বাদীর সাক্ষ্যে শুরু হলি আর্টিজান হামলার বিচার

প্রকাশ : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

আদালত প্রতিবেদক

ঢাকার গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার ঘটনায় মামলার বাদীর সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়েছে। সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মুজিবুর রহমানের আদালতে গতকাল সোমবার বাদী এসআই রিপন কুমার দাস সাক্ষ্য দেন। দুপুর ১২টা থেকে এক ঘণ্টা এজাহারের সমর্থনে জবানবন্দি দেন রিপন কুমার।

জবানবন্দির পর তাকে আসামি রাকিবুল হাসান রিগান এবং অন্য একজনের পক্ষে জেরা শুরু করেন আইনজীবী ফারুক আহাম্মদ। বাদীকে এক ঘণ্টা জেরার পর বিচারক আজ মঙ্গলবার সাক্ষ্য গ্রহণের পরবর্তী দিন রাখেন। এ দিন দুইজন বিদেশি পর্যবেক্ষক আদালতে উপস্থিত থেকে বিচার কাজ দেখেন। তবে তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আসামিদের মধ্যে নব্য জেএমবির সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী, রাকিবুল হাসান রিগান, রাশেদুল ইসলাম ওরফে র‌্যাশ, সোহেল মাহফুজ, মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান এবং হাদিসুর রহমান সাগরকে আদালতে হাজির করা হয়। বাকি দুই আসামি শহীদুল ইসলাম খালেদ ও মামুনুর রশিদ রিপনকে পলাতক।

২০০৯ সালের সন্ত্রাসবিরোধী আইনে ছয় মাসের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তির সময় দেওয়া রয়েছে। সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মাধ্যমে হত্যার অপরাধ প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ মৃত্যুদন্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদন্ডের বিধান রয়েছে এ আইনে।

২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে হলি আর্টিজান বেকারিতে পাঁচ তরুণের ওই হামলায় ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ ২০ জনকে জবাই ও গুলি করে হত্যা করা হয়। পরদিন কমান্ডো অভিযানে নিহত হন হামলাকারী পাঁচ তরুণ-রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, মীর সামেহ মোবাশ্বের, নিবরাজ ইসলাম, শফিকুল ইসলাম ওরফে উজ্জ্বল ও খায়রুল ইসলাম ওরফে পায়েল। দুই বছরের বেশি সময় ধরে তদন্তের পর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের পরিদর্শক হুমায়ুন কবির গত ২৩ জুলাই হামলায় জড়িত ২১ জনকে চিহ্নিত করে তাদের মধ্যে জীবিত আটজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। চিহ্নিত বাকি ১৩ জন বিভিন্ন অভিযানে নিহত হওয়ায় তাদের অব্যাহতি দেওয়ার সুপারিশ করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

গত ২৬ নভেম্বর বিচারক মো. মুজিবুর রহমান আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দিয়ে ৩ ডিসেম্বর সাক্ষ্য গ্রহণের দিন রেখেছিলেন।

"