প্রতিবন্ধীদের অধিকার রক্ষায় নীতিমালা হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘সরকারি চাকরিতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠীসহ অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর অধিকার নিশ্চিত করতে নতুন নীতিমালা প্রণয়নের কাজ চলছে। কোটার বিরুদ্ধে আন্দোলন হয়েছিল। কয়েকদিন পরপরই এই আন্দোলন হয়। সেজন্য আমরা কোটা পদ্ধতি বাতিল করে দিয়েছি এটা ঠিক। তবে একটা নীতিমালা আমরা তৈরি করছি।’ আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস উপলক্ষে গতকাল সোমবার ঢাকায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী জানান, প্রতিবন্ধী, সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠী বা অনগ্রসর জাতিÑ তারা যেন যথাযথভাবে চাকরি পায় এবং চাকরিতে তাদের অধিকার নিশ্চিত হয়, নীতিমালায় সেই ব্যবস্থাটা অবশ্যই করা হবে। প্রতিবন্ধীদের ভেতরের শক্তি ও মেধাকে কাজে লাগানোর আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের প্রতিবন্ধী খেলোয়াড়রা সব সময় বাংলাদেশের জন্য স্বর্ণ অর্জন করে। প্রতিবন্ধীদের ভেতর যে শক্তি আছে, যে মেধা আছে, তা যেন ব্যবহার করতে পারি। তাদের অবহেলা করার কোনো সুযোগ নেই। অবহেলিত জনগোষ্ঠী হিসেবে প্রতিবন্ধীদের মানুষ হিসেবে গণ্য করা হতো না। আমরা যেন তাদের অবহেলা না করি, মানুষ হিসেবে তাদের যে অধিকার, তা যেন দিতে পারি।’ এ সময় দেশের অগ্রগতি ও উন্নয়নে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মেধা ও সৃজনশীলতাকে কাজে লাগানোর বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি প্রতিবন্ধীদের খেলাধুলাসহ অন্যান্য সৃজনশীল কাজে উৎসাহ প্রদানে ও সহায়তা করতে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষকে আন্তরিক প্রয়াস চালানোর আহ্বান জানান।

প্রতিবন্ধীদের যাতায়াত সহজ করতে ভবিষ্যতে সব ধরনের স্থাপনা প্রতিবন্ধীদের যাতায়াতবান্ধব করে গড়ে তোলার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান, প্রতিবন্ধীরা যাতে সহজে যাতায়াত করতে পারে, সেজন্য সব ধরনের স্থাপনা নির্মাণের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া সব স্থাপনায় তাদের উপযোগী টয়লেটসহ অন্যান্য সুবিধা নিশ্চিতের কথা বলা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী জানান, প্রতিবন্ধীদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে ১৬ লাখের বেশি প্রতিবন্ধীকে বর্তমানে ভাতা দেওয়া হচ্ছে। শিগগিরই মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তাদের এই ভাতা পৌঁছে দেওয়ার সহজ ব্যবস্থা করা হবে। ‘সাম্য ও অভিন্ন যাত্রায় প্রতিবন্ধী মানুষের ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক প্রতিপাদ্য দিয়ে সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন সভাপতিত্ব করেন। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বিশেষ অতিথি ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব জিল্লার রহমান এবং জাতীয় প্রতিবন্ধী ফোরামের সভাপতি সায়েদুল হক বক্তব্য দেন। সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ এবং সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ডা. মোজাম্মেল হোসেন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।

"