বিজ্ঞানের সাফল্য

আজ যা ভাবনা ও গল্প তা-ই কাল বাস্তব!

প্রকাশ : ২৩ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

আজকের গল্প, কালকের বিজ্ঞান। ১৯৬৬ সালে কল্পবিজ্ঞান কাহিনিকার আইজ্যাক আসিমভ লিখেছিলেন ‘ফ্যান্টাস্টিক ভয়েজ’ উপন্যাস। ওই উপন্যাসে আছে মানুষের মস্তিষ্কের রোগ সারানোর জন্য ওষুধকে লাখ লাখ গুণ ছোট করে ধমনীর মধ্যে সাবমেরিনের মতো ছুটিয়ে একেবারে লক্ষ্যবস্তু পর্যন্ত পৌঁছানোর কথা। রসায়নবিদরা এখন ল্যাবরেটরিতে বানাচ্ছেন ন্যানোমিটার (এক মিলিমিটারের ১০ লাখ ভাগের এক ভাগ) মাপের ‘মলিকিউলার সাবমেরিন’। উদ্দেশ্য সেই একই, ক্যানসারের মতো ব্যাধিতে কেমোথেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এড়াতে ঠিক জায়গায় ঠিক কাজটি করা। এ রকম ওষুধকে বলা যায় ‘স্মার্ট ড্রাগ’।

গত মঙ্গলবার ভারতের কলকাতায় এভাবেই নিজের কাজ ব্যাখ্যা করলেন নোবেলজয়ী ডাচ রসায়ন বিজ্ঞানী বার্নার্ড এল ফেরিঙ্গা। গ্রনিনজেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক ২০১৬ সালে রসায়নে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন জাঁ-পিয়ের সভেজ এবং স্যার জে ফ্রেসার স্টোডার্টের সঙ্গে। তাদের কাজ পরমাণু জুড়ে জুড়ে ক্ষুদ্রাকৃতির অণু তৈরি। যা মাপে চুলের হাজার হাজার ভাগের এক ভাগ। তারা নাটবল্টুর মতো জোড়েন পরমাণু, তা থেকে বানান মলিকিউলার মোটর, সুইচ, রোবট।

বলতে গেলে তারা বাস্তবে রূপায়িত করছেন আরো এক নোবেলজয়ী বিজ্ঞানীর স্বপ্ন। তিনি রিচার্ড ফিলিপ ফাইনম্যান। আমাদের চারপাশে সব বস্তুই তো অণু-পরমাণুর পাহাড়। ফাইনম্যান বলেছিলেন, পরমাণুর পর পরমাণু জুড়ে মেশিন-টেশিন বানানো যায় না? গেলে, কতটুকু মাপ হতে পারে সেইসব মেশিনের? মানুষের হাত দিয়ে তো অণু-পরমাণু নাড়াচাড়া করা যায় না, সে কারণে বিশেষ কায়দায় বানাতে হবে ওই রকম মেশিন। ফেরিঙ্গা এবং তার সতীর্থরা বানাচ্ছেন সে রকমই মেশিন।

এ দিন শহরের একটি ক্লাবে এক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠানে ফেরিঙ্গা বললেন, ‘বিদ্যুতের সুইচ যেমন হয়, আমরা বানাচ্ছি তেমনই আণবিক সুইচ। আমাদের দেহে অহর্নিশ কাজ করছে নানা রকম জৈবিক সুইচ। আমি অন্য কাউকে দেখছি, অন্য কেউও যে আমাকে দেখছেন তার মূলে ওই হরেক সুইচের কারসাজি।’ আমরা বানাতে চাই এমন সুইচ, যা অন-অফ হবে আলোর খেলায়।’

