সংসদ অধিবেশন

ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলের ৩৭৮ আইন চালু আছে : আইনমন্ত্রী

প্রকাশ : ১২ মার্চ ২০১৯, ০০:০০

সংসদ প্রতিবেদক

ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলে প্রণীত ৩৭৮টি আইন বাংলাদেশে এখনো চালু রয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। গতকাল সোমবার জাতীয় সংসদে মাহফুজুর রহমানের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান। এ সময় মন্ত্রী ৩৭৮টি আইনের তালিকাও উপস্থাপন করেন। আইনমন্ত্রী জানান, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার অব্যবহিত আগে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে প্রযোজ্য আইনকে ওই বছর ১০ এপ্রিল তারিখে জারি করা Laws Continuance Enforcement Order দিয়ে একই তারিখে জারি করা Proclamation of Independence-এর বিধান সাপেক্ষে অব্যাহত রাখা হয়। অব্যাহত থাকা ওই আইনগুলোতে পরে সংবিধানের ১৪৯ অনুচ্ছেদের মাধ্যমে হেফাজত করা হয়েছে। ১৯৭৩ সালে Bangladesh Laws (Revision and Declaration) প্রণয়নের মাধ্যমে স্বাধীনতাপূর্ব আইনগুলো প্রয়োজনীয় সংশোধন ও অভিযোজনপূর্বক বহাল রাখা হয়েছে। আইনমন্ত্রীর উপস্থাপিত তালিকায় দেখা গেছে, সর্বপ্রথম আইনটি হলো ১৭৯৯ সালের The Wills and Intestacy Regulation এবং সর্বশেষটি ১৯৭০ সালের The Government and local Authority Lands Buildings (Recovery of Possession) Ordinance (East Pakistan Ordinance).

দেশের প্রচলিত আইনের সংস্কার, সংশোধন ও আধুনিকীকরণ চলমান প্রক্রিয়া উল্লেখ করে আনিসুল হক বলেন, ‘বাস্তব অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে প্রচলিত আইনের সংস্কার, সংশোধন ও আধুনিকীকরণ হয়ে থাকে।’

ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন মামলা : এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, দেশের ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ২ লাখ ৯৪ হাজার ৪০৮টি।

বিচারাধীন মামলা ৩৫ লাখ ৬৯ হাজার : শামসুল হক টুকুর প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী জানান, দেশে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৩৫ লাখ ৬৯ হাজার ৭৫০টি।

আইনগত সহায়তা : আইনমন্ত্রী জানিয়েছেন, দরিদ্র, সুবিধাবঞ্চিত ও বিচার পেতে অসমর্থ প্রান্তিক পর্যায়ের বিচারপ্রার্থী ও শ্রমজীবী জনগণকে সরকারি খরচে আইনগত সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।

বিচার কাজে গতি : মন্ত্রী বলেন, বিচার কাজে গতিশীলতা বাড়ানোর লক্ষ্যে সরকারের বিশেষ উদ্যোগে বিভিন্ন পর্যায়ের বিচারকের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। আরো ১০০ জন সহকারী জজ নিয়োগের জন্য পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, এছাড়া ৭টি সাইবার ট্রাইব্যুনাল, ১২২টি অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত, ১৫৯টি যুগ্ম জেলা জজ আদালত, ১৯টি পরিবেশ আদালত, ৬টি পরিবেশ আপিল আদালত, ৩৪৬টি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের পদ সৃজন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়াও বাকি ২২টি জেলায় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন নির্মাণের জন্য ডিপিপি প্রস্তুতির কাজ চলমান রয়েছে। সরকার ২৮টি জেলায় বিদ্যমান জেলা জজ আদালত ভবনগুলো ৩-৪তলা পর্যন্ত ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ করেছে এবং ৩৬টি জেলা জজ আদালত ভবন ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণের জন্য ডিপিপি প্রস্তুতির কাজ প্রক্রিয়াধীন আছে।

 

"