কবি নজরুলে পরিবহন সংকট চরমে

প্রকাশ : ২৪ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

জাককানইবি প্রতিনিধি

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাককানইবি) পরিবহন সংকট চরমে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ হাজারের বেশি শিক্ষার্থীর জন্য মাত্র দুটি হল রয়েছে। সেখানে বড়জোর হাজার খানেক শিক্ষার্থী থাকতে পারেন। বাকি অধিকাংশ শিক্ষার্থী থাকেন আশপাশের এলাকায়, এর বড় অংশ থাকেন ময়মনসিংহ শহরে। শিক্ষার্থীদের পরিবহনের জন্য রয়েছে মাত্র ১০টি বাস। এই স্বল্প সংখ্যক বাসে গাদাগাদি করে, কখনো ঝুঁকিপূর্ণভাবে বাদুড়ঝোলা হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে যাতায়াত করতে হয় শিক্ষার্থীদের। এতে যে কোনো সময় বড় কোনো দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা। জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছেন। সেখানে মাত্র দুটি হল রয়েছে। এতে আবাসন সংকটের সুরাহা হয় না। তাই বাধ্য হয়ে অনেকে ক্যাম্পাসের বাইরে থাকতে হয়। তাদের মধ্যে একটা বড় অংশ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে ময়মনসিংহ শহরে থাকেন। যারা ময়মনসিংহ শহরে থাকেন মূলত তারাই বাসে আসা-যাওয়া করেন।

শিক্ষার্থীদের জন্য ১০টি বাসের চারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের আর বাকি ছয়টি ভাড়া করা। এই স্বল্প সংখ্যক বাসে যাতায়াত করতে দূরের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হয়। বেশির ভাগ শিক্ষার্থীকে বাসের ভেতর গাদাগাদি করে দাঁড়িয়ে কিংবা দরজায় ঝুলে ঝুঁকি নিয়ে আসা-যাওয়া করতে হয়। ভিড়ের কারণে শিক্ষার্থীদের অসুস্থ হয়ে যাওয়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে। কেউ কেউ লোকাল বাসে যাতায়াত করেন। বাস বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলন করা হয়েছে। গত ১১ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসকের অফিসে তালা লাগিয়েছিলেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মানবসম্পদ বিভাগের শিক্ষার্থী সজীব আহমেদ বলেন, অধিকাংশ সময় বাসে সিট পাওয়া যায় না। এমনকি ভেতর গাদাগাদি করে দাঁড়ানোর জায়গাও পাওয়া যায় না অনেক সময়। সময়মতো ক্লাসে উপস্থিত হতে দরজায় হাতল ধরে বাদুড়ঝোলা হয়েও আসতে বাধ্য হতে হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক ছাত্রী জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য একই বাস থাকায়, গাদাগাদি করে বাসে উঠতে গিয়ে নানা বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। মো. সমুদ্র প্রবাল নামে আরেক শিক্ষার্থী থাকেন ময়মনসিংহে। একই বিড়ম্বনার মুখোমুখি পড়তে হয় তাকেও। কেন তিনি এত দূরে থাকেন? জানতে চাইলে তিনি বলেন, আশপাশের এলাকায় পর্যাপ্ত নাগরিক সুবিধা নেই। তাছাড়া স্থানীয়দের অনেকেই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শোভন আচরণ করেন না। এ কারণে একটু কষ্ট হলেও ময়মনসিংহ শহরে থাকি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক রাশেদ সুখন বলেন, শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে বাস বাড়ানোর জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। উপাচার্য ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, শিক্ষার্থীদের জন্য আগামী মাসে নতুন একটি বাস কেনা হবে। এছাড়া আগামী দুই মাসের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে আরো দুটি বাস পাব।

 

"