লামায় পিএসসি খাতার গোপন কোড নম্বর ফাঁস!

প্রকাশ : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি

বান্দরবানের লামায় প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার খাতা দেখায় পক্ষপাতিত্ব, খাতার গোপন কোড নম্বর ফাঁস এবং নির্দিষ্ট সময়ের আগেই পরীক্ষার ফল অভিভাবকদের হাতে চলে আসার অভিযোগ উঠেছে। এ বছর প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা ২০১৮ এর পরীক্ষার খাতা নিজ নিজ উপজেলায় মূল্যায়ন করা হয়। এক্ষেত্রে উপজেলা শিক্ষা অফিস প্রত্যেকটি খাতায় একটি গোপন কোড নাম্বার ব্যবহার করে খাতা দেখার দায়িত্ব দেয়া হয় উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের। একটি মহল দাবি করেছে, লামা শিক্ষা অফিস থেকে যেকোনোভাবে খাতার গোপন কোড নাম্বার ফাঁস হয়ে গেছে। যার কারণে কোন খাতা কোন স্কুলের বা কোন শিক্ষার্থীর সেটা জেনে যায় শিক্ষকরা। তারপর নিজেদের মধ্যে পারস্পরিক সমঝোতার মধ্য দিয়ে চলে খাতা দেখা।

নাম প্রকাশ না করা সত্ত্বে একজন বলেন, এক প্রধান শিক্ষকের সন্তান এবার পিএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। ওই শিক্ষক পরীক্ষার কেন্দ্রের দায়িত্ব পালন না করলেও খাতা দেখার দায়িত্বে ছিলেন। ইংরেজি বিষয়ে তার সন্তান ৯৪ নম্বর পেলেও সে পুনরায় খাতাটি নিয়ে মূল্যায়নকারী শিক্ষককে দিয়ে ৯৬ নাম্বার করিয়ে নিয়েছেন। প্রশ্ন উঠেছে ওই শিক্ষক কীভাবে জানলেন এই খাতাটি তার সন্তানের? কম্পিউটার অ্যান্ট্রিকরণ সিটে এখনো কাটাকাটির চিহ্ন রয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের উপপরিচালক (সংস্থাপন) মো. রাজা মিয়া উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, আমি বান্দরবান জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। খাতা কাটায় পক্ষপাতিত্ব, খাতার গোপন কোড নম্বর ফাঁস ও নির্দিষ্ট সময়ের আগে পরীক্ষার ফলাফল অভিভাবকদের হাতে চলে আসার বিষয়ে জানতে বেশ কয়েকবার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তপন চৌধুরীর মুঠোফোনে কল করলেও তিনি মোবাইল রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

"