সিলিকন চিপ যেমন কাজ করে তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে, তেমনই ওই আণবিক সুইচও কাজ করবে তথ্য জমিয়ে রাখার বেলায়। একটা সিডির মধ্যে ওইভাবে কত তথ্য জমিয়ে রাখা যায়? উদাহরণ দিয়ে ফেরিঙ্গা বললেন, ‘হাজার হাজার গান। এতগুলো গান যে, ছয়-সাত পুরুষ ধরে শুনলেও তার ভাঁড়ার ফুরোবে না।’ ফেরিঙ্গা একসময়ে কাজ করতেন রসায়ন শিল্পের গবেষণাগারে। তবু তার মন পড়ে থাকত বিশ্ববিদ্যালয়ে। অবশেষে সেখানেই যোগদান। বললেন, ‘রাজনীতিকদের কথা ভুলবেন না। ভুলবেন না শিল্প-মালিকদের কথাও। মনে রাখবেন, মৌলিক গবেষণায় গুরুত্ব কম দিলে শিল্পেরই ক্ষতি। রাজনীতিকরা কেবল আজ নিয়ে চিন্তিত, কালকের কথা প্রায়ই ভুলে যান। আজকের গবেষণা কিন্তু কালকের জীবন। এজন্য মৌলিক গবেষণায় উৎসাহ হারানো, বিনিয়োগ কমানো যেকোনো দেশের পক্ষেই সর্বনাশ ডেকে আনে।’

তার জীবনে শিক্ষকদের ভূমিকা কেমন? প্রশ্নের উত্তরে ফেরিঙ্গা বললেন, ‘আমি এখনো ভুলতে পারি না কয়েক জনের কথা। যেমনÑ ছোট বেলায় আমার কেমিস্ট্রি টিচার। মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখতেন আমায়। কোনো জিনিস কেন লাল, কোনোটা কেন নীল রঙের, কোনোটা কেন নরম, আবার কোনোটা লোহার মতো শক্ত সেসব আমাকে বুঝিয়ে দিতেন তিনি। এক মহিলা পড়াতেন অঙ্ক। যে বিষয় ফর্মুলায়-ফর্মুলায় কন্টঙ্কিত, তা তিনি জলবৎ তরল করে বোঝাতেন। আমার মধ্যে গণিতের প্রতি ভালোবাসা তিনিই জাগিয়ে তুলেছিলেন। গত বছর দেখা হয়েছিল আমাদের ক্লাসের সেই কেমিস্ট্রি টিচারের সঙ্গে। ওর বয়স এখন ৮০ ছুঁইছুঁই। আমাকে কী বললেন জানেন? বললেন, তিনি স্বপ্ন দেখেন সেই দিনের, যে দিন পৃথিবীর প্রতিটি ছাত্র অনুপ্রাণিত হওয়ার জন্য অন্তত একজন শিক্ষক পাবে।’

ডাচ দূতাবাসের পক্ষ থেকে এ দিনের সান্ধ্য অনুষ্ঠানে ডাকা হয়েছিল কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও গবেষকদের। তাদের উদ্দেশ্যে ফেরিঙ্গা বললেন, ‘আপনাদের কাছে অনুরোধ, ছাত্রদের উদ্বুদ্ধ করবেন প্রশ্ন করতে। তা সেই প্রশ্ন আপাতদৃষ্টিতে যতই বোকা-বোকা ঠেকুক। মনে রাখবেন, ছাত্রদের প্রশ্ন থেকেই অনেক আবিষ্কারের ক্লু মেলে। নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পরে আমাকে প্রায়ই স্কুলে-স্কুলে যেতে হয় বক্তৃতা দিতে। একবার একটি স্কুলে গিয়েছি। সেখানে ১০ থেকে ১১ বছরের একটি ছেলে দাঁড়িয়ে জিজ্ঞাসা করল, ‘আচ্ছা, আপনারা যে আণবিক মোটর বানিয়েছেন, তা ট্রাফিক জামে পড়ে?’ ল্যাবরেটরিতে আমরা এখন শুধু মোটর নয়, তা যাতায়াতের জন্য এমন পথও বানাচ্ছি, যাতে তা মসৃণভাবে চলাচল করতে পারে।’

 

"