৬ সেকেন্ডে তালা ভাঙেন জাহাঙ্গীর

প্রকাশ : ১৪ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

তাজুল ইসলাম পলাশ, চট্টগ্রাম ব্যুরো

অভিভাবকরা যখন তাদের সন্তানদের স্কুলে আনা-নেওয়া করেন সেই সময়টাকেই বেছে নেন চট্টগ্রামের কুখ্যাত চোর জাহাঙ্গীর আলম (৪০)। যেকোনো ধরনের তালা খুলতে জাহাঙ্গীরের সময় লাগে মাত্র ৬ সেকেন্ড। এই সময়টাতে সে যেকোনো ধরনের তালা খুলে ফেলতে পারেন তিনি। দিনের বেলা পুরোনো কাপড় কেনার ছদ্মবেশে টুকরিতে তালা ভাঙার সরঞ্জাম নিয়ে তিনি বিভিন্ন বাসায় যান। তারপর সুযোগ বুঝে তালা ভেঙে চুরি করে সটকে পড়েন তিনি।

গতকাল বুধবার দুপুরে কোতোয়ালি থানায় সংবাদ সম্মেলনে কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান, বুধবার ভোরে কোতোয়ালি থানার পুরোনো স্টেশন রোড থেকে জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ সময় রেহেনা বেগম (৪৫) নামে জাহাঙ্গীরের এক সহযোগীকেও গ্রেফতার করা হয়। জাহাঙ্গীর আলম চন্দনাইশ উপজেলার ইসলামিয়াবাদ পশ্চিম কেশুয়া এলাকার নুরুচ্ছফার ছেলে। রেহেনা বেগম পটিয়া উপজেলার জংশনপাড়া এলাকার জানে আলমের স্ত্রী। ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান, দীর্ঘদিন থেকে সে নগরীর বিভিন্ন বাসা প্রতিষ্ঠানে চুরি করে আসছিল এমন তথ্য আমাদের কাছে ছিল। কিন্তু তাকে কোনোভাবে ধরা যাচ্ছিল না। জাহাঙ্গীর সকাল বেলার সময়টা বেঁচে নেন। কারণ এ সময়টাতে ছেলেমেয়েদের অভিভাবকরা স্কুলে থাকেন। ঠিক এই সময়ে সে চুরি করে। তিনি বলেন, অবাক কান্ড, সর্বোচ্চ ৬ সেকেন্ড লাগে তার একটি তালা খুলতে। জাহাঙ্গীর আলম ও রেহেনা বেগমের কাছ থেকে ১৪৫টি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের চোরাই মোবাইল, ১০৬ জোড়া জুতা, কাপড়সহ বিভিন্ন চোরাই মালামাল জব্দ করা হয়েছে। চুরি ও তালা ভাঙার কৌশল সম্পর্কে পুলিশের কাছে স্বীকার করেন জাহাঙ্গীর আলম। কীভাবে তালা ভাঙেন তাও পুলিশ কর্মকর্তাদের দেখান তিনি।

এদিকে বুধবার ভোরে ধারালো অস্ত্রসহ অলি উল্লাহ মামুন (২৩) ও মো. কামরুল হাসান (২৫) নামে দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। একই সংবাদ সম্মেলনে ওসি মো. মহসিন জানান, তারা দুজন ভাড়ায় খাটে। চুক্তিতে যেকোনো অপরাধ তারা করতে পারে। তারা বেশিরভাগ রিয়াজউদ্দিন বাজার এলাকায় থাকেন।

 

"