লালন সাধকের বাড়িতে সৌদি নাগরিকের মৃত্যু!

প্রকাশ : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি
ama ami

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে লালন সাধক আবু সাইদ সানীর বাড়িতে আবু নাসের আল দুসারি (৪৫) নামে এক সৌদি নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার ডৌহাখলা ইউনিনের ডৌহাখলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এই সৌদি নাগরিকের লাশ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রাখা হয়েছে। তবে এই মৃত্যু নিয়ে এলাকায় প্রশ্ন ওঠেছে। পুলিশ জানিয়েছে, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত এই মৃত্যুর কারণ বলা যাবে না।

জানা গেছে, সানী ডৌহাখলা ইউনিয়নের ডৌহাখলা গ্রামের করম আলীর ছেলে। ২০ বছর আগে ঢাকার গুলশানের একটি হোটেলে আবু নাছের আল দুসারী সঙ্গে পরিচয় হয় সানীর। ওই পরিচয়ের সূত্র ধরে আবু নাছের আল দুসারী গত বছরের ৯ ডিসেম্বর সানীর বাড়ি ডৌহাখলা গ্রামে আসেন। তারা দুজন এক অপরের বন্ধু ছিলেন। গত বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় সানীর বাড়িতে আবু নাছেরর মৃত্যুর খবর জানার পর গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুল্লাহ আল মামুনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার পর ডৌহাখলা গ্রামে সানীর বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সানীর শোয়ার ঘরের বিছানায় আবু নাছেরের লাশ পড়ে আছে। আর সানী লাশের পাশে বসে বিলাপ করছেন। কিন্তু কি কারণে আবু নাছেরের মৃত্যু হয়েছে সেটি কেউ নিশ্চিতভাবে বলতে পারছিলেন না। পরে রাত ১১টার পর গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ইশতিয়াক মোশারফ ঘটনাস্থলে এসে আবু নাছেরের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে এই মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন। মেডিকেল অফিসার ইশতিয়াক মোশারফ বলেন, এই সৌদি নাগরিকের কী কারণে মৃত্যু হয়েছে সেটা ময়নাতদন্ত না করে সঠিক বলা যাচ্ছে না।

আবু সাইদ সানী বলেন, আবু নাছের এক ভিসা ব্যবসায়ী। আমরা ভালো বন্ধু এবং তিনি প্রায়ই আমার বাড়িতে অবকাশ যাপনের জন্য আসতেন। ড্রিংকস করলেও আমরা দুজন ভালোবন্ধু ছিলাম। কিন্ত আজকে তার মৃত্যু আমি মেনে নিতে পারছি না। তিনি আরো বলেন, বৃহস্পতিবার দুপুরে খাবার খেয়ে আবু নাছের বিছানায় ঘুমিয়ে পড়েন। কিন্তু রাত হয়ে গেলেও তিনি ঘুম থেকে না উঠায় আমি ডাকাডাকি করেও জাগাতে পারিনি। আমি চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন ছুটে আসেন। কিন্তু আমার বন্ধু নাছের নিথর হয়ে তখন পড়ে থাকেন। এদিকে আবু নাছেররের মৃত্যুর খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও গৌরীপুর থানার ওসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারহানা করিম বলেন, আবু নাছেরের মৃত্যুর বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সৌদি দূতাবাসকে জানানো হয়েছে। লাশ আপাতত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হবে।

গৌরীপুর থানার ওসি আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, জব্দকৃত আবু নাছেরের পাসপোর্ট সূত্রে জানা গেছে তিনি সৌদি আরবের দাম্মাম নগরীর বাসিন্দা। তার বাবার নাম ফালেহ। আমার আবু নাছেরের মৃত্যুর কারণ উদ্ঘাটনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তবে তদন্ত শেষ না করে মৃত্যুর কারণ বলা যাচ্ছে না।

 

"