বগুড়ার পোড়াদহ মেলায় লাখ টাকার বাঘাড় মাছ

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

বগুড়া প্রতিনিধি

যমুনা নদী থেকে ধরে আনা ৮২ কেজি ওজনের বাঘাড় মাছের দাম ১৫০০ টাকা কেজি দরে ১ লাখ ২৩ হাজার টাকা। পুরো মাছ কেনার ক্রেতা না পেয়ে পরে কেটে কেটে ভাগ করে ১২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেন তিনি। সিরাজগঞ্জ থেকে আসা ব্যবসায়ী সামাদ গতকাল বুধবার বগুড়ার পোড়াদহ মেলায় মাছটি নিয়ে আসেন। এছাড়া ১৬ কেজি ওজনের বোয়াল মাছের দাম ২৫ হাজার টাকা হেঁকেছেন ব্যবসায়ী আলম হোসেন। এ ধরনের বিশাল আকৃতির মাছ আর বড় বড় মিষ্টি কেনাবেচার মধ্য দিয়ে শেষ হলো ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহের মেলা।

আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের ‘খোয়াব নামা’ উপন্যাসে উঠে আসা বগুড়ার গাবতলী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলা। পার্শ্ববর্তী উপজেলাসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলা থেকে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের মিলন মেলায় পরিণত হয় এ মেলা।

পোড়াদহ নামক স্থানে হয় বলে এ মেলার নাম পোড়াদহ মেলা। মেলাকে ঘিরে আশপাশে প্রায় ৩০ গ্রামের মানুষ মেয়ে ও মেয়ে জামাইকে নিমন্ত্রণ দিয়ে আপ্যায়ন করে থাকে। এ কারণে স্থানীয়রা আবার এ মেলাকে জামাই মেয়ে বলে থাকে।

প্রায় ২০০ বছর আগে থেকে সন্ন্যাসী পূজা উপলক্ষে গাবতলীর গোলাবাড়ী বন্দরের পূর্বধারে গাড়িদহ নদীর পশ্চিমপার্শ্বে মেলাটি অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। তবে এবার মেলার স্থান একটু পরিবর্তন হয়ে পূর্ব-উত্তর পাশে মেলা বসেছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে এবার ৩০ বিঘা জমির ওপর মেলা বসে।

মিষ্টি, আর মাছের জন্য বিখ্যাত ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলা। এ মেলায় মাছ, মিষ্টি, ফার্নিচার, বড়ই, পান সুপারি, তৈজসপত্র, খেলনা থাকলেও কালক্রমে মাছের জন্য বিখ্যাত হয়ে আসছে। মেলায় নাগরদোলা, চরকি, সার্কাসসহ শিশুদের জন্য অন্যান্য খেলা থাকলেও বড় মাছ কিনে তা দিয়ে মেয়ে ও মেয়ে জামাইকে আপ্যায়ন করানো হয়ে থাকে।

এই মেলায় ১২ থেকে ১৫ কেজি ওজনের বোয়াল মাছের দাম হাঁকানো হয়েছে প্রতি কেজি ১৬০০ টাকা, ১২ থেকে ১৫ কেজি ওজনের কাতলা মাছ ১৫০০ টাকা কেজি, ৬ থেকে ৮ কেজি ওজনের কাতলা মাছ ১২০০ টাকা, ৮ থেকে ১২ কেজি ওজনের চিতল ৮০০ টাকা প্রতি কেজি, ১০ কেজির ওপরে আইড় মাছ ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

এই মেলার দিনে বগুড়া শহরের ফতেহ আলী ও চাষি বাজারেও বড় আকৃতির মাছ নিয়ে আসা হয়। মাছের দোকানগুলো বিভিন্ন রঙের কাগজ দিয়ে সাজানো হয়। দুপুরের পর ১০০ কেজি ওজনের মাছটি প্রতি কেজি ৮০০ টাকা করে বিক্রি হয়। স্থানীয় সমাজসেবক লুৎফর রহমান সরকার স্বপন জানান, হাজার হাজার মানুষের পদচারণা ছিল মেলায়। জামাই মেয়েসহ আত্মীয়স্বজনদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে গোটা এলাকা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সার্বিক নিরাপত্তা ছিল চোখে পড়ার মতো।

বগুড়ার গাবতলী মডেল থানার ওসি সেলিম হোসেন জানান, পোড়াদহ মেলাটি সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দ্বারা কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

"