সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে ১১১ সুপারিশ

প্রকাশ : ২৫ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানোর লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে ‘রোড সেফটি সেল’ গঠনের প্রস্তাবসহ ১১১টি সুপারিশের খসড়া প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। এতে চলমান কিছু সুপারিশ বাদে বাকিগুলো তিন মেয়াদে বাস্তবায়নের কথা বলা হয়েছে। আগামী ৪ এপ্রিলের মধ্যে এ প্রতিবেদনের খসড়া চূড়ান্ত করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া হবে।

গত বছরের জুলাইয়ে বাসচাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর শুরু হয় নিরাপদ সড়ক আন্দোলন। নতুন করে সামনে আসে পরিবহন খাতের বিভিন্ন স্তরে বিরাজমান বিশৃঙ্খলার বিষয়গুলো। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার ধারাবাহিকতায় গত ২৭ ফেব্রুয়ারি পরিবহন মালিক, শ্রমিক, পুলিশ, গবেষক ও বিআরটিএসহ বিভিন্ন পক্ষের প্রতিনিধিদের নিয়ে ১৫ সদস্যের কমিটি করা হয়। পরে তা বাড়িয়ে ২২ জনের কমিটি করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা ও ২০১১ সালে গঠিত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ড. আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত কমিটির সুপারিশগুলোও আমলে নিয়েছে এ কমিটি।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক কাজী সাইফুন নেওয়াজ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘পরিবর্তিত পরিস্থিতিকে ভিত্তি করে দীর্ঘমেয়াদি কী কী পরিকল্পনা করা যায়, সবকিছু বিবেচনা করেই আমরা একটা খসড়া প্রতিবেদন তৈরি করছি। আমরা এই প্রতিবেদনের সময়টাকে নির্দিষ্ট করে উল্লেখ করে দিচ্ছি, যাতে করে বাস্তবায়ন কমিটির কাছে একটি বেঞ্চ মার্ক থাকে যে কত দিনের মধ্যে এটি শেষ করতে হবে।’

সড়ক নিরাপত্তায় জোর দেওয়া, অবকাঠামো উন্নয়ন, দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া, জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা তৈরি, প্রশিক্ষিত চালক তৈরি, চালকদের সচেতনতা বাড়ানোর মতো নানা বিষয় থাকছে সুপারিশমালায়। সুপারিশ বাস্তবায়নে মেয়াদের ভিত্তিতে তিন ভাগে সাজানো হয়েছে প্রতিবেদন।

নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন জানান, প্রধানমন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে উনার দফতরের সিনিয়র কাউকে দিয়ে একটি কমিটি গঠন করা উচিত। কারণ সড়ক দুর্ঘটনা-সংক্রান্ত অনেকগুলো মন্ত্রণালয় আছে, সে মন্ত্রণালয়গুলো একসঙ্গে কাজ করলে কাজে সামঞ্জস্য থাকে না। এ ছাড়া যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণেও জটিলতার মুখোমুখি হতে হয়। তিনি বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার জের ধরে কমিটি গঠন এবং সেসব কমিটির অনেক সুপারিশ জমা পড়েছে আগে। সেগুলোর কোনোটিই বাস্তবায়ন হয়নি। এই কমিটির সুপারিশ কি বাস্তবায়ন হবে?

সড়কে শৃঙ্খলার সুপারিশ কমিটির সভাপতি শাজাহান খান বলেন, ‘আমরা একটি ভালো সুপারিশ দেব। আমাদের বক্তব্য হবে শুধু সুপারিশ দেওয়া নয়, এটি বাস্তবায়ন করাও। এ ছাড়া সুপারিশগুলো বাস্তবায়নের লক্ষ্যে একাধিক টাস্কফোর্সও তৈরি করে দেব।’

কমিটির সদস্যরা বলছেন, সবগুলো সুপারিশই বাস্তবায়ন সম্ভব এবং তাতেই সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে।

 

"