স্কুল কেবিনেটে উৎসবের ভোট

প্রকাশ : ১৫ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

প্রতিদিনের সংবাদ ডেস্ক

ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে দেশের সব কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দ্বার খুলে গেছে। এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখে হয়ে গেল দেশের সব সরকারি-বেসরকারি কলেজে ছাত্র সংসদ নির্বাচন। উৎসবের মধ্য দিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার ২২ হাজার ৯৬১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও দাখিল মাদ্রাসায় স্কুল কেবিনেট নির্বাচন হয়। দেশের আট বিভাগ ও আটটি মহানগরের আওতাধীন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও দাখিল মাদ্রাসায় (ষষ্ঠ-দশম শ্রেণি) এই নির্বাচন হলো।

শিক্ষার্থীদের মাঝে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ সঞ্চার করতে ২০১৫ সাল থেকে স্কুল পর্যায়ে এ নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। স্কুল পর্যায়ে এ নির্বাচন শিক্ষার্থীদের গণতান্ত্রিক চর্চায় উদ্বুদ্ধ করবে, বাড়াবে বিদ্যালয়ের প্রতি দায়িত্ববোধ-প্রত্যাশা শিক্ষকদের। স্কুলের আঙিনায় রঙিন কাগজে নানা প্রতিশ্রুতি। কোনো কোনো পোস্টারে ছিল প্রার্থীর ছবিও। প্রতি শ্রেণি থেকে শিক্ষার্থী প্রতিনিধি নির্বাচিত হয় একজন। আর পাঁচ শ্রেণিতে নির্বাচিত পাঁচজনের মধ্য থেকে সর্বোচ্চ ভোটপ্রাপ্ত তিনজন নির্বাচিত হয় স্টুডেন্টস কেবিনেটের সদস্য হিসেবে। এ সদস্যরা মনোনীত করে একজন প্রধান প্রতিনিধি। ভোটে স্কুলের উন্নয়নমূলক নানা কাজের প্রতিশ্রুতিও ছিল প্রার্থীদের কণ্ঠে।

সিদ্ধেশ্বরী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক সাহাবুদ্দিন মোল্লা বলেন, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, বিদ্যালয়ের প্রতি তাদের যে দায়িত্ববোধ এবং জাতির প্রতি যে দায়িত্ববোধ সেটার জন্য যে অনুশীলন তা এই কেবিনেট নির্বাচন থেকে তারা শিখবে।

ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব গড়তে ও গণতন্ত্র চর্চা অব্যাহত রাখতে চট্টগ্রামেও বিভিন্ন বিদ্যালয়ে হয় স্টুডেন্ট কেবিনেট নির্বাচন। এবার জেলার ১ হাজার ১৬৯টি মাধ্যমিক স্কুল ও মাদ্রাসায় নির্বাচন হয়।

উৎসব মুখর পরিবেশে বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে বরিশাল শহীদ আরজুমনী সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শুরু হয় ভোটগ্রহণ। এই নির্বাচনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে গণতন্ত্রে চর্চা সৃষ্টি হবে বলে মনে করেন শিক্ষকরা। ভোট উপলক্ষে যশোরের বিদ্যালয়গুলোতে ছিল সাজ সাজ রব। খুদে প্রার্থীদের নিজ হাতে বানানো পোস্টারে ছেয়ে যায় পুরো বিদ্যালয়। লাইনে দাঁড়িয়ে প্রথম ভোটদানের সুযোগ পেয়ে উচ্ছ্বসিত খুদে ভোটারা।

ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সিলেটের বিদ্যালয়গুলোতে ভোট দেয় শিক্ষার্থীরা। বিজয়ী হয়ে স্কুলের পরিবেশ উন্নয়নে কাজ করতে চায় প্রার্থীরা।

ময়মনসিংহের বিভিন্ন বিদ্যালয়ে শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয় স্কুল কেবিনেট নির্বাচন। ছিল নির্বাচন কমিশন, প্রিসাইডিং অফিসার এবং পোলিং এজেন্টও। লাইনে দাঁড়িয়ে সুশৃঙ্খলভাবে নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেয় শিক্ষার্থীরা।

এছাড়া, দিনাজপুর, রাজশাহী, ঝিনাইদহ, মৌলভীবাজার, পঞ্চগড়সহ দেশের বিভিন্ন স্কুলে শান্তিপূর্ণ ও উৎসব মুখর পরিবেশে শেষ হয় কেবিনেট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। এক বছরের জন্য নির্বাচিত হয় খুদে বিজয়ীরা।

 

"