিউটি আক্তার অত্যন্ত সাবলীল ও সুন্দর আচরণের অধিকারিণী। সে প্রতিবন্ধী হওয়া সত্ত্বেও নিয়মিত ক্লাস করেছে। ক্লাস পরীক্ষার ফল ছিল সন্তোষজনক। মেধাবী বিউটি আক্তার এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় ভালো ফল করবেন বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন। পরীক্ষা শেষে কথা হয় বিউটি আক্তারের সঙ্গে সে জানায়, পা দিয়ে লেখা শেখানোর মূলে ছিল তার মা। তার জন্য তার মা অনেক কষ্ট করেছেন। মায়ের কাছ থেকে সাহায্য নিয়ে সেসব কাজ করতে শিখেছে। বিউটি আক্তার উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে শিক্ষকতা করতে চায়। এজন্য এই ছাত্রী সবার দোয়া ও সহযোগিতা চেয়েছেন।

